বটিয়াঘাটায় ২ শত বছর ধরে চলাচলের রাস্তা দখল : অর্ধ শতাধিক মানুষ অবরুদ্ধ

ইন্দ্রজিৎ টিকাদার, বটিয়াঘাটাঃ বটিয়াঘাটা উপজেলার জলমা ইউনিয়নের শৈলমারী এলাকায় প্রায় ২ শত বছর ধরে চলাচলের রাস্তা রাতারাতি ঘেরা দিয়ে গাছপালা রোপন করে বন্ধ করে দিয়েছে একটি চক্র। ফলে ৮টি পরিবারের অর্ধ শতাধিক মানুষ অবরুদ্ধ হয়ে পড়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে গত শুক্রবার সকাল ১০টার দিকে। এ ব্যাপারে ভূক্তভোগীরা প্রতিকার চেয়ে থানায় লিখিত অভিযোগ করেছে। সুত্রে প্রকাশ, উপজেলার শৈলমারী এলাকায় পরামানিকের খালের পশ্চিম পাশ দিয়ে চলাচলের রাস্তাটি উপজেলা পরিষদের অর্থায়নে তৎকালীন জলমা ইউনিয়নের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান সনজিৎ কুমার মন্ডল রাস্তাটি পুঃন নির্মান করেন। গত শুক্রবার স্থানীয় দেবেন্দ্র নাথ বৈরাগী, শংকর, বৈরাগী, কার্তিক রায়সহ তাদের সহযোগীরা রাতের আধাঁরে তারের ঘেরা বেড়া দিয়ে রাস্তাটি দখল করে নিয়েছে। যে কারনে ৮টি পরিবারের অর্ধ শতাধিক মানুষ এবং গবাদী পশু নিয়ে অবরুদ্ধ হয়ে পড়েছে। এ ব্যাপারে ভূক্তভোগী পরিবার গুলো বটিয়াঘাটা উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ প্রশাসনের উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছে।

ফুলতলায় ৪ তরকারি ব্যবসায়ীকে ২৫ হাজার টাকা জরিমানা

ফুলতলা (খুলনা) প্রতিনিধিঃ খুলনায় ফুলতলায় নির্ধারিত স্থানে কাঁচামাল বিক্রি না করার অভিযোগে রোববার বেলা ১১টায় নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট ও ইউএনও পারভীন সুলতানার নেতেৃত্বে ভ্রাম্যমান আদালত ৪ তরকারী ব্যবসায়ীকে ২৫ হাজার টাকা জরিমানা ধার্য ও আদায় করেন। এর মধ্যে জাফর হোসেনকে ৫ হাজার টাকা, ফয়সালকে ১০ হাজার টাকা, রনিকে ৫ হাজার টাকা ও আলামিনকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা ধার্য এবং আদায় করা হয়।

ফুলতলায় বোরো ধান ক্রয়ে “কৃষকের হাসি” মোবাইল অ্যাপের উদ্বোধন

তাপস কুমার বিশ্বাসঃ সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে কৃষকের নিকট থেকে বোরো ধান ক্রয়ের জন্য রোববার বেলা সাড়ে ১১টায় ফুলতলা উপজেলা পরিষদ অডিটরিয়ামে খুলনা জেলা প্রশাসনের উদ্ভাবিত “কৃষকের হাসি” মোবাইল অ্যাপের উদ্বোধন করা হয়। ইউএনও পারভীন সুলতানার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত থেকে খুলনার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা) মোঃ জিয়াউর রহমান কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোছাঃ রীনা খাতুন, খাদ্য কর্মকর্তা আনোয়ার হোসেন, ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ রবিউল ইসলাম, সাংবাদিক শেখ মনিরুজ্জামান, কৃষক প্রতিনিধি রবিউল ইসলামসহ কৃষি বিভাগের ব্লক সুপারভাইজার প্রতিনিধিবৃন্দ।

প্রসঙ্গতঃ সরকার কৃষকের নিকট থেকে ২৬ টাকা দরে ৫১৪ মেট্রিকটন বোরোধান ক্রয় করবে। গতকাল (রোববার) থেকে নিবন্ধন শুরু হয়ে আগামী ১৬ মে পর্যন্ত চলবে। নিবন্ধিত কৃষকের মধ্য থেকে লটারীর মাধ্যমে ধান ক্রয়ের জন্য কৃষকের তালিকা প্রনয়ন করা হবে। প্রত্যেক তালিকাভুক্ত কৃষক সর্বোচ্চ ১ মেট্রিকটন ধান বিক্রি করতে পারবে। এ সময় কৃষকদের পক্ষ থেকে রেজিষ্ট্রেশনের সময় বৃদ্ধির দাবি জানানো হয়।

কেশবপুরে প্রধানমন্ত্রী প্রদত্ত শিশুখাদ্য বিতরণ

এস আর সাঈদ, কেশবপুর (যশোর) : যশোরের কেশবপুর উপজেলার সাগরদাঁড়ী ইউনিয়নে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে লকডাউনে কর্মহীন পরিবারের শিশুদের উপহার স্বরূপ প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা উপজেলা প্রশাসনের মাধ্যমে শিশুখাদ্য প্রদান করেছেন। রবিবার সকালে উপজেলার সাগরদাঁড়ী ইউনিয়ন পরিষদ সম্মুখে ১৯ টি পরিবারের মাঝে প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার উপহার শিশুখাদ্য শিশুদের মাঝে বিতরণ করেন সাগরদাঁড়ী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কাজী মুস্তাফিজুল ইসলাম মুক্ত। এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কেশবপুর উপজেলা ছাত্রলীগের আহব্বায়ক কাজী আযাহারুল ইসলাম মানিক, উপজেলা ত্রান শাখার অফিস সহকারী নিয়াজ মোঃ ফাইসাল, ইউপি সদস্য কবিতা বেগম, সংরক্ষিত মহিলা সদস্য মনোয়ারা বেগম, আনছার ভিডিপি কমান্ডার আলী হোসেন, ডাঃ হুমায়ুন কবীর প্রমুখ।

খুলনা জেলা রেড ক্রিসেন্টের পক্ষ থেকে প্রেসক্লাবকে স্বাস্থ্য সুরক্ষা সমগ্রী প্রদান

খুলনা অফিস : খুলনা জেলা রেড ক্রিসেন্টের পক্ষ থেকে প্রেসক্লাবকে স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী প্রদান করা হয়েছে। আজ রবিবার দুপুরে প্রেসক্লাব চত্তরে ১টি জীবানু নাশক স্রে ম্যাশিন, ২০টি সাবান ও ২০টি হ্যান্ড স্যানিটাইজার প্রদান করেন খুলনা জেলা রেড ক্রিসেন্ট ইউনিট ও খুলনা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শেখ হারুনুর রশীদ।
এ সময়ে উপস্থিত ছিলেন খুলনা প্রেসক্লাবের সভাপতি এস এম নজরুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক মামুন রেজা, জেলা রেড ক্রিসেন্ট ইউনিটের সেক্রেটারী ও খুলনা প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি মকবুল হোসেন মিন্টু, প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এস এম জাহিদ হোসেন, যুগ্ম-সম্পাদক এস এম কামাল হোসেন, কোষাধ্যক্ষ সোহেল মাহমুদ, সহকারী সম্পাদক বিমল সাহা, নির্বাহী সদস্য মো. রাশিদুল ইসলাম, মো. জাহিদুল ইসলাম ও মো. আনিস উদ্দিন, ক্লাব সদস্য আলমগীর হান্নান, রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির ইউনিট লেবেল কর্মকর্তা মো. মঈনুল ইসলাম প্রমুখ।
খুলনা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যন শেখ হারুনুর রশীদ ব্যক্তিগতভাবে এ সময়ে খুলনা প্রেসক্লাবে সাংবাদিকদের জন্য ২০টি পার্সোনাল প্রোটেক্টিভ ইক্্ুযইপমেন্ট (পিপিই) প্রদান করেন।

গাইবান্ধায় নতুন করে ৫১ জনসহ মোট ৫৮৬ জন কোয়ারেন্টাইনে

corona

গাইবান্ধা প্রতিনিধি : গাইবান্ধায় গত ২৪ ঘন্টায় রোববার করোনা ভাইরাসে নতুন করে কেউ আক্রান্ত হয়নি। তবে করোনা ভাইরাস সংক্রান্ত নানা উপসর্গে সন্দেহজনকভাবে নতুন করে ৫১ জনকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় হোম কোয়ারেন্টাইনে চিকিৎসাধীন রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৬৬৪ জন। এদিকে জেলায় সর্বমোট আক্রান্তের সংখ্যা এখনও ২৪ জন রয়েছে। এরমধ্যে একজন মারা গেছে। বাকিরা একজন রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এবং ১১ জন গাইবান্ধা সদর হাসপাতালের আইসোলেসনসহ বিভিন্ন আইসোলেসনে রয়েছে। এছাড়া করোনায় আক্রান্ত ১১ জন রোগী সুস্থ হওয়ায় তাদেরকে এবং ১৪ দিন হোম কোয়ারেন্টাইন শেষে ১২৯ জনকে ছাড়পত্র দেয়া হয়েছে।

জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্রে আরো জানা যায়, জেলায় গত ২৪ ঘন্টায় ৫৮৬ জন চিকিৎসাধীন রোগী হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছে। এরমধ্যে সুন্দরগঞ্জে ২৩, গোব্দিন্দগঞ্জে ৪২, সদরে ৮৩, ফুলছড়িতে ১৫৩, সাঘাটায় ১৮১, পলাশবাড়ীতে ১২, সাদুল্যাপুর ৯২ জন।

যশোরের ৮ উপজেলা ভূমি অফিসের ৮ নৈশ প্রহরীর মানবেতর জীবন-যাপন

এস আর সাঈদ, কেশবপুর (যশোর): যশোর জেলার ৮ উপজেলা ভূমি অফিসের ৮জন নৈশ প্রহরী বিগত ১৯ মাস যাবৎ বেতন-ভাতা না পেয়ে পরিবার-পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবন-যাপন করছে। বেতন-ভাতার জন্য ঐ ৮জন নৈশ প্রহরী প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
জানাগেছে, ঢাকা -১০০০, ৩৯/১ বঙ্গবন্ধু এভিনিউ স্টেট সার্ভিস লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এর ০১-০৬-২০১৫ তারিখের ৫৮১ নম্বর স্মারকের প্রেক্ষিতে যশোর জেলার রাজস্ব প্রশাসনের অধীন উপজেলা ভূমি অফিস সমূহের জন্য আউটসোর্সিং পদ্ধতির মাধ্যমে ৮ জন নৈশ প্রহরী পদে জনবল সরবরাহের নিমিত্তে আউটসোর্সিং নীতিমালা ২০০৮ অনুযায়ী বিধি মোতাবেক সর্বসাকুল্যে নির্ধারিত ৮ হাজার ৭ শত টাকা বেতনে নিয়োগ প্রদান করা হয়। ৮ উপজেলার ভূমি অফিসে নৈশ প্রহরী পদে নিয়োগ প্রাপ্তরা হলেন, মণিরামপুর উপজেলা ভূমি অফিসে মোঃ আসাদুল হোসেন, শার্শা উপজেলা ভূমি অফিসে এম এ হালিম, কেশবপুর উপজেলা ভূমি অফিসে নাছির উদ্দীন, যশোর সদর উপজেলা ভূমি অফিসে কামরুল হাসান, ঝিকরগাছা উপজেলা ভূমি অফিসে আশরাফ হোসেন, চৌগাছা উপজেলা ভূমি অফিসে এমদাদুল হক, অভয়নগর উপজেলা ভূমি অফিসে কামরুজ্জামান গাজী ও বাঘারপাড়া উপজেলা ভূমি অফিসে শরিফুল ইসলাম। নিয়োগের পর থেকে যশোর জেলার ৮ উপজেলা ভূমি অফিসের ৮জন নৈশ প্রহরী তাদের বেতন পেয়ে পরিবার-পরিজন নিয়ে সুখে-শান্তিতে জীবন-যাপন করে আসছিলেন। পরবর্তীতে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের অর্থমন্ত্রনালয়ের অর্থ বিভাগের ব্যায় ব্যবস্থাপনা ৩ শাখার পরিপত্র অনুযায়ী আউটসোর্সিং প্রত্রিয়ার সেবাগ্রহণ নীতিমালা ২০০৮ অনুযায়ী সেবাক্রয়ের ক্ষেত্রে সেবামূল্য নির্ধারণ আউটসোর্সিং শর্তাবলী সাপেক্ষে জনপ্রতি ১৭ হাজার ৬ শত ৩০ টাকা নির্ধারণ করা হলেও তা আদৌ কার্যকরী হয়নি।
সকাল ৯ টায় জাতীয় পতাকা উত্তোলন করে বিকাল ৫ টায় জাতীয় পতাকা নামানোর মাধ্যমে উপজেলা ভূমি অফিসের কোটি কোটি টাকার সম্পদ এই নৈশ প্রহরীরা রাত জেগে পাহারা দেয়। সকল জাতীয় দিবসেও তাদের কোন ছুটি থাকে না। বিগত ১৯ মাস দায়িত্ব পালন করার পরও নৈশ প্রহরীরা তাদের বেতন না পেয়ে মানবেতর জীবন-যাপন করছেন। ১৯ মাস যাবৎ তারা ঘরভাড়ার টাকা, বিদ্যুৎ বিলের টাকা, চালের দোকানের টাকা, মুদি দোকানের টাকা পরিশোধ করতে না পারায় বর্তমানে তাদের গাঢাকা দিতে হচ্ছে। এব্যাপারে ভুক্তোভোগি যশোর জেলার ৮ উপজেলা ভূমি অফিসের ৮জন নৈশ প্রহরী তাদের বিগত ১৯ মাসের বেতন পাওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

ঠাকুরগাঁওএ সুগার মিলে শ্রমিকদের মানববন্ধন

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি : ঠাকুরগাঁও সুগার মিলে কর্মচারীদের ৩ মাসের বকেয়া বেতন ও অবসরপ্রাপ্ত কর্মচারীদের অবসরজনিত বকেয়া পাওনার দাবীতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

চিনি কল শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়ন ঠাকুরগাঁও জেলা শাখার আয়োজনে রোববার দুপুরে সুগার মিল চত্তরে এ মানববন্ধনটি অনুষ্ঠিত হয়।

ঠাকুরগাঁও চিনি কল শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি মোঃ উজ্জ্বল হোসেন এর সভাপতিত্বে মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক এনায়েত আলী উলুব্বী, সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ খালেকুজ্জামান রেজা। এসময় মিলের অন্যান্য কর্মচারীরা মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন।

বক্তারা তাদের ৩ মাসের বকেয়া বেতন, অবসরপ্রাপ্ত শ্রমিকদের পেনসন ভাতা ও আখ চাষিদের বকেয়া পাওনা টাকা পরিশোধ সহ চিনি কলে  কর্মরত অসহায় শ্রমিক ও দৈনিক হাজিরা শ্রমিকদের এানের দাবি জানান । তা না হলে কঠর আন্দলনের নামবে বলে জানান তারা।

ঠাকুরগাঁও সুগার মিলের ব্যাবস্থাপনা পরিচালক শাখাওয়াত হোসেন জানান, অবসরপ্রাপ্ত শ্রমিকরা পেনসন ভাতা ও ৩ মাসের বেতন বন্ধ থাকায় তারা মানববন্ধন করেছে। এছাড়াও অবসরপ্রাপ্তদের প্রায় ২ কোটি টাকা বকেয়া রয়েছে । তাদের বকেয়া পাওনা দ্রুত পরিশোধের জন্য আমরা চেষ্টা করছি।

খুলনায় জীবাণুনাশক স্প্রে করছে জনউদ্যোগ

খুলনা অফিস : খুলনা মহানগরীর রাস্তাঘাটে এবং জরসমাগম এলাকায় করোনা ভাইরাসমুক্ত জীবাণুনাশক স্প্রে করছে জনউদ্যোগ,খুলনার স্বোচ্ছাসেবকরা।
আজ রবিবার বেরা ১১টায় শহীদ মিলন চত্বরে আইইডি’র সহযোগিতায় জনউদ্যোগ, খুলনার আয়োজনে করোনা ভাইরাসমুক্ত জীবাণুনাশক স্প্রে ছিটানোর সপ্তাহব্যাপী কর্মসূচির শুভ সূচনা হয়েছে। কর্মসূচি উদ্বোধন করেন বিএম এ’র সভাপতি ডা: বাহারুল আলম। সভায় সভাপতিত্ব করেন জনউদ্যোগ নারী সেলের আহবায়ক এ্যাড: শামীমা সুলতানা শীলু। অন্যনান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন খুলনা নাগরিক সমাজের আহবায়ক এ্যাড: আ ফ ম মহসীন, নূরুন নাহার হীরা, এ্যাড: আ ফ ম মুস্তাকুজ্জামান মুক্তা , সঞ্জয় মল্লিক, রিপন বিশ্বাস , অনিমেশ চক্রবর্ত্তী, মো: বাদশা , শেখ জুয়েল, অভিজিৎ সাহা প্রমুখ। সভা পরিচালনা করেন জনউদ্যোগ,খুলনা সদস্য সচিব মহেন্দ্রনাথ সেন। সভায় বক্তারা বলেন, করোনা ভাইরাস থেকে মুক্ত হতে হলে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। অযাথা ঘরের বাইরের থাকা যাবে না। সাবান দিয়ে বারবার হাত ধুতে হবে। করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ দেখলে ডাক্তারের পরামশ নিতে হবে। করোনা এমন কোন ভয় পাওয়ার রোগ নয়। করোনাকে জয় করার মত শক্তি আমাদের আছে। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে পাররে করোনা ভাইরাসের যে চেইন আছে তা ভেঙ্গে ফেরা যাবেনা। অযাথা ভয় পাওয়া যাবে না। মার্স্ক ব্যবহার করতে হবে। পরিবেশের সাথে আমরা যেন বিরুপ ব্যবহার না করি তার দিকে নজর রাখতে হবে হবে। মনে রাখতে হবে পরিবেশকে আমরা যদি খেপিয়ে তুলি পরিবেশ আমাদের সাথে বিরুপ ব্যবহার করবে। সভায় কমহীন মানুষের জন্য খাদ্য সহায়তা চালিয়ে যাওয়ার জন্য সরকারের পাশাপাশি বেসরকারী উদ্যোগ বাড়ানো আহবান জানান।স্বেচ্ছাসেবকদের উদ্যেশে বক্তারা বলেন, স্বেচ্ছায় শ্রম দেওয়ার প্রবণতা আগেও ছিল বর্তমানেও আছে। অঅপনারা জাতির ভবিষ্যৎ আপনাদের দিকে জাতি চেয়ে আছে এই দূর্যোগ মূহুতে সকলকে এক সাথে কাজ করতে হবে। আমাদের বিশ্বাস আমরা এই মহামারিকে জয় করতে পারবো। অতীত অভিজ্ঞতা আমাদের তাই বলছে।

খুলনার চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীদের পিপিই দিলেন কোরিয়া প্রবাসীরা

খুলনা অফিস : খুলনার করোনা হাসপাতালে কর্মরত ফ্রন্টলাইনযোদ্ধা চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীদের জন্য পিপিই উপহার দিলো কোরিয়াস্থ বাংলাদেশ প্রবাসীদের সংগঠন ‘ইপিএস বাংলা কমিউনিটি ইন কোরিয়া’। আজ (রোববার) দুপুরে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেনের মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট চিকিৎসকদের হাতে পিপিইগুলো তুলে দেয়া হয়।

জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেন এই উদ্যোগের সাথে সম্পৃক্তদের স্বাগত জানিয়ে এই ক্রান্তিলগ্নে দেশের সেবায় প্রবাসীদের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকার প্রশংসা করেন। তিনি খুলনার সিভিল সার্জন ডা. সুজাত আহমেদ, খুলনা মেডিকেল কলেজের উপাধ্যক্ষ ডা. মেহেদী নেওয়াজ এবং ডাক্তার শৈলেন্দ্র নাথ বিশ্বাসের হাতে পিপিইগুলো তুলে দেন।

এ সময় খুলনা আঞ্চলিক তথ্য অফিসের উপপ্রধান তথ্য অফিসার ম. জাভেদ ইকবাল, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) জিয়াউর রহমান, ডা. সাদিয়া মনোয়ারা, খুলনা প্রেসক্লাবের সভাপতি এসএম নজরুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক মামুন রেজা, খুলনা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি মুন্সি মাহাবুব আলম সোহাগ ও স্বাধীনতা সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি মকবুল হোসেন মিন্টু উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে সংগঠনের নেতা কোরিয়া প্রবাসী পুষ্পক কুমার ধর ও শান্ত শেখের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় পিপিইগুলো খুলনা টিভি রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি মল্লিক সুধাংশুর কাছে পৌঁছালে তাঁর অনুরোধে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে পিপিইগুলো চিকিৎসকদের হাতে তুলে দেয়ার এই উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়।