ফুলতলায় লকডাউনে কর্মহীন ও অসহায়দের মাঝে প্রদানমন্ত্রীর ত্রান সামগ্রী বিতরণ করলেন খুলনা জেলা প্রশাসক

ফুলতলা (খুলনা) প্রতিনিধিঃ খুলনার ফুলতলা উপজেলায় করোনকালীন লকডাউনে কর্মহীন, দুস্থ ও অসহায় পরিবারের জন্য প্রদানমন্ত্রীর ত্রান সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠান সোমবার সকাল ১০টায় উপজেলা পরিষদ চত্বরে অনুষ্ঠিত হয়। ফুলতলা উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে এবং দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রান মন্ত্রনালয়ের সহযোগিতায় ইউএনও সাদিয়া আফরিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন খুলনা জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেন। বিশেষ অতিথি ছিলেন স্থানীয় সরকার খুলনার উপ-পরিচালক মোঃ ইকবাল হোসেন, অতিরিক্তি জেলা প্রশাসক (ভূমি অধিগ্রহণ) মোঃ মারুফুল আলম, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ¦ শেখ আকরাম হোসেন।

সহকারী কমিশনার (ভূমি) রুলী  বিশ্বাসের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ওসি মাহতাব উদ্দিন, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আলহাজ¦ কে এম জিয়া হাসান তুহিন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ফারজানা ফেরদৌস নিশা, ইউপি চেয়ারম্যান শেখ মনিরুল ইসলাম, শরীফ মোহাম্মদ ভুইয়া শিপলু, মাওঃ সাইফুল হাসান খান, শেখ আবুল বাশার, কৃষি কর্মকর্তা মোঃ ইনসাদ ইবনে আমিন, খাদ্য কর্মকর্তা মোঃ আনোয়ার হোসেন, প্রেসক্লাব সভাপতি তাপস কুমার বিশ্বাস, উপজেলা প্রেসক্লাব সভাপতি শামসুল আলম খোকন, সহকারী অধ্যাপক মোঃ নেছার উদ্দিন, আইসিটি কর্মকর্তা পুষ্পেন্দু দাশ, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ রফিকুল ইসলাম প্রমুখ। অনুষ্ঠানে উপজেলার ৪ ইউনিয়নের মোট ৬শ’ কর্মহীন, দুস্থ ও অসহায় পরিবারের মাঝে প্রধানমন্ত্রী প্রদত্ত ত্রান সামগ্রী বিতরণ করা হয়। ত্রান সামগ্রীর মধ্যে ছিল ৭ কেজি চাল, ১ কেজি ডাল, ১ কেজি আলু, দেড় কেজি সবজি ও ১ কেজি মাছ। এ সময় স্থানীয় সরকার অধিদপ্তর খুলনার পক্ষ থেকে উপজেলার ৪ ইউনিয়নের ৩১ গ্রাম পুলিশকে ১টি করে বাইসাইকেল ও ইউনিফর্ম প্রদান করা হয়। পরে অতিথিবৃন্দ ফুলতলার গাড়াখোলা মুক্তেশ্বরী এলাকায় ভূমি ও গৃহহীনদের জন্য সরকারের দেয়া নির্মানাধীন গৃহ পরিদর্শন করেন।

ফুলতলায় সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও বিএনপি নেতা সরদার আলাউদ্দিন মিঠুর চতুর্থ শাহাদাৎ বার্ষিকী মঙ্গলবার

ফুলতলা (খুলনা) প্রতিনিধিঃ খুলনা জেলা বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ও ফুলতলা উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান সরদার আলাউদ্দিন মিঠুর চতুর্থ শাহাদাৎ বার্ষিকী আগামীকাল (মঙ্গলবার)। এ উপলক্ষে উপজেলা বিএনপির পক্ষ থেকে দিনব্যাপী ব্যাপক কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। ঘোষিত কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে দামোদর ইউনিয়নের এতিমখানা সমূহে ও স্থানীয় দলীয় কার্যালয়ে কোরআনখানি, বাদ আছর নতুনহাটস্থ দলীয় অস্থায়ী কার্যালয়ে আলোচনা সভা, মিলাদ ও দোয়া মাহফিল। সাবেক এমপি ও উপজেলা বিএনপির আহবায়ক ডাঃ গাজী আঃ হকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিতব্য আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি থাকবেন বিএনপির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও খুলনা মহানগর সভাপতি নজরুল ইসলাম মঞ্জু।

প্রধান বক্তা খুলনা জেলা বিএনপির সভাপতি এ্যাড. শফিকুল আলম মনা। বিশেষ অতিথি থাকবেন সাবেক মেয়র ও খুলনা মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা মনিরুজ্জামান মনি, জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আলহাজ¦ আমির এজাজ খান। উপজেলা বিএনপির যুগ্ন আহবায়ক ও প্রায়ত নেতা সরদার আলাউদ্দিন মিঠুর ভাই মোঃ সেলিম সরদার স্বাক্ষরিত প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ কর্মসূচি জানানো হয়। প্রসঙ্গতঃ ২০১৭ সালের ২৫ মে রাত সাড়ে ৯টায় তরুণ উদীয়মান নেতা ও জনপ্রিয় জনপ্রতিনিধি সরদার আলাউদ্দিন মিঠু ফুলতলা নতুনহাটস্থ নিজ কার্যালয়ে অস্ত্রধারী দুর্বৃত্তদের গুলিতে নির্মমভাবে নিহত হন।

 

ঝুঁকিপূর্ণ ৮টি অফিস ফরেস্ট অফিস বন্ধ ঘোষণা

মোংলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধি : ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের তান্ডবে জানমালের ক্ষয়ক্ষতি এড়াতেই পূর্ব সুন্দরবনের শরণখোলা ও চাঁদপাই রেঞ্চের আওতাধীন ৮টি অধিক ঝুঁকিপূর্ণ ফরেস্ট অফিস বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। ওই সকল অফিসে কর্মরত কর্মকর্তা-কর্মচারীদেরকে (৫০ জন) নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। বন্ধ করে দেয়া ওই ৮টি অফিসের মধ্যে রয়েছে শরণখোলা রেঞ্জের, দুবলা, কোকিলমনি, শ্যালা, কচিখালী ও চরখালী টহলফাঁড়ি। আর চাঁদপাই রেঞ্জের মধ্যে রয়েছে, তাম্বুলবুনিয়া, জোংাড়া ও ঝাপসি টহল ফাঁড়ি।
পূর্ব সুন্দরবনের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএফও) মুহাম্মদ বেলায়েত হোসেন বলেন, বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় ইয়াস আগামী ২৬ মে (বুধবার) বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকায় আঘাত হানার সম্ভাবনা রয়েছে। তাই বিষয়টি মাথায় রেখে ইতিমধ্যেই সুন্দরবনের শরণখোলা ও চাঁদপাই রেঞ্জের ৮টি টহল ফাঁড়ি বন্ধের পাশাপাশি সেখানকার লোকজনকে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। এছাড়া সুন্দরবনের জেলে, বাওয়ালী ও মৌয়ালদের নিরাপদে সরে যেতে বলা হয়েছে। তিনি আরো বলেন, প্রতিবারের মত এবারও সুন্দরবন বুক পেতে উপকূলবাসীদের রক্ষা করবেন ইনশাল্লাহ।

কুকুরের আক্রমনে প্রাণ গেল হরিণের

বাগেরহাট প্রতিনিধি : বাগেরহাটের শরণখোলায় সুন্দরবন সংলগ্ন লোকালয়ে কুকুরের আক্রমনে একটি হরিণের মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। সোমবার (২৪ মে) সকালে উপজেলার ধানসাগর ইউনিয়নের পশ্চিম রাজাপুর এলাকার পুলিশ ফাঁড়ির পাশে একটি মাঠে হরিণটি ঢুকে পড়ে। এসময় স্থানীয় কয়েকটি কুকুরের আক্রমনে মারা যায় হরিণটি। পরে খবর পেয়ে হরিণের মরদেহ উদ্ধার করেছে বন বিভাগ। স্থানীয় ইউপি সদস্য মো. হুমায়ুন করিম সুমন জানান, গ্রামবাসীরা হরিনটিকে মাঠের মধ্যে পড়ে থাকতে দেখে বন-বিভাগকে খবর দেয়। পরে বনবিভাগের কর্মকর্তারা এসে হরিণের মরদেহ উদ্ধার করেণ। সুন্দরবন পূর্ব বন বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএফও) মোহাম্মাদ বেলায়েত হোসেন বলেন, পথভুলে একটি হরিণ লোকালয়ে প্রবেশ করে। এসময় স্থানীয় ১০-১২টি কুকুর হরিণটিকে আক্রমন করে। এতে হরিণটি মারা যায়। মারা যাওয়া হরিণটির ওজন প্রায় ২০ কেজির মত। শরীরের পিছনে কয়েক জায়গায় কামড়ের চিহ্ন রয়েছে। হরিণের মরদেহটি ধানসাগর ষ্টেশন সংলগ্ন বনে মাটি চাপা দেওয়া হয়েছে।

বাগেরহাটে ট্রাকের ধাক্কায় সেনা সদস্য নিহত

বাগেরহাট প্রতিনিধি : বাগেরহাটের চিতলমারীতে ট্রাকের ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহী অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্য ইলিয়াস শেখ (৫৫) নিহত হয়েছেন। সোমবার (২৪ মে) দুপুরে বাগেরহাট-পাটগাতী সড়কের চিতলমারী উপজেলার বড়বাগ এলাকায় পাটগাতিগামী একটি ট্রাক পিছন থেকে ওই সেনা সদস্যকে ধাক্কা দিলে এই দূর্ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় পুলিশ ঘাতক ট্রাকটিকে আটক করেছে। তবে চালক ও সহযোগি পালাতে সক্ষম হয়েছেন। নিহত ইলিয়াস শেখ চিতলমারী উপজেলার পোড়ানালুয়া গ্রামের বন্দর শেখের ছেলে। তিনি সেনাবাহিনীর ল্যান্সকর্পোরাল হিসেবে অবসর গ্রহন করেছেন। চিতলমারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ এইচ এম কামরুজ্জামান খান বলেন, ট্রাকের ধাক্কায় ঘটনাস্থলেই অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্য ইলিয়াস শেখ (৫৫) নিহত হয়েছেন। আমরা নিহতের মরদেহ উদ্ধার করেছি।আমরা ঘাতক ট্রাকটিকে আটক করেছি।

চট্টগ্রাম ডিএনসি’র অভিযানে ১২ মাদক সেবী আটক

নিজস্ব প্রতিবেদক : চট্টগ্রাম মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের (ডিএনসি)’র পৃথক অভিযান চালিয়ে ৬ শ গ্রাম গাজাসহ ১২ মাদক সেবীকে আটক করেছেন। আটককতৃরা হচ্ছে মোঃ ওমর ফারুক  (২৪), মোঃ সাইদুল ইসলাম(২৫), মোঃ শুভ (২১), মোঃ সুজন (২১), মোঃ জহির  (৩৫), মোঃ ঈমান হাসান  (৪২), মোঃ মঈন উদ্দিন  (১৯), আব্দুর রাজ্জাক  (৩৮), মোঃ রকি (২১), মোঃ ইমরান হোসেন  (১৮), মোঃ রাশেদ আলম(৩০) এবং মোঃ সোহেল (৩০) । রোববার (২৩ মে) চট্টগ্রামে বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদেরকে আটক করা হয়। পরে ভ্রম্যমান আদালতের মাধ্যমে তাদেরকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা ও অর্থদন্ড প্রদান করেন। ভ্রম্যমান আদালত পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ মোজাম্মেল হক চৌধুরী।
চট্টগ্রাম মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের (ডিএনসি)’র সূত্র মতে, টাস্কফোর্সের অভিযানে সকাল  সাড়ে ১১টা  হতে চট্টগ্রাম  মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের সার্বিক তত্তাবধানে  ও  বিজ্ঞ  নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ মোজাম্মেল হক চৌধুরী এর নেতৃত্বে চট্টগ্রাম মেট্রো কার্যালয়ের সকল সার্কেল ও সহকারী পরিচালক মোঃ এমদাদুল হক এর  সমন্বয়ে মহানগরীর লালদিঘী, কাটাপাহাড়,আমতলা,রেলস্টেশন, কদমতলী, কোতোয়ালি, ইস্পাহানি কলোনি  এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে ১২ জন মাদক সেবন কারীকে  ৬০০গ্রাম গাঁজা ও সেবনের উপকরণসহ গ্রেফতার করা করেন। বিজ্ঞ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রট মোঃ মোজাম্মেল হক চৌধুরী   ধৃত আসামীদেরকে গ্রেফতার করে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন ২০১৮ অনুযায়ী ধৃত আসামীদের বিরুদ্ধে  বিভিন্ন মেয়াদে কারাদন্ড ও অর্থ দন্ড প্রদান করেন।

ডুমুরিয়ায় গণ-পিটুনিতে চোরের মৃত্যু

ডুমুরিয়া : ডুমুরিয়া উপজেলার টিপনা এলাকায় আলোচিত হাফিজুর রহমান গাজী (৪৫) গণ-পিটুনিতে মারা গেছে। সোমবার ভোরে ডুমুরিয়া হাসপাতালে নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। সে টিপনা গ্রামের আলতাপ গাজীর ছেলে। তার বিরুদ্ধে ডুমুরিয়াসহ বিভিন্ন থানায় চুরির অভিযোগ রয়েছে। পুলিশ ও স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে, উপজেলার টিপনা গ্রামের আলতাপ গাজীর ছেলে হাফিজুর রহমান গাজীর বিরুদ্ধে ঘেরের মাছ ও ভ্যানগাড়ীসহ রয়েছে নানান চুরির অভিযোগ। রোববার রাতেও সে প্রতিবেশী আজিজ গাজীর ভ্যানগাড়ী চুরি করে পালানোর সময় উপজেলার ধামালিয়া ইউনিয়নের বরুনা এলাকায় জনতার হাতে ধরা পড়ে। সেখানে ফেলে গণ-ধোলাই’র পরে তাকে টিপনা এলাকায় রেখে যায়। পরে স্থানীয় ইউপি সদস্য ও গ্রাম পুলিশের সহায়তায় তাকে ডুমুরিয়া হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার মৃত বলে ঘোষণা করেন। এ বিষয়ে ডুমুরিয়া থানা অফিসার ইনচার্জ মোঃ ওবাইদুর রহমান বলেন, পিটিয়ে মারার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে হাফিজুর গাজী নামক একজনের লাশ উদ্ধার ও লাশের সুরোতহাল রির্পোট শেষে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। তবে স্থানীয়দের নিকট থেকে তার বিরুদ্ধে নানা ধরনের চুরির অভিযোগ পাওয়া গেছে। তারপরও বিষয়টি খতিয়ে দেখে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

রূপসায় চোরাই ছাগলসহ আটক ৫

বিজ্ঞপ্তি : জেলা ডিবি পুলিশের বিশেষ অভিযানে গত রবিবার বিকেলে রূপসা থানা এলাকা থেকে ছাগলসহ ৫ জন পেশাদার চোর গ্রেফতার হয়েছে। জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মাহবুব হাসান মহোদয়ের দিক-নির্দেশনায় জেলা গোয়েন্দা শাখা, খুলনার ইনচার্জ উজ্জ্বল কুমার দত্ত এর নেতৃত্বে এসআই (নিঃ)/ইন্দ্রজিৎ মল্লিক ও এসআই (নিঃ) বিষ্ণুপদ হালদার সংগীয় অফিসার ও ফোর্সসহ একটি টীম রূপসা থানা এলাকায় মাদক উদ্ধারসহ বিবিধ উদ্ধার অভিযান পরিচালনা করেন। অভিযান পরিচালনাকালে গত রবিবার বিকাল ৪টার দিকে রূপসা থানাধীন রূপসা বাসস্ট্যান্ড হইতে তীলক (কুদিরবটতলা) যাওয়ার সময় রূপসা থানাধীন ইলাইপুর সাকিনস্থ দলিলউদ্দীন সড়কে জনৈক মুজিবর শেখ এর মুদি দোকানের সামনে পাঁকা রাস্তার উপর অনেক লোকজন দেখতে পান। বিষয়টি সন্দেহ হওয়ায় সেখানে দাঁড়ান এবং ০২ টি মাদী ছাগল ও ০৫ জন পেয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করেন। জিজ্ঞাসাবাদে তারা তাদের নাম ১। মোঃ শহিদুল মীর্জা (২৮), পিতা-মৃত সুলতান মীর্জা, সাং- বাদুরগাছা (কৈয়া বাজার), থানা-ডুমুরিয়া, ২। মোঃ সাজু ব্যাপারী (২৫), পিতা-মোঃ আলহাজ¦ ব্যাপারী, সাং- বাগমারা (মিঠু মোল্যার বাড়ীর ভাড়াটিয়া) শ^শুর সলেমান শেখ (রূপসা বাসষ্ট্যান্ড ফাড়ীর পিছনে বাড়ী), থানা-রূপসা, ৩। মোঃ বাবুল শেখ (৩৫), পিতা- মোঃ আবুল শেখ, সাং- বাদুরগাছা (মুসলমানপাড়া), থানা-ডুমুরিয়া, সর্ব জেলা-খুলনা, ৪। মোঃ রাসেল শেখ (২৬), পিতা-মোঃ আঃ রহিম শেখ, সাং- দোলখোলা (মতলেবের মোড়, আবুর বাড়ীর ভাড়াটিয়া), থানা-খুলনা সদর, কেএমপি, খুলনা, ৫। মোঃ জলিল মোল্যা (৬০), পিতা-মৃত কাশেম মোল্যা, সাং-বিষ্ণুপুর (কলাবাড়ীয়া), থানা- বাগেরহাট সদর, জেলা-বাগেরহাট বলে জানায় এবং তারা ২ টি মাদী ছাগল সম্পর্কে এলোমেলো ও অসংলগ্ন তথ্য দিতে থাকে। জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে তারা উক্ত ছাগল ২টি পিরোজপুর জেলার ইন্দুরকান্দি থানার গোশেরহাট নামক এলাকা হতে চুরি করিয়া নিয়া এসেছে মর্মে জানায়। উক্ত ঘটনায় উপরোক্ত আসামীদের বিরুদ্ধে এসআই (নিঃ) বিষ্ণুপদ হালদার, জেলা ডিবি, খুলনা বাদী হয়ে রূপসা থানার মামলা নং-২৩, তারিখ- ২৪/০৫/২০২১ খ্রিঃ, ধারা-৩৭৯/৪১১ পেনাল কোড দায়ের করেন। বর্নিত আসামীরা পেশাদার চোর। আসামী মোঃ শহিদুল গাজীর নামে ০৩ টি চুরির মামলা, আসামী জলিল মোল্যার নামে ০৩ টি চুরির মামলাসহ সর্বমোট ০৮ টি মামলা, আসামি সাজু ব্যাপারীর নামে ০২ টি চুরির মামলা এবং আসামী রাসেল শেখ এর নামে ০১ টি চুরির মামলা রয়েছে। ০৫ জন আসামীকে বিধি মোতাবেক বিজ্ঞ আদালতে বিচারের নিমিত্তে সোপর্দ করা হয়েছে।

চট্টগ্রাম নগরীতে ১২ মাদকসেবিকে কারাদণ্ড

চট্টগ্রাম ব্যুরো: চট্টগ্রাম নগরীতে ভবঘুরে মাদকসেবিদের উৎপাতে অসহায় নগরবাসী। সকাল-দুপুর, সন্ধ্যা কিংবা রাতে কেড়ে নিচ্ছে সাধারণ মানুষের সর্বস্ব। মাদকের টাকা জোগাড় করতে বেপরোয়া হয়ে উঠা চক্রের লাগাম টানতে মাঠে নেমেছে জেলা প্রশাসন।
রোববার (২৩ মে) নগরের ইস্পাহানি মোড় ও বটতলী রেল স্টেশন এলাকায় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. মোজাম্মেল হক চৌধুরীর নেতৃত্বে অভিযান চালিয়ে ১২ মাদকসেবিকে গ্রেপ্তার করে জেলে পাঠালো জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালত।
গ্রেপ্তার ১২ মাদকসেবি হলো- মো. ওমর ফারুক (২৪), সাইদুর রহমান (২৫), মো. শুভ (২১), মো. সুজন (২১), মো. জহির (৩৫), মো. ইমাম হোসেন (৪২), মো. মীন উদ্দিন (১৯), আব্দুর রাজ্জাক (৩৮), মো. রকি (২১), মো. ইমরান হোসেন (১৮), মো. রাশেদ আলম (৩০), মো. সোহেল (২০)।
জেলা প্রশাসকের স্টাফ অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. ওমর ফারুক বলেন, নগরে মাদকসেবিদের উৎপাত কমাতে অভিযান চালিয়ে ১২ মাদকসেবিকে আটক করে জেলে পাঠানো হয়েছে। প্রত্যেককে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে ৭ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড ও ১০০ টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে।