মোল্লাহাটে পূর্ব বিরোধের জেরে দফায় দফায় হামলা- আহত ২৫

মোল্লাহাট (বাগেরহাট) প্রতিনিধিঃ মোল্লাহাটে দুই পক্ষের পূর্ব বিরোধের জেরে দফায় দফায় হামলা ও প্রতি হামলায় অন্তত ২০ জন আহত হয়েছে। উপজেলার চুনখোলা এলাকায় বিবাদমান দুই পক্ষের মাঝে বৃহস্পতিবার সকাল ১০টা হতে দুপুর ১২টা পর্যন্ত ৪/৫ দফায় ওই হামলা-প্রতি হামলার ঘটনা ঘটে। ওই ঘটনায় গুরুতর আহতদের মোল্লাহাট ও গোপালগঞ্জ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এছাড়া ওই এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।
দুই পক্ষের লোকজন জানায়-উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক সিকদার ওয়ালিদ হোসেন ও উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মুন্সি তানজিল হোসেনের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে স্থানিয় আধিপত্ত নিয়ে বিরোধ চলে আসছে। ঘটনার দিন বৃহস্পতিবার সকালে সিকদার ওয়ালিদ হোসেনের পক্ষের দুই যুবক গোপালগঞ্জ থেকে ঔষধ কিনে বাড়িতে ফিরছিলেন। তখন পথিমধ্যে মুন্সি তানজিল হোসেনের পক্ষের লোকজনে ওই দুই যুবককে বেদম মারপিট করে। অতর্কিতভাবে ওই দুই যুবককে মারিপটের ঘটনায় ক্ষুব্ধ হয় সিকদার ওয়ালিদ হোসেনের লোকজন। এরপর কয়েক দফা হামলা-প্রতি হামলার ঘটনা ঘটে। এসময় কয়েকটি বাড়ি-ঘর ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা চালানো হয় বলেও জানায় দুই পক্ষ। ওই ঘটনায় সিকদার ওয়ালিদ হোসেনের পক্ষের আহতরা হলেন-মনির মুন্সি (৫০), ইজাজ মুন্সি (২৭), তরিকুল মুন্সি (২৮), বদির মুন্সি (৫০), শওকত মুন্সি (৪০), আজিজুল মুন্সি (৭০), বুলবুল শরীফ (৪৫), আরমান আলী মুন্সি (২৫), এবং প্রথম হামলার শিকার রাতুল শরীফ (২০) ও মোঃ ইমাম মুন্সি (১৯)সহ কয়েকজন। তানজিল মুন্সির পক্ষের আহতরা হলেন-মুন্সি মিজানুর রহমান (৪৮), হাসানুর মুন্সি (৪০), বাবুল মুন্সি (৪৬), আল আমীন মুন্সি (২৫), আয়াসিন মুন্সি (১৪), নয়ন (১৬), ইকরাম (১৯), মামুন (১৭), মানিক (২৪) ও মুনসুর (৫০)সহ কয়েকজন।
মোল্লাহাট থানা অফিসার ইনচার্জ কাজী গোলাম কবীর বলেন-ওই এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে এবং পরিস্থিতি স্বাভাবিক আছে।

ঠাকুরগাঁওয়ে এক পুলিশ সদস্য করোনায় আক্রান্ত হয়েছে 

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধিঃ এবার ঠাকুরগাঁওয়ে এক পুলিশ সদস্য করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। আক্রান্ত পুলিশ সদস্য সম্প্রতি ঢাকা থেকে ঠাকুরগাঁওয়ে এসেছেন। তার বাড়ী ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জ উপজেলার সৈয়দপুর ইউনিয়নের কোঠাপাড়া গ্রামে। তিনি ঢাকা মেট্রোপলিটিন পুলিশ (ডিএমপি) তে কনস্টেবল পদে কর্মরত।
আজ বৃহস্পতিবার (৩০ এপ্রিল) বিকেলে ঠাকুরগাঁওয়ে নতুন করে এক ব্যক্তি করোনায় আক্রান্ত হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জেলা সিভিল সার্জন ডা: মাহফুজার রহমান সরকার।
তিনি বলেন, আজকে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল হতে প্রাপ্ত সর্বশেষ রিপোর্ট অনুযায়ী ঠাকুরগাঁও এ নতুন করে করোনায় সংক্রমিত রোগী শনাক্ত হয়নি। কিন্তু রংপুরের সর্বশেষ রিপোর্ট অনুযায়ী ঠাকুরগাঁও এর পীরগঞ্জ উপজেলায় একজন ব্যক্তি নতুন করে করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন। তার বয়স ১৮ বছর। পূর্বের রিপোর্টসহ ঠাকুরগাঁওয়ে সর্বমোট করোনা সংক্রমিত রোগীর সংখ্যা বর্তমানে ১৬ জন।  এছাড়াও তিনি সরকারি নির্দেশনা মেনে সকলকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার পরামর্শ দেন।
প্রসঙ্গত, এর আগে গত ১১ এপ্রিলে ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুরে ২ জন ও পীরগঞ্জে একজনসহ প্রথম তিনজন করোনা রোগী সনাক্ত হয়। পরে ১৭ এপ্রিল রাণীশংকৈলে এক শিশু ও হরিপুরে একজন সনাক্ত হয়। এর পর ১৮ এপ্রিল আবারো রাণীশংকৈলে একজন সনাক্ত হয়। ২১ এপ্রিল সদরে একজন নারী সনাক্ত হয়।২৬ এপ্রিল বালিয়াডাঙ্গীর লাহিড়ীতে গাজীপুরে গার্মেন্টস এ চাকুরী করা ২৭ বছর বয়সী এক যুবক করোনায় আক্রান্ত হয়। ২৭ এপ্রিল জেলার হরিপুরে ৩ জন, পীরগঞ্জে ২ জন ও বালিয়াডাঙ্গীতে একজনসহ মোট ৬ জন করোনা রোগী সনাক্ত হয়। ২৮ এপ্রিল হরিপুরে নতুন করে আরও একজন করোনা রোগী সনাক্ত হয়।সর্বশেষ আজ ৩০ এপ্রিল নতুন করে পীরগঞ্জে এক পুলিশ সদস্য আক্রান্ত হওয়ায় জেলায় মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাড়ালো ১৬ জনে। তবে এরমধ্যে দুইজন ব্যক্তি সুস্থ্য হয়ে বাড়ী ফিরেছে।

আটোয়ারী থেকে কৃষি শ্রমিক প্রেরণ

মনোজ রায়, আটোয়ারী (পঞ্চগড়) প্রতিনিধি : পঞ্চগড়ের আটোয়ারী উপজেলার ১০ জন কৃষি শ্রমিককে নওগাঁ পাঠানো হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলা নির্বাহী অফিসার শারমিন সুলতানার তত্বাবধানে এবং উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ মো: আবদুল্লাহ আল মামুনের সার্বিক সহযোগিতায় কৃষি শ্রমিক দলটি নওগাঁর রাণীনগর উপজেলার উদ্দ্যেশে রওয়ানা হয়। উল্লেখ্য, করোনা প্রকোপের কারনে শ্রমিক সংকটের দরুন আগাম রোপনকৃত বোরো ধান কাঁটা কার্যক্রম ব্যাহত হওয়া থেকে রক্ষার্থে উপজেলার ধামোর ইউনিয়নের গিরাগাঁও গ্রামের দশ জন কৃষি শ্রমিককে আনুষ্ঠানিকভাবে এলাকার বাহিরে প্রেরণ করা হলো।

তালায় এক ব্যক্তি করোনায় আক্রান্ত

তালা প্রতিনিধি : সাতক্ষীরার তালা উপজেলার নগরঘাটায় সঞ্জয় সরকার নামে এক ব্যক্তি করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। গত ২৮ এপ্রিল তার নমুনা সংগ্রহ করে খুলনা মেডিকেল কলেজের পিসিআর ল্যাবে পাঠানো হয়েছিল। বৃহস্পতিবার (৩০ এপ্রিল) সন্ধ্যায় খুলনা মেডিকেল কলেজের সংশ্লিষ্ট ইউনিট থেকে তার করোনা শনাক্তের বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে মর্মে জানিয়েছেন সাতক্ষীরার সিভিল সার্জন ডা. হুসাইন শাফায়াত।

আক্রান্ত ব্যক্তি তালা উপজেলার পাটকেলঘাটা থানার নগরঘাটা ইউনিয়নের কাপাসডাঙ্গার বাসিন্দা বলে জানা গেছে।
তালা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. রাজীব সরদার জানান, আক্রান্ত ব্যক্তির অবস্থান সম্পর্কে খোঁজখবর নেওয়া হচ্ছে। প্রশাসনের সাথে সমন্বয় করে তার বাড়িসহ সংস্পর্শে আসা সকলের বাড়ি লক ডাউন করা হয়েছে এবং পরিস্থিতি বুঝে তিনি বাড়িতে থাকবেন না হাসপাতালে ভর্তি হবেন, সেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

প্রসঙ্গত, এই প্রথম সাতক্ষীরা থেকে পাঠানো কোন ব্যক্তির নমুনা করোনা পজেটিভ হলো। এর আগে যশোরের শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের এক মেডিকেল টেকনিশিয়ান কর্মস্থল থেকে করোনা আক্রান্ত হয়ে সাতক্ষীরায় এসে শহরের উত্তর কাটিয়াস্থ ভাড়া বাড়িতে আইসোলেশনে আছেন।

কেশবপুর হাসপাতালের আরএমও’র দেহে করোনা সনাক্ত

corona

কেশবপুর, যশোরঃ যশোরের কেশবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও)-এর দেহে করোনা ভাইরাস সনাক্ত হয়েছে। করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর সংস্পর্শে আসায় সন্দেহজনকভাবে বুধবার তার নমুনা পরীক্ষা জন্য পাঠানো হয়েছিল। বৃহস্পতিবার সকালে তার করোনা ভাইরাস পরীক্ষার রিপোর্ট আসে পজেটিভ। কেশবপুর উপজেলার স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিসার ডাঃ আলমগীর হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। এ নিয়ে কেশবপুর উপজেলায় করোনা ভাইরাসের আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ালো ১১ জনে।
কেশবপুর উপজেলার স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিসার ডাঃ আলমগীর হোসেন জানান, আক্রান্ত ওই ডাক্তারকে হাসপাতালের আইসোলেশন ইউনিটে ভর্তি করা হয়েছে। কেশবপুরে করোনাভাইরাস শনাক্ত ১১ জনের মধ্যে ৮ জন হাসপাতালের চিকিৎসক ও কর্মচারী। একজন প্রাইভেট ক্লিনিকের স্বাস্থ্যকর্মী। শনাক্ত রোগীদের কেশবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আইসোলেশনে রাখা হয়েছে। তাদের বাসা ও বাড়ি প্রশাসনের পক্ষ থেকে লকডাউন করা হয়েছে।
এদিকে কেশবপুরে প্রতিদিনই শনাক্ত হচ্ছে করোনা রোগী। এ সংবাদ এলাকায় প্রচার হওয়ায় কেশবপুর হাসপাতাল প্রায় রোগীশূন্য হয়ে পড়েছে। অতি প্রয়োজন ছাড়া কেউ হাসপাতালে প্রবেশ করছেন না।

কেশবপুরে প্রতিবন্ধীদের মাঝে নগদ অর্থ বিতরণ

এস আর সাঈদ, কেশবপুর, যশোরঃ যশোরের কেশবপুর উপজেলা সমাজসেবা অধিদপ্তরের আয়োজনে প্রতিবন্ধীদের মাঝে নগদ অর্থ বিতরণ করা হয়েছে। উপজেলা পরিষদ সম্মুখে সামাজিক দূরত্ব রক্ষা করে বৃহস্পতিবার সকালে সুবোধ মিত্র মেমোরিয়াল অর্টিজম ও প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়ের ১৪ জন প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীর মাঝে জনপ্রতি ৫ শত টাকা করে নগদ অর্থ বিতরণ করেন উপজেলা সমাজসেবা অফিসার তরিকুল ইসলাম। বিতরণকালে উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার মনির হোসেন ও সুবোধ মিত্র মেমোরিয়াল অর্টিজম ও প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সিরাজুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।