দৈনিক দেশ সংযোগ পত্রিকার সংবাদ

কুতুপালং ক্যাম্পে সংঘর্ষ : অস্ত্রসহ ১৬ রোহিঙ্গা আটক

দেশ প্রতিবেদক, কক্সবাজার :

কক্সবাজারের কুতুপালং ক্যাম্পে সংঘর্ষের ঘটনায় অস্ত্রসহ ১৬ রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীকে গ্রেপ্তার করেছে কক্সবাজারে এপিবিএন-১৬। শনিবার (১০ অক্টোবর) সকালে উখিয়ার বালুখালী চেকপোস্ট ও সোনার পাড়া চেকপোস্টে পৃথক অভিযানে এসব রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের গ্রেপ্তার করা হয়। কক্সবাজারে এপিবিএন-১৬ ব্যাটালিয়ানের অধিনায়ক (পুলিশ সুপার) মো. হেমায়েতুর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা কুতুপালং ক্যাম্পে রোহিঙ্গাদের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় জড়িত ছিল। তারা গ্রেপ্তারের ভয়ে ক্যাম্প ছেড়ে পালিয়ে যাচ্ছিল। হেমায়েতুর বলেন, ‘শনিবার সকালে এপিবিএন এর উখিয়ার বালুখালী চেকপোস্টের সদস্যরা তল্লাশী করে ক্যাম্প থেকে পালানোর সময় চারটি রামদাসহ চার রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীকে গ্রেপ্তার করা হয়। সম্প্রতি কুতুপালং ক্যাম্পে সংঘটিত দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় তারা জড়িত ছিল।’ গ্রেপ্তাররা হলো- জিয়াউর রহমান (৩০), মো. উসমান (৩০), সৈয়দ উল্লাহ (২৮) ও মো. রফিক (৩০)। তারা উখিয়ার বালুখালী ক্যাম্পের বিভিন্ন ব্লকের বাসিন্দা। এদিকে শনিবার সকালে উখিয়ার সোনার পাড়া চেকপোস্টে তল্লাশিকালে ১২ জন রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীকে গ্রেপ্তার করা হয় বলে জানান কক্সবাজারে এপিবিএন-১৬ ব্যাটালিয়ানের অধিনায়ক (এসপি) মো. হেমায়েতুর রহমান। গ্রেপ্তাররা হলো- এজাজুল হক (৬০), রহমত উল্লাহ (২৯), সোনা মিয়া (২১), রশিদ উল্লাহ (১৫), ইয়াচের (২১), উসমান (২১), ইসমাঈল (১৬), কবির আহম্মদ (৪০), সুলতান আহম্মেদ (৪০), আইয়ুব সালাম (২৫), আবুল কাশেম (১৮) ও মো. রফিক উল্লাহ (৩০)। গ্রেপ্তার এসব রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের সংশ্লিষ্ট মামলায় আসামি দেখিয়ে উখিয়া থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে বলে জানান এপিবিএন-১৬ ব্যাটালিয়ানের এ অধিনায়ক হেমায়েতুর।

দেশে করোনায় মৃত্যু সাড়ে ৫ হাজার

ঢাকা অফিস :
গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরও ২৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মোট মৃত্যু হয়েছে পাঁচ হাজার ৫০০ জনের। করোনায় প্রথম সংক্রমিত হওয়ার ২১৭তম দিনে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ৫৫০০ জনে। শনিবার (১০ অক্টোবর) বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। এতে বলা হয়, ঢাকা সিটিসহ দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ও বাড়িতে উপসর্গ বিহীন রোগীসহ গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন এক হাজার ৪৫৩ জন। এ পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়েছেন দুই লাখ ৮১ হাজার ৩৬৫ জন। সারাদেশে সরকারি ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ১০৯টি ল্যাবে নমুনা সংগ্রহ ও পরীক্ষা হচ্ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা সংগ্রহ হয়েছে ১০ হাজার ৬৭৩টি। আগের নমুনাসহ মোট নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ১০ হাজার ৮৫৯টি। এ পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ২০ লাখ ৬১ হাজার ৫২৮টি। এতে আরও বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা পরীক্ষার হার ১১ দশমিক শূন্য ৮ শতাংশ। এ পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ১৮ দশমিক ২৯ শতাংশ এবং শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৭৭ দশমিক ২৭ এবং শনাক্ত বিবেচনায় মৃত্যুর হার এক দশমিক ৪৬ শতাংশ। বিজ্ঞপ্তিতে নাসিমা সুলতানা জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত ২৩ জনের মধ্যে ১৫ জন পুরুষ ও নারী আট জন। এদের মধ্যে রয়েছেন ঢাকা বিভাগে ১৯ জন, চট্টগ্রাম বিভাগে চার জন। এদের মধ্যে হাসপাতালেই মারা গেছেন ২৩ জন। মৃতদের বয়স বিশ্লেষণে দেখা গেছে, ৬০ বছরের ঊর্ধ্বে ১৬ জন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে পাঁচ জন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে দুই জন রয়েছেন। গত ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশনে এসেছেন ১০২ জন ও আইসোলেশন থেকে ছাড় পেয়েছেন ১৬৫ জন। এ পর্যন্ত আইসোলেশনে এসেছেন ৮৩ হাজার ৩৯ জন। আইসোলেশন থেকে ছাড়পত্র নিয়েছেন ৬৯ হাজার ৭৯৭ জন। বর্তমানে আইসোলেশনে আছেন ১৩ হাজার ২৪২ জন বলেও বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য বিশ্লেষণে দেখা যায়, গত ১৮ মার্চ দেশে করোনায় সংক্রমিত হয়ে প্রথম জনের মৃত্যু হয়। এরপর গত ২০ এপ্রিল মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১০২ জনে দাঁড়ায়। গত ২৫ মে একদিনে ২১ জনের মৃত্যু হলে মৃতের সংখ্যা ৫০০ অতিক্রম করে। প্রতিদিনই মৃত্যুর সংখ্যা বাড়তে থাকায় গত ১০ জুন মৃত্যুর সেই সংখ্যা এক হাজার ১২ জনে দাঁড়ায়। গত ২২ জুন একদিনে ৩৮ জনের মৃত্যু হয়ে মোট মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়ায় এক হাজার ৫০২ জনে। এরপরে ৫ জুলাই একদিনে ৫৫ জনের মৃত্যু হয়ে মোট মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়ায় দুই হাজার ৫২ জনে। এর ১২ দিন পরে ১৭ জুলাই আরও ৫১ জনের মৃত্যু হয়ে মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়ায় দুই হাজার ৫৪৭ জনে। গত ২৮ জুলাই একদিনে দেশে করোনায় আরও ৩৫ জনের মৃত্যু হয়। এ নিয়ে মোট মৃত্যু সংখ্যা দাঁড়ায় তিন হাজার জনে। গত ২৫ আগস্ট পর্যন্ত অর্থাৎ গত ২৮ দিনে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে এক হাজারের অধিক। জানা যায়, দেশে করোনায় মোট মৃত পাঁচ হাজার ৫০০ জনের মধ্যে চার হাজার ২৩৭ জন পুরুষ ও নারী এক হাজার ২৬৩ জন। মৃত্যুদের বয়স বিশ্লেষণে দেখা যায়, ৬০ বছরের বেশি বয়সীদের মৃত্যু সবচেয়ে বেশি এর সংখ্যা দুই হাজার ৮২৪ জন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে এক হাজার ৪৭৭ জন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে ৬৯৮ জন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে ৩০৬ জন, ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে ১২৪ জন, ১১ থেকে ২০ বছরের মধ্যে ৪৫ জন আর শূন্য থেকে ১০ বছরের মধ্যে রয়েছেন ২৬ জন। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য মতে, ঢাকা বিভাগে সবচেয়ে বেশি ৫০ দশমিক ৭৩ শতাংশ অর্থাৎ দুই হাজার ৭৯০ জন। চট্টগ্রাম বিভাগে ২০ দশমিক ২০ শতাংশ অর্থাৎ এক হাজার ১১১ জন। রাজশাহী বিভাগে ছয় দশমিক ৫৩ শতাংশ অর্থাৎ ৩৫৯ জন। খুলনা বিভাগে আট দশমিক ১৩ শতাংশ অর্থাৎ ৪৪৭ জন। বরিশাল বিভাগে তিন দশমিক ৫১ শতাংশ অর্থাৎ ১৯৩ জন। সিলেট বিভাগে চার দশমিক ২৭ শতাংশ অর্থাৎ ২৩৫ জন। রংপুর বিভাগে চার দশমিক ৫৫ শতাংশ অর্থাৎ ২৫০ জন। ময়মনসিংহ বিভাগে দুই দশমিক শূন্য ৯ শতাংশ রয়েছেন ১১৫ জন।

ধর্ষকের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ডই হবে : প্রতিমন্ত্রী

ঢাকা অফিস :
মহিলা ও শিশুবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা বলেছেন, ধর্ষণ প্রতিরোধ ও প্রতিকারে সরকার তৎপর এবং ধর্ষকের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ডই হবে। তিনি বলে, “নীতি-নৈতিকতা বিবর্জিতরাই ধর্ষণের সঙ্গে জড়িত। ধর্ষণ প্রতিরোধ ও প্রতিকারে সরকার তৎপর। তবে পরিবারেরও দায়িত্ব রয়েছে। নিজেদের শিশুদের দিকে খেয়াল রাখতে হবে। পরিবার থেকেই নৈতিক শিক্ষা দিতে হবে। ধর্ষকেরা পরিবারের বাইরে নয়। এরাও সমাজের অংশ। কিন্তু ধর্ষকের পরিচয় শুধুই ধর্ষক। সে যেই হোক। এদের সমাজের সর্বস্তর থেকে বর্জন করেত হবে। ধর্ষণের শাস্তি মৃতুদণ্ড দেওয়ার উদ্যোগ প্রমাণ হয় যে আওয়ামী লীগ সরকারই পারে নারীর নিরাপত্তা দিতে।” প্রতিমন্ত্রী শনিবার (১০ অক্টোবর) মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের ন্যাশনাল ট্রমা কাউন্সিলিং সেন্টার, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লিনিক্যাল সাইকোলজি বিভাগ এবং বাংলাদেশ ক্লিনিক্যাল সাইকোলজি সোসাইটির যৌথ উদ্যোগে বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবসের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে জুম প্লাটফর্মে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।
ফজিলাতুন নেসা আরও বলেন, “কোভিড-১৯ উন্নত ও অনুন্নত সকল দেশের সব বয়সের মানুষের মানসিক স্বাস্থ্যের ওপর অত্যন্ত নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে। শিশুরা সবচেয়ে বেশি মানসিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এ থেকে শিক্ষা নিয়ে আমাদের মানসিক স্বাস্থ্য ব্যবস্থাকে আরও গুরুত্ব দিতে হবে। বর্তমান সরকারের একান্ত প্রচেষ্টায় মানুষের মধ্যে স্বাভাবিক জীবন ফিরে আসতে শুরু করেছে। অচিরেই এই সংকট কেটে যাবে। আবার শিশুরা মাঠে খেলবে ও স্কুলে যাবে। মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের ন্যাশনাল ট্রমা কাউন্সেলিং সেন্টার সকল বিভাগীয় শহর ও ফরিদপুরে করোনাকালীন পরিস্থিতিতে মানসিক স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে নিয়মিত কার্যক্রমের পাশাপশি টেলিফোনে ও অনলাইনে ২৪ ঘণ্টা মনোসামাজিক কাউন্সেলিং সেবা দিয়ে আসছে।”
মানসিক স্বাস্থ্য বিষয়ে সচেতনতা বৃদ্ধি ও সবার জন্য মানসিক স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে বিশ্বের অন্যান্য দেশের মত বাংলাদেশেও নানা আয়োজনে বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবস পালিত হয়েছে। এ বছর দিবসটির প্রতিপাদ্য ‘সবার জন্য মানসিক স্বাস্থ্য: অধিক বিনিয়োগ- অবাধ সুযোগ’। বাংলাদেশ সাইকোলজিক্যাল অ্যাসোশিয়েশন ও বাংলাদেশ ক্লিনিক্যাল সাইকোলজি সোসাইটির প্রেসিডেন্ট প্রফেসর ড. মোহাম্মদ মাহমুদুর রহমানের সভাপতিত্বে ওয়েবনিয়ারে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. মো. আখতারুজ্জামান ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বাংলাদেশ প্রতিনিধি ড. বর্ধন জাং রানা, ঢাবির সাইকোলজি বিভাগের চেয়ারপারসন মোছাম্মৎ নাজমা খাতুন ও ড. আবুল হোসেন। বিশেষ অতিথির বক্তৃতায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. মো. আখতারুজ্জামান বলেন, “ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় মানসিক স্বাস্থ্যের উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। কোভিড আমাদের শিখিয়েছে কিভাবে সবাইকে একসাথে কাজ করতে হবে। সকলের সহযোগিতা ও সম্মিলিত প্রচেষ্টায় মানসিক স্বাস্থ্য সেবার মান বৃদ্ধি করতে হবে।”
অধ্যাপক মোছাম্মৎ নাজমা খাতুন তার মূল প্রবন্ধ উপস্থানায় বলেন, “মানসিকভাবে অসুস্থ ব্যক্তিদের গড় আয়ু সুস্থদের তুলনায় ১৫-২০ বছর কম। কম বাজেট বরাদ্ধের কারণে কম সংখ্যক মানুষ মানসিক স্বাস্থ্য সেবা পেয়ে থাকে।” আজকের ওয়েবনিয়ারে করোনাকালে ও মানসিক স্বাস্থ্য সেবার বিভিন্ন বিষয়ে ক্লিনিক্যাল সাইক্লোজিস্টগণ প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে প্রতি চারজনে একজন ব্যক্তি তাদের জীবনদশায় মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যায় আক্রান্ত হয়। এ বিষয়ে সচেতনতা বৃদ্ধি করতে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ১৯৯২ সাল থেকে প্রতি বছর ১০ অক্টোবর দিবসটি পালন করে আসছে।

আন্দোলনে নামছেন ছুটিতে এসে আটকে পড়া ইতালি প্রবাসীরা

বিশেষ প্রতিবেদক :
কর্মস্থলে ফিরে যেতে না পেরে হতাশায় ভুগছেন ছুটিতে এসে আটকে পড়া ইতালি প্রবাসীরা। ৮-১০ মাস ধরে আটকে পড়ায় অনেকের ভিসার মেয়াদও শেষ হয়েছে। আয়হীন সময় কাটিয়ে অনেকেই ঋণগ্রস্ত হয়েছেন। অন্যদিকে বাংলাদেশিদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে ইতালির। ভিসার মেয়াদ বাড়ানো নিয়েও কোনও ঘোষণা দেয়নি দেশটি। এমন পরিস্থিতিতে হতাশাগ্রস্ত ইতালি প্রবাসীরা তিন দফা দাবি নিয়ে মাঠে নামতে যাচ্ছেন। রবিবার (১১ অক্টোবর) ঢাকায় ইতালির দূতাবাসের সামনে মানববন্ধনের মধ্যদিয়ে আন্দোলন শুরু হবে তাদের।
ইতালি প্রবাসীরা জানিয়েছেন, রবিবার সকালে প্রথমে ঢাকায় ইতালি দূতাবাসের সামনে অবস্থান নেবেন তারা। সেখানে মানববন্ধন শেষ করে তারা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সামনে আরেকটি মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করবেন। মানবন্ধনে থেকে তিন দফা দাবি উপস্থাপন করা হবে বাংলাদেশ ও ইতালি সরকারের কাছে। তাদের দাবিগুলো হচ্ছে যাদের ভিসার মেয়াদ শেষ হয়েছে, তা স্বয়ংক্রিয়ভাবে মেয়াদ বৃদ্ধি করা, বাংলাদেশ থেকে ইতালির ফ্লাইট চালু করা, বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে ইতালি প্রবাসীদের সহায়তা করা।
আটকে পড়া ইতালি প্রবাসীদের একজন হৃদয় আহমেদ। ১০ বছর ধরে তিনি ইতালিতে আছেন। করোনাভাইরাসের মহামরির মধ্যে দেশে এসে আটকা পড়েছেন ৯ মাস ধরে। হৃদয় আহমেদ বলেন, ‘আমি ইতালিতে একটি রেস্টুরেন্টে কাজ করতাম। দুই মাসের জন্য ছুটি নিয়ে দেশে এসেছিলাম। অথচ আজকে ৯ মাস পার হয়ে গেছে। সেখানে আমার বাসা ভাড়া অন্যান্য খরচ ঠিকই দিতে হবে, অথচ আমার কোনও আয় নেই এখন। এখন যদি দ্রুত ফিরে না যেতে পারি, তবে কাজও হারাতে হবে। এখন আমাদের জন্য কোনও সুনির্দিষ্ট আশ্বাস এখনও পাইনি।’
ইতালি প্রবাসীরা জানিয়েছেন, কোনও ব্যক্তি ইতালির নাগরিকত্ব পেলে পরিবারের জন্য তিনি ফ্যামেলি ভিসা পাবেন। অনেকের ফ্যামেলি ভিসার মেয়াদও শেষ হয়ে গেছে। এখন ভিসার মেয়াদ না বাড়ালে তাদের ফেরা নিয়ে অনিশ্চয়তা তৈরি হবে। অথচ সেখানে (ইতালিতে) তাদের পরিবারের সবকিছু পড়ে থেকে নষ্ট হচ্ছে।
জানা গেছে, ৮ মার্চ বাংলাদেশে প্রথম করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত করার তথ্য প্রকাশ করে আইইডিসিআর। সংস্থাটি জানায়, আক্রান্তদের মধ্যে দুই জন ইতালি ফেরত। তাদের একজন নারী, যিনি ইতালি ফেরত একজনের পরবারের সদস্য। দেশে ফিরে কোয়ারেন্টিন না মানার প্রবণতা ছিল প্রবাসীদের, এর মধ্যে ইতালি প্রবাসীরাও ছিলেন। অন্যদিকে যারা ইতালিতে ফিরে গেছেন, তাদের অনেকেই সেদেশের স্বাস্থ্যবিধি ও কোয়ারারেন্টিন মানেননি বলেও দেশটির সংবাদপত্রে খবরে প্রকাশ হয়।
করোনাভাইরাসের মহামারির কারণে মার্চে বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক ফ্লাইট বন্ধ রাখে। তবে সে সময়ে ইতালিতে বাংলাদেশ দূতাবাসের সহায়তায় বেশকিছু চার্টার্ড ফ্লাইটে দেশে ফেরেন ইতালি প্রবাসীরা। অন্যদিকে বাংলাদেশ থেকেও চার্টার্ড ফ্লাইটে ইতালিতে ফেরেন অনেকেই। পরবর্তীতে স্বাস্থ্যবিধি ও বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের (বেবিচক) নীতিমালা অনুসরণ করে ১৬ জুন থেকে সীমিত পরিসরে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট শুরু হয়। বাংলাদেশ থেকে কাতার এয়ারওয়েজ কাতার হয়ে বিভিন্ন দেশে যাত্রীদের নিয়ে যায়। এরমধ্যে অন্যতম গন্তব্য ছিল ইতালি। ৬ জুলাই বাংলাদেশ থেকে রোমে যাওয়া একটি ফ্লাইটের উল্লেখযোগ্য সংখ্যক যাত্রীর শরীরে করোনা শনাক্ত হয়। এরপর বাংলাদেশের সঙ্গে সব ধরনের ফ্লাইট বাতিলের ঘোষণা দিয়েছে ইতালি। এ ঘোষণার পরও ৮ জুন বাংলাদেশ থেকে কাতার হয়ে ইতালিতে যাওয়া দুটি ফ্লাইটের ১৬৮ বাংলাদেশিকে ফিরিয়ে দিয়েছে দেশটি।
ইতালি প্রবাসীদের অভিযোগ, বাংলাদেশে ইতালি দূতাবাসে যোগাযোগ করেও কোনও তথ্য পাচ্ছেন না তারা। ভিসার মেয়াদ বাড়ানো হবে কিনা, কবে বাড়াবে এ বিষয়ে ইতালি দূতাবাস সিদ্ধান্ত দেয়নি। ইতালিতে যোগাযোগ করা হলে ঢাকার দূতাবাসে যোগাযোগ করতে বলা হচ্ছে। কিন্তু দূতাবাসে যোগাযোগ করলে একেক সময় একেক জন ফোন রিসিভ করেন এবং একেক জন একেক ধরনের উওর দেন। ইতালির ভিসা সেন্টার ভিএফএস গ্লোভালও কোনও তথ্য দিতে পারছে না।
আন্দোলন প্রসঙ্গে ইতালি প্রবাসী হৃদয় আহমেদ বলেন, ‘১৮ জুলাই আমরা বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে স্মারকলিপি দিয়েছিলাম। কিন্তু কোনও উত্তর পাইনি, কোনও আশ্বাস পাইনি। এ জন্য আমরা আমাদের অধিকার আদায়ের জন্য শান্তিপূর্ণভাবে লড়বো। সুনির্দিষ্ট আশ্বাস না পেলে আমরা মাঠ থেকে সরে যাবো না। কারণ, এটা আমাদের জীবনজীবিকার প্রশ্ন।’
ইতালিতে পড়াশোনা করতেন হাসনাত উদ্দিন। তিনি বলেন, ‘আমি ৮ মাস ধরে আটকে আছি। আমার পড়াশোনা কিছুই হচ্ছে না। এখন ফিরে যেতে না পারলে আমরা ক্যারিয়ার ধ্বংস হয়ে যাবে। ভারত, ফ্রান্স, পাকিস্তানের করোনা পরিস্থিতি বাংলাদেশের চেয়ে বেশি ভালো না, অথচ সেসব দেশের সঙ্গে ফ্লাইট বন্ধ হয়নি ইতালিতে।’
১৫ দিন আগে ভিসার মেয়াদ শেষ হয়েছে মো. রুহুল আমিন তালুকদারের। ইতালিতে ব্যবসা করতেন। ১১ মাস ধরে দেশে আছেন তিনি। রুহুল আমিন বলেন, ‘ভিসার মেয়াদ শেষ হয়েছেÍ এখন আমাদের করণীয় কী বুঝতে পারছি না। করোনার এ সময়ে দেশে আটকে আছি, কেউ তো খোঁজও নিতে আসেনি। এখনও আমাদের কাজে ফিরে যেতে কোনও তৎপরতা দেখছি না। এখানে একজন ব্যক্তি শুধু ব্যক্তি নয়, একটি পরিবার। তাকে কেন্দ্র করে অনেকগুলো মানুষের জীবন চলে। আমরা যদি ফিরে যেতে না পারি, তবে পুরো পরিবার বিপদগ্রস্ত হবে।’

ট্রাম্প-বাইডেন নির্বাচনি বিতর্ক বাতিল

আন্তর্জাতিক ডেস্ক :
মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচন সামনে রেখে প্রতিদ্বন্দ্বী দুই প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প ও জো বাইডেনের মধ্যকার দ্বিতীয় বিতর্ক বাতিল করা হয়েছে। আগামী বৃহস্পতিবার (১৫ অক্টোবর) ওই বিতর্ক অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। বিতর্কের আয়োজক কর্তৃপক্ষ ‘দ্য কমিশন অন প্রেসিডেন্সিয়াল ডিবেটস’ জানিয়েছে, ট্রাম্প ভার্চুয়ালি অংশ নিতে রাজি না হওয়ায় বিতর্কটি বাতিল করা হয়েছে। তবে নির্ধারিত সময়েই তৃতীয় বিতর্ক অনুষ্ঠিত হবে। দুই প্রেসিডেন্ট প্রার্থীর মধ্যে দ্বিতীয় বিতর্কের এই দিনক্ষণ আগেই ঠিক ছিল। তবে প্রথম বিতর্কের পর করোনায় আক্রান্ত হন ডোনাল্ড ট্রাম্প। তিনদিন হাসপাতালে থাকার পর তিনি এখন হোয়াইট হাউসে থেকেই চিকিৎসা নিচ্ছেন। এর মধ্যেই বৃহস্পতিবার দ্বিতীয় বিতর্ক ভার্চুয়ালি আয়োজন করার সিদ্ধান্তের কথা জানায় কমিশন। একইদিন ফক্স বিজনেস চ্যানেলকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ট্রাম্প অভিযোগ করেন, তার প্রতিদ্বন্দ্বী জো বাইডেনকে সুবিধা দিতে এমন পদক্ষেপ নিয়েছে কমিশন।বলেন, ‘ব্যক্তিগত বিতর্ক করে আমি সময় নষ্ট করতে চাই না।’ তার মতে, একটি কম্পিউটারের কাছে বসে এমন বিতর্ক করা হাস্যকর। ‘আমি এই ভার্চুয়াল বিতর্কে জড়াচ্ছি না’ বলেন তিনি। শুক্রবার কমিশনের পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, এটা স্পষ্ট যে আগামী ১৫ অক্টোবর কোনও বিতর্ক হবে না। নির্ধারিত ২২ অক্টোবরে শেষ বিতর্ক আয়োজনেই পূর্ণ মনোযোগ দেবে সিপিডি। বিবৃতিতে বলা হয়, স্বাস্থ্য সুরক্ষার কথা বিবেচনা এবং পর্যাপ্ত পরীক্ষা, মাস্ক ব্যবহার, সামাজিক দূরত্বসহ অন্যান্য নিয়ম অনুসরণ করে টেনেসির ন্যাশভাইলে বেলমন্ট ইউনিভার্সিটিতে বিতর্ক অনুষ্ঠিত হবে। ট্রাম্প-বাইডেনের শেষ বিতর্ক অনুষ্ঠান ১৫ মিনিট করে ছয়টি অংশে বিভক্ত থাকবে। প্রতিটি অংশের আলোচ্য বিষয় ঘোষণা করবেন অনুষ্ঠানের সঞ্চালক এনবিসি নিউজের ক্রিস্টেন ওয়েলকার। দুই প্রার্থীই ২২ অক্টোবরের বিতর্কে অংশ নিতে সম্মতি দিয়েছেন বলে জানিয়েছে আয়োজক সংস্থাটি।

কেউ যেন ঘোলা পানিতে মাছ শিকার না করে : কাদের

ঢাকা অফিস :
ধর্ষণবিরোধী আন্দোলনে ভর করে কোন স্বার্থান্বেষী গোষ্ঠী যাতে ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করতে না পারে সেদিকে সবাইকে সজাগ থাকার আহ্বান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। শনিবার (১০ অক্টোবর) ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সংযুক্ত হয়ে গাজীপুর জেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় এ কথা বলেন তিনি। আওয়ামী লীগের সাধারণ বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার শুধু ধর্ষণ আর নারীর প্রতি সহিংসতাই নয়, যেকোনো অন্যায় অপকর্মের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানে। প্রতিটি ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতার করা হয়েছে, আনা হয়েছে বিচারের আওতায়। ধর্ষণবিরোধী আন্দোলনে ভর করে কোন স্বার্থান্বেষী গোষ্ঠী যাতে ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করতে না পারে সেদিকে সবাইকে সজাগ থাকতে হবে। তিনি বলেন, ক্যাসিনোবিরোধী অভিযান থেকে শুরু করে স্বাস্থ্যখাতের অনিয়ম রুখতে যে শুদ্ধি অভিযান সরকার পরিচালনা করছে তা কারো দাবির প্রেক্ষিতে নয়, সরকার স্বপ্রণোদিত হয়েই করছে। ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি আন্দোলনকে ভিন্ন খাতে নিতে সরকারের পতন চায়। শান্তিপূর্ণ আন্দোলনকে সহিংস করার অপচেষ্টা করছে বিএনপি, সরকার এ বিষয়ে সজাগ রয়েছে। যারা ষড়যন্ত্রকারী, গুজব রটনাকারী তাদের চিহ্নিত করার কাজ চলছে জানিয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, আন্দোলনের নামে অস্থিরতা ও ষড়যন্ত্র সৃষ্টির অপপ্রয়াস জনস্বার্থে সরকার কঠোর হস্তে দমন করবে। আওয়ামী লীগের নেতাদের উদ্দেশে দলটির সাধারণ সম্পাদক বলেন, দলের কোনো পর্যায়ের সন্ত্রাসী, ধর্ষক ও মাদকসেবীদের আশ্রয়-প্রশ্রয় দেওয়া যাবে না, কমিটি গঠনে ত্যাগী নেতাকর্মীদের মূল্যায়ন করতে হবে।

‘শুধু আমাকে নয়, সারাদেশের নারীদেরই বিবস্ত্র করেছে’

দেশ ডেস্ক :
নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে ধর্ষণ ও বিবস্ত্র করে যৌন নির্যাতনের শিকার নারী বলেছেন, এই ঘটনার বিচার না হলে মাথা উচুঁ করে যেমন গ্রামে যেতে পারবো না, তেমনি দেশের নারীরাও মাথা উঁচু করে চলতে পারবে না। কারণ, ধর্ষক-নিপীড়করা শুধু আমাকে নয়, সারাদেশের নারীদেরই বিবস্ত্র করেছে। ঢাকা থেকে যাওয়া ছয় সদস্যের প্রতিনিধিদলের এভাবেই ক্ষোভ ও দুঃখের সঙ্গে কথাগুলো তুলে ধরেন নির্যাতনের শিকার ওই নারী। শনিবার (১০ অক্টোবর) এক যৌথ বিবৃতিতে এসব কথা জানান ওই প্রতিনিধি দল। এই দলের সদস্যরা হলেনÍ লেখক, গবেষক ও নৃবিজ্ঞানী রেহনুমা আহমেদ, শিক্ষক ও সাংস্কৃতিক কর্মী বীথি ঘোষ, রাজনৈতিক কর্মী এবং আলোকচিত্রী জান্নাতুল মাওয়া, সাংস্কৃতিক ও মানবাধিকার কর্মী মাহফুজা হক, উন্নয়নকর্মী শিপ্রা বোস এবং শ্রমিক ও নারী আন্দোলনের সংগঠক ও আলোকচিত্রী তাসলিমা আখতার। নির্যাতনের শিকার ওই নারী তাদের কাছে আরও বলেন, ‘দোষীদের সর্বোচ্চ শাস্তি না হলে শুধু বেগমগঞ্জ না সমগ্র দেশের নারীরা পরাজিত হবে। এই ঘটনার বিচার না হলে এ ধরনের ঘটনা বন্ধ হবে না। কে মুসলমান, কে হিন্দু, কে ধনী কে গরিব, কে শিক্ষিত কে অশিক্ষিত, এসব বিবেচনার বাইরে আসতে হবে নারীদের। কেবল নারী হিসেবে নারীর ওপর যে বর্বর নির্যাতন হয়েছে, তার বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ লড়াই এখন জরুরি।’ বিবৃতিদাতারা জানান, লেখক-গবেষক ও নৃবিজ্ঞানী রেহনুমা আহমেদের সমন্বয়ে আমরা ছয় জন ঢাকা থেকে নোয়াখালী সদর ও বেগমগঞ্জে যাই। বেগমগঞ্জে নারী ধর্ষণ ও বিবস্ত্র করে যৌন নির্যাতনের ঘটনার প্রতিবাদের অংশ হিসেবে এবং ওই নারীর প্রতি গভীর সমবেদনা ও জোরালো সংহতি প্রকাশ করতেই আমাদের এই সফর। নির্যাতনের শিকার নারীর সঙ্গে দেখা হলে আমরা তাকে জানাই যে, এই লড়াই কেবল বেগমগঞ্জের কোনও এক নারীর বা নোয়াখালীর না, এটি সারা দেশের নারীর লড়াই, নারী নির্যাতন-বৈষম্যর বিরুদ্ধে থাকা সব সচেতন নাগরিকের লড়াই। বেগমগঞ্জের নারীর পাশে সারাদেশের ধর্ষণ নির্যাতন বিরোধীরা আছেন এবং থাকবেন। এই পরিস্থিতিতে কোনও ভয়ভীতি, হেনস্তার কাছে পরাস্ত হওয়ার কোনও সুযোগ নেই। তিনি যে কোনোভাবেই একা ননÍ এ বিষয়ে আমরা তাকে বারবার আশ্বস্ত করি। তার সাহস ধর্ষণ ও ধর্ষণের সংস্কৃতির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে শক্তি জোগাবে এবং সঙ্গী হয়ে থাকবে। তারা আরও জানান, আমরা জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার এবং থানার ওসিকে নির্যাতিত নারীর নিরাপত্তা প্রদানে সর্বোচ্চ ভূমিকা রাখার বিষয়ে সচেষ্ট থাকার আহ্বান জানাই। বেগমগঞ্জের ঘটনাসহ এ যাবত নারীর ওপর ঘটে যাওয়া ধর্ষণ ও নিপীড়নের বিরুদ্ধে শক্তিশালী সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান জানাই।

সম্প্রচার আইন হলে সুরক্ষিত হবেন গণমাধ্যমকর্মীরা : তথ্যমন্ত্রী

দেশ প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম :
তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, গণমাধ্যমকর্মী আইন এবং সম্প্রচার আইন হলে গণমাধ্যমকর্মীদের বেতন কাঠামো থেকে শুরু করে সবকিছু সুরক্ষিত হবে। তবে আইন পাস করা কোনো মন্ত্রণালয়ের একক বিষয় নয়। শনিবার (১০ অক্টোবর) সকালে সার্কিট হাউজে বাংলাদেশ বেতার আয়োজিত বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি ২০২০-২১ বিষয়ক প্রশিক্ষণের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। তথ্যমন্ত্রী বলেন, আইন পাসের সঙ্গে মন্ত্রীসভা, আইন মন্ত্রণালয়, সংসদ, সংসদীয় কমিটি যুক্ত। যেহেতু তথ্য মন্ত্রণালয়ের একক দায়িত্বে এটি করা সম্ভব নয়, সুতরাং এটি নিয়ে নির্দিষ্ট কোনো সময় বেঁধে দেওয়াও সম্ভব নয়। তবে এটি সহসা করার চেষ্টা করছি।
সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তথ্যমন্ত্রী বলেন, বিএনপি নেতারা যখন কথা বলেন তখন ভুলে যান-তারা যখন ক্ষমতায় ছিলেন তখন কি করেছেন। ফখরুল সাহেবরা যখন ক্ষমতায় ছিলেন, দলগতভাবে বিভিন্ন অপকর্ম করতেন। নৌকায় ভোট দেওয়ার অপরাধে আট বছরের শিশু থেকে শুরু করে অন্তঃস্বত্ত্বা মহিলা এবং ষাট বছর বয়ষ্কা মহিলাও বাদ যায়নি বিএনপি কর্মীদের লেলিয়ে দেওয়া বাহিনীর হাত থেকে।
ড. হাছান মাহমুদ আরও বলেন, নারীর ক্ষমতায়নের ক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে যে উন্নতি হয়েছে সেটি পৃথিবীর সামনে বড় উদাহরণ। আজকে যে ঘটনাগুলো ঘটছে সেগুলো পূর্বে ঘটেনি তা নয়। আগেও ঘটতো। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের ব্যাপকতা ছিল না বিধায় সেগুলো মানুষ জানতে পারতো না। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের কারণে কোনো ঘটনাই ঢাকা থাকছে না। এটি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের একটি ভালো দিক। সরকার অতীতে ধর্ষণের ঘটনার বিচার করে শাস্তি দিয়েছে। এখনও যেগুলো ঘটছে সেগুলো বিচার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেওয়ার জন্য বদ্ধপরিকর।
মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে বেতারের ভুমিকার কথা উল্লেখ করে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, যতদিন বাংলাদেশ থাকবে ততদিন স্বাধীন বাংলা বেতারের কথা স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে। দেশ বিনির্মাণে বেতার অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করছে। বেতারের অনেকগুলো অনুষ্ঠান অত্যন্ত ভালো এবং জনমানুষের কাছে সেই অনুষ্ঠানমালার ব্যাপক আবেদন রয়েছে। আমাদের কৃষ্টি সংস্কৃতিকে লালন করার ক্ষেত্রে বেতার গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা রাখছে। দূর্যোগ-দূর্বিপাকে বেতারই মানুষের কাছে খবর পৌঁছায়। বর্তমানে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ও স্মার্টফোনের ব্যাপকতা বেড়েছে, এখন একটি রেডিও বহন করা সম্ভবপর নয়। তাই রেডিওকে অ্যাপসের মাধ্যমে টেলিফোনে আনার উদ্যোগ নিয়েছি। এখন অ্যাপসের মাধ্যমে বিভাগীয় পর্যায়ে বাংলাদেশ বেতার মোবাইলেও শোনা যায়।
তিনি বলেন, ১০০ কিলোওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন হলেও আশপাশে পাহাড়সহ নানাকারণে ফেনীতেও চট্টগ্রাম বেতারের অনুষ্ঠান শোনা যায় না। অথচ ১০০ কিলোওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন খুলনা কেন্দ্রের অনুষ্ঠান প্রতিবন্ধকতা না থাকায় এখানে শোনা যায়। গুরুত্ব বিবেচনায় ব্যবসা বাণিজ্য ও ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠিসহ নানা সংবাদ ও কৃষ্টি সংস্কৃতির চাহিদা রয়েছে সারাদেশে। তাই আমরা সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছি, ঢাকা কেন্দ্রের মতো বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটে আপলিঙ্ক করে সেটি আবার বিভিন্ন বেতার কেন্দ্রে ডাউনলিঙ্ক করে সারাদেশে শোনানো হবে। চট্টগ্রাম বেতার কেন্দ্রের অনুষ্ঠানও খুব সহসা সেভাবে উদ্বোধন হবে। এটি চট্টগ্রাম বেতার কেন্দ্রের ইতিহাসে বিরাট মাইলফলক হয়ে থাকবে।
বাংলাদেশ বেতারের মহাপরিচালক হোসনে আরা তালুকদারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন বিভাগীয় কমিশনার এ বি এম আজাদ, বাংলাদেশ বেতারের চট্টগ্রাম কেন্দ্রের পরিচালক এসএম আবুল হোসেন প্রমুখ।

বসানো গেলো না পদ্মা সেতুর ৩২তম স্প্যান

দেশ প্রতিবেদক, মুন্সীগঞ্জ :
পরিকল্পনা অনুযায়ী বসানো গেলো না পদ্মা সেতুর ৩২তম স্প্যান। শনিবার (১০ অক্টোবর) বিকালে কাজ স্থগিত করা হয়েছে। পদ্মায় তীব্র স্রোতের কারণে ভাসমান ক্রেন তিয়ান-ই নোঙর করতে সমস্যা হওয়ায় এবং ঠিকমতো স্প্যানকে ‘পজিশনিং’ করা সম্ভব না হওয়ায় কাজ স্থগিত করা হয়। তবে রবিবার (১১ অক্টোবর) সকালে স্প্যান বসানোর কাজ আবার শুরু হবে। পদ্মা সেতুর উপ-সহকারী প্রকৌশলী হুমায়ুন কবীর এ খবর নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, নোঙর সমস্যার কারণে কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ডের স্টিল ট্রাস জেটি থেকে স্প্যানটি বহন করে রওনা দিতে ভাসমান ক্রেনের অনেক দেরি হয়। এদিকে, দীর্ঘ চার মাস পর শনিবার (১০ অক্টোবর) পদ্মা সেতুর ৩২তম স্প্যান বসানোর কার্যক্রম শুরু হয়। এর আগে সর্বশেষ ৩১তম স্প্যানটি গত ১০ জুন স্থাপন করা হয়। ১৫০ মিটার দৈর্ঘ্যের ১-ডি নম্বরের এই স্প্যানটি মাওয়া প্রান্তে পিয়ার-৪ ও পিয়ার-৫ এর ওপর স্থাপন করার পর সেতুর ৪ দশমিক ৮০ কিলোমিটার দৃশ্যমান হবে। শনিবার দুপুরে মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ের মাওয়ায় অবস্থিত কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ডের স্টিল ট্রাস জেটি থেকে স্প্যানটি বহন করে রওনা দেয় পৃথিবীর সবচেয়ে বড় ভাসমান ক্রেন তিয়ান-ই। নির্বাহী প্রকৌশলী দেওয়ান মো. আব্দুল কাদের জানান, অক্টোবরের প্রথম দিকে সবক’টি স্প্যান বসানো শেষ হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু বর্ষা মৌসুমে পদ্মার পানি ৬ মিটারের বেশি বৃদ্ধি পাওয়ায় স্রোতের তীব্রতা বেড়ে যায়। তীব্র স্রোতে ভাসমান ক্রেন নোঙর করতে অসুবিধা হয়। এতে শিডিউল অনুযায়ী স্প্যান বসানো যায়নি। প্রকৌশলীরা আশা করছেন, আগামী ডিসেম্বর নাগাদ সব স্প্যান বসানোর কাজ সম্পন্ন করা যাবে। বাকি থাকা ১০টি স্প্যানের মধ্যে অক্টোবরে চারটি, নভেম্বরে চারটি ও ডিসেম্বরে দুইটি স্প্যান বসবে। এদিকে, নির্বিঘ্নে স্প্যান বসানোর জন্য ভাসমান ক্রেনের দুই পাশে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা রাখা হয়, যাতে করে উজানভাটির কোনও পাশ থেকে কোনও জলযান চলাচল করতে না পারে। সেতুর অন্য কাজও এগিয়ে চলছে। সংশোধিত সময় অনুযায়ী মূল সেতু সমাপ্তির শেষ তারিখ আগামী বছরের ৩০ জুন। ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০ তারিখ পর্যন্ত মূল সেতুর প্রায় ৯০ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে। উল্লেখযোগ্য কাজের মধ্যে মূল সেতুর ২৯১৭টি রোডওয়ে স্ল্যাবের মধ্যে ১০২৮টি এবং ২৯৫৯টি রেলওয়ে স্ল্যাবের মধ্যে ১৫৭৬টি স্ল্যাব বসানো হয়েছে। মাওয়া ও জাজিরা ভায়াডাক্টে ৪৮৪টি সুপার-টি গার্ডারের মধ্যে ২১৬টি বসানো হয়েছে। নদী শাসন কাজের বাস্তব অগ্রগতি ৭৪ দশমিক ৫০ ভাগ।

৩০ হাজার ১৯৩ দশমিক ৩৯ কোটি টাকা ব্যয়ে গৃহীত এই প্রকল্পের সার্বিক অগ্রগতি ৮১ দশমিক ৫০ ভাগ এবং আর্থিক অগ্রগতি ৮৭ দশমিক ৫৫ ভাগ। ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০ পর্যন্ত মোট ব্যয় হয়েছে ২৩ হাজার ৭৯৬ দশমিক ২৪ কোটি টাকা। ২০১৪ সালের ডিসেম্বরে ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের দ্বিতল পদ্মা সেতুর নির্মাণকাজ শুরু হয়। মূল সেতু নির্মাণের কাজ করছে চীনের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না রেলওয়ে মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং গ্রুপ কোম্পানি লিমিটেড (এমবিইসি)। নদী শাসনের কাজ করছে চীনের আরেকটি প্রতিষ্ঠান সিনো হাইড্রো করপোরেশন।

‘উত্তর কোরিয়ায় একজনও করোনায় আক্রান্ত হয়নি’

আন্তর্জাতিক ডেস্ক :
উত্তর কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট কিম জং উন দাবি করেছেন, তার দেশে এক জনও করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়নি। শনিবার সামরিক মহড়ায় দেওয়া ভাষণে তিনি এ দাবি করেছেন। উন বলেছেন, তিনি কৃতজ্ঞ যে উত্তর কোরিয়ায় ‘এক জন ব্যক্তিও’ করোনায় আক্রান্ত হয়নি। কয়েক মাস আগে দক্ষিণ কোরিয়ার কয়েকটি সংবাদমাধ্যমে দাবি করা হয়েছিল, করোনায় আক্রান্ত সন্দেহে উত্তর কোরিয়ার এক নাগরিককে আইসোলেশনে রাখা হয়েছিল। কোয়ারেন্টাইন সেন্টার থেকে বের হওয়ায় তাকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। চীনে গত ডিসেম্বরে করোনার সংক্রমণ শুরু হওয়ার জানুয়ারিতে নিজেদের সীমান্ত বন্ধ করে দেয় উত্তর কোরিয়া। পিয়ংইয়ং বরাবরই দাবি করে আসছে, উত্তর কোরিয়ায় করোনায় কেউ আক্রান্ত হয়নি। তবে সম্প্রতি দেশটির সরকার সংবাদমাধ্যমগুলোতে এ নিয়ে বিবৃতি প্রকাশ বন্ধ করে দিয়েছে। বরং সংবাদমাধ্যমগুলোতে এখন করোনা প্রতিরোধের ওপর গুরুত্ব দেওয়ার কথা বলছে।

বিদেশফেরত ৭৪ শতাংশ প্রবাসী মানসিক চাপে থাকেন : ব্র্যাক

দেশ ডেস্ক :
বিদেশফেরত ৭৪ শতাংশ প্রবাসী প্রচণ্ড দুশ্চিন্তা, মানসিক চাপ, উদ্বেগ ও ভীতির মধ্যে রয়েছেন। অভিবাসীদের এই উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা এবং মানসিক চাপ দূর করতে হলে তাদের জন্য মানসিক স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করা জরুরি বলে জানিয়েছে ব্র্যাক। শনিবার (১০ অক্টোবর) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানায় সংস্থাটি। করোনাকালে ৫৫৮ জন বিদেশফেরত অভিবাসীর ওপর করা ব্র্যাক মাইগ্রেশন প্রোগ্রামের এক জরিপে এই তথ্য উঠে আসে। এতে বলা হয়, গতকাল ১০ অক্টোবর পালিত হচ্ছে বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবস। এ বছর দিবসটির প্রতিপাদ্য ‘সবার জন্য মানসিক স্বাস্থ্য: মানসিক স্বাস্থ্যে অধিক বিনিয়োগ, অধিকতর সেবার সুযোগ।’ শারীরিক স্বাস্থ্যের পাশাপাশি মানসিক স্বাস্থ্যও যে সমান গুরুত্বপূর্ণ এবং অভিবাসীদের মানসিক স্বাস্থ্যসেবা যে আলাদা গুরুত্বের দাবি রাখে, সে বিষয়ে জনসচেতনা তৈরিতে বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্য দিয়ে এবারের বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবস পালন করেছে ব্র্যাক মাইগ্রেশন প্রোগ্রাম। পাশাপাশি মানসিক স্বাস্থ্যসেবাও অব্যাহত আছে। ব্র্যাক মাইগ্রেশন প্রোগ্রাম জানায়, এরই অংশ হিসেবে দেশের অভিবাসনপ্রবণ ১২টি জেলায় ব্র্যাক মাইগ্রেশন প্রোগ্রামের ১৫ জন প্রশিক্ষিত মনোসামাজিক কাউন্সেলর কর্তৃক মানসিক স্বাস্থ্যসেবা-বিষয়ক ক্যাম্পেইনের আয়োজন করা হয়েছে। এ ক্যাম্পেইনে কাউন্সেলরা বিদেশফেরত অভিবাসীসহ সমাজের বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষকে মানসিক স্বাস্থ্যবিষয়ক পরামর্শ দিয়েছেন। পাশাপাশি কারও যদি ব্যক্তিগত কাউন্সেলিংয়ের দরকার হয় তাহলে তাকে বিনামূলে স্বাস্থ্য সেবা দেওয়ার ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। এছাড়া স্থানীয় পর্যায়ে মানসিক স্বাস্থ্য সেবা বিষয়ক বিভিন্ন স্লোগান সম্বলিত পোস্টার ও প্ল্যাকার্ডের মাধ্যমেও সচেতনতামূলক বার্তা প্রচার করা হয়। দিবসটি উপলক্ষে প্রবাসীদের মানসিক স্বাস্থ্যের দিকে সবাইকে নজর দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে ব্র্যাক মাইগ্রেশন প্রোগ্রামের প্রধান শরিফুল হাসান বলেন, সাধারণ মানুষজন শারীরিক সুস্থতার দিকে নজর দিলেও মানসিক স্বাস্থ্যের বিষয়টি একেবারেই উপেক্ষিত থাকে। বিশেষ করে অভিবাসীদের মানসিক স্বাস্থ্যের বিষয়টি আরও উপেক্ষিত। ফলে তারা বিচ্ছিন্ন বোধ করেন। নানা সংকটে থাকেন। করোনার এই সংকটকালে বিদেশফেরত লোকজনের সঙ্গে কথা বলে আমরা দেখেছি, তাদের অধিকাংশই মানসিক দুশ্চিন্তায় রয়েছেন। ফলে বিদেশফেরতদের মানসিক স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করা উচিত। এটি পরবর্তী সময়ে তাদের ঘুরে দাঁড়াতে সহায়তা করে। বিদেশফেরত অভিবাসীদের জন্য ব্র্যাক মাইগ্রেশন প্রোগ্রামের মানসিক স্বাস্থ্য সেবা কার্যক্রম সম্পর্কে তিনি বলেন, গত তিন বছরে আমরা অন্তত দুই হাজার মানুষকে মানসিক স্বাস্থ্য সেবা দিয়েছি। আর করোনার এ দুঃসময়ের মধ্যেই অন্তত তিন হাজার বিদেশফেরত অভিবাসী আমাদের টেলি-কাউন্সেলিং সেবা পেয়েছেন। এই কাজটি করতে গিয়ে আমরা দেখেছি যে, একজন বিদেশফেরত অভিবাসীর জন্য মানসিক স্বাস্থ্য সেবা কতটা জরুরি। আশা করছি, আমাদের বিভিন্ন দূতাবাসসহ প্রবাসীদের সেবার সঙ্গে জড়িত সরকারি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোতে এ বিষয়ে নজর দেওয়া হবে।

আসছে করোনার দ্বিতীয় ধাক্কা, শিক্ষায় বড় ক্ষতির শঙ্কা

বিশেষ প্রতিবেদক :
বিশ্বের বিভিন্ন দেশে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুললেও করোনার দ্বিতীয় আঘাতের আশঙ্কায় ফের বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। স্থগিত করা হয়েছে চলমান বিভিন্ন পাবলিক পরীক্ষাও। বাংলাদেশও এর বাইরে নয়। নভেম্বর-ডিসেম্বর নাগাদ করোনার দ্বিতীয় ঢেউ শুরুর আশঙ্কায় বাতিল করা হয়েছে এইচএসসি পরীক্ষা। মূলত পুরো শীতকালে এই ধাক্কার আশঙ্কা করছেন সংশ্লিষ্টরা। এরফলে ২০২১ সালের এসএসসি ও বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি নিয়ে নতুন করে আশঙ্কা তৈরি হয়েছে। সংশ্লিষ্টদের মতে, করোনা দেশের অর্থনীতিসহ অন্যান্য খাতের পাশাপাশি চরম ক্ষতি করেছে শিক্ষা খাতেরও। প্রায় এক বছর নষ্ট হয়েছে ইতোমধ্যে। তবে, সরকার ক্ষতি পুষিয়ে নিতে অনলাইন ক্লাস, টেলিভিশন পাঠদান চলমান রাখলেও সে সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে শিক্ষার্থীদের বড় একটি অংশ। সামনে করোনার দ্বিতীয় ধাক্কা এলে পাঠদানের ক্ষতির পাশাপাশি এসএসসি পরীক্ষা নিয়ে নতুন সংশয় তৈরি হবে। সাধারণত বছরের জুলাই মাসে দশম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের প্রাক-নির্বাচনি আর অক্টোবরে নির্বাচনি পরীক্ষা নেওয়া হয়। আর দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থীদের প্রাক-নির্বাচনি বা অর্ধবার্ষিক পরীক্ষা জুলাই-আগস্টে এবং ডিসেম্বরে নির্বাচনি পরীক্ষা হয়। এরপর নভেম্বরে এসএসসি পরীক্ষার্থীদের ফরম পূরণ ও ডিসেম্বর-জানুয়ারি মাসে এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের ফরম পূরণ করা হয়। ইতোমধ্যে এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের প্রাক-নির্বাচনি পরীক্ষা বাতিল হয়ে গেছে। একাদশ শ্রেণির বার্ষিক পরীক্ষাও হয়নি। একাদশ শ্রেণিতে কলেজ পর্যায়ে নেওয়া বিভিন্ন ক্লাস টেস্ট আর অর্ধবার্ষিক পরীক্ষার ফলের ওপর ভিত্তি করে এসব শিক্ষার্থীকে ‘অটো পাস’ দেওয়া হয়েছে। আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় কমিটির সভাপতি অধ্যাপক মু. জিয়াউল হক বলেন, ‘প্রতি বছর ফেব্রুয়ারিতে এসএসসি ও এপ্রিলে এইচএসসি পরীক্ষা হয়। করোনাকালে প্রাতিষ্ঠানিক পাঠদান বন্ধ। সরাসরি পরীক্ষা বা ক্লাস টেস্ট নেওয়ারও কোনো সুযোগ নেই। এ কারণে পরীক্ষা যথাসময়ে শেষ করাটা কঠিন হয়ে দাঁড়াবে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে পরীক্ষা ও ক্লাস সংক্রান্ত যেকোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া বাস্তবায়ন করা যেতে পারে।’ মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতরের (মাউশি) মহাপরিচালক সৈয়দ মো. গোলাম ফারুক বলেন, ‘পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত প্রতিষ্ঠান খোলার সুযোগ নেই। তবে টেলিভিশনে আমাদের কার্যক্রম চলমান রয়েছে। করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত আমাদের অনলাইন পাঠদান অব্যাহত থাকবে। করোনা দ্বিতীয় ধাক্কা নিয়ে নতুনভাবে শঙ্কা তৈরি হয়েছে। কারণ পরিস্থিতি একেবারে স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত আমরা প্রতিষ্ঠান খোলতে পারি না।’ জানা গেছে, নভেম্বরে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হবে, তখন সংক্রম আরও বাড়তে পারে। সম্প্রতি শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি জানিয়েছেন, দ্বিতীয় ঢেউ এলে, সংক্রমণ বাড়লে তখন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা নিয়ে সংশয় রয়েছে। সে হিসেবে এ বছর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা অনিশ্চিত। এছাড়া শীতকালে করোনার প্রকোপ থাকলে সে হিসেবে নতুন বছরের শুরুতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা যাবে কি না, তা নিয়েও সংশয় রয়েছে। জানতে চাইলে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব আকরাম আল হোসেন বলেন, ‘শীতপ্রধান দেশে এর প্রকোপ বেশি। আমাদের দেশে শীত শুরু হয় নভেম্বরের শেষ থেকে। ডিসেম্বর থেকে এর প্রকোপ বাড়তে থাকে। এই সময়ের মধ্যে করোনার বিস্তার বাড়তে পারে। আর করোনা বাড়লে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার সুযোগ নেই। পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হলে শিক্ষার্থীদের সশরীরে কোনো ক্লাস বা পরীক্ষা নেওয়া যাবে না।’ পরিস্থিতি অনুযায়ী সরকার সিদ্ধান্ত নেবে বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

খুলনায় মাদকসহ গ্রেফতার ৩

বিজ্ঞপ্তি : গত ২৪ ঘন্টায় খুলনা মহানগর পুলিশের মাদক বিরোধী অভিযানে মাদক ব্যবসায়ী ১) মোঃ সিরাজুল ইসলাম সাগর @আকাশ(১৭), পিতা-মোঃ খোকন শেখ, সাং-জিন্নাহপাড়া, মোল্লাপাড়া জামে মসজিদ এর সামনের গলি, থানা-লবণচরা; ২) মোঃ সোহেল শেখ(২৫), পিতা-মোঃ দবির শেখ, স্থায়ী সাং-বালুহার, থানা-কোটালীপাড়া, জেলা-গোপালগঞ্জ, এ/পি সাং-আলমনগর মধ্যপাড়া, মহিলা পলিটেকনিক মোড় সংলগ্ন, থানা-খালিশপুর এবং ৩) মোঃ আফজাল মোল্ল্যা @শিল্পি আফজাল(৫১), পিতা-মোঃ আফতার মোল্ল্যা, সাং-ইয়াছিনতলা, বটতলা, বাগমারা, থানা-রূপসা, জেলা-খুলনা, এ/পি সাং-সোনালী নগর, আনোয়ার শিকদার এর বাড়ীর ভাড়াটিয়া, থানা-সোনাডাঙ্গা মডেল, খুলনা মহানগরীদের কে গ্রেফতার করা হয়েছে। উপরোক্ত মাদক ব্যবসায়ীদের নিকট হতে ৭০ গ্রাম গাঁজা আলামত হিসাবে উদ্ধার করা হয়েছে। এ সংক্রান্তে মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট থানায় ০৩ টি মাদক মামলা রুজু করা হয়েছে।

ফুলতলায় ফেন্সিডিলসহ গ্রেফতার ৩

বিজ্ঞপ্তি : র‌্যাব-৬, (স্পেশালকোম্পানী) খুলনার একটি আভিযানিক দল গত শুক্রবার রাতে গোপন সংবাদের মাধ্যমে জানতে পারেন যে, খুলনা জেলার ফুলতলা থানাধীন ডাউকোনা গ্রামস্থ্য জনৈক মতিয়ার সরদার এরবাড়ির সামনে কতিপয় ব্যক্তি মাদকদ্রব্য ক্রয়-বিক্রয় করছে। এরূপ প্রাপ্ত সংবাদের ভিত্তিতে উক্ত স্থানে অভিযান রিচালনা করে। এসময় ৎধন এর উপস্থিতি টের পেয়ে দৌড়ে পালানোর চেষ্টাকালে র‌্যাব সদস্যরা আসামী ১। মোঃ সাইফুল ইসলাম(২১), পিতা-মোঃশাহজাহান সরদার, সাং-পারুলিয়া বাজার, থানা-দেবহাটা, জেলা-সাতক্ষীরা ২।মোঃ তানভীর জাহিন(২০), পিতা-শহিদুল্লাহ সরদার, সাং-ছাতিয়ানি পূর্বপাড়া, থানা-ফুলতলা, জেলা-খুলনা ৩। শেখ হাসিবুল ইসলাম ফারদিন(১৯), পিতা-শেখ জাফিরুল ইসলাম, সাং-বয়রা, রায়ের মহল, থানা-হরিণটানা, কেএমপি, খুলনাদেরকে ধৃত করেন। অতঃপর তল্লাশির মাধ্যমে তাদের দখল হতে ৯৬ বোতল ফেন্সিডিল উদ্ধার পূর্বক তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়। আসামীদেরকে জিজ্ঞাসাবাদে তারা দীর্ঘদিন যাবৎ বিভিন্ন এলাকায় গোপনে মাদক ব্যবস্যা চালিয়ে আসছে বলে স্বীকার করে।গ্রেফতারকৃত আসামীদের বিরুদ্ধে খুলনা জেলার ফুলতলা থানায়মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন আইনে মামলারুজু প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

বাগেরহাটে ইয়াবাসহ গ্রেফতার ২

বিজ্ঞপ্তি : র‌্যাব-৬, (স্পেশাল কোম্পানী) খুলনার একটি আভিযানিক দল গোপন সংবাদের মাধ্যমে জানতে পারে যে, বাগেরহাট জেলার রামপাল থানাধীন বড় দূর্গাপুর গ্রামস্থ্য তমা ব্রীজের পূর্ব পাশে জনৈক জাহিদুল এর দোকানের সামনে কতিপয় ব্যক্তি মাদকদ্রব্য ক্রয়-বিক্রয়ের উদ্দেশ্য অবস্থান করছে। এরুপ প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে অভিযানিক দলটি অদ্য ১০ অক্টোবর ২০২০ খ্রিঃ ১৬.৪৫ ঘটিকার সময় উক্ত স্থানে অভিযান পরিচালনা করে ১। অভিক বিশ্বাস(২৭), পিতাঃ সুরেনবিশ্বাস, মাতাঃ আশালতা বিশ্বাস, সাং-হলদি বুনিয়া, থানাঃ মোংলা, জেলাঃবাগেরহাট ২।ইফতেখারুল বাশার(২৫), পিতা-মোঃ শামীম মোস্তফা, মাতা-মোছাঃ ফেরদৌসি লিনা, সাং-কুলাকানা, থানা-এয়ারপোর্ট, জেলা-বরিশালদ্বয়কে ২৮৩ পিস ইয়াবাসহ হাতেনাতে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃত আসামীদ্বয়কে বাগেরহাট জেলার রামপাল থানায় হস্তান্তর করতঃ তাদের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন আইনে মামলা রুজু প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

ইসলামী যুব আন্দোলন’র প্রশিক্ষণ

বিজ্ঞপ্তি : ৯ ও ১০ই অক্টোবর শুক্র ও শনিবার ইসলামী যুব আন্দোলন খুলনা মহানগর নেতৃবৃন্দ ২ দিনব্যাপী কেন্দ্রীয় প্রশিক্ষণ কর্মসূচি চরমোনাই তে বরিশালে অংশগ্রহণ করেন। মহানগর সহ-সভাপতি মুফতী আব্দুর রহমান মিয়াজি ও সাধারন সম্পাদক মুফতী শেখ আমীরুল ইসলাম এর নেতৃত্বে প্রশিক্ষণ কর্মসূচি তে অংশগ্রহণ করেন মোঃ মেহেদি হাসান, মোঃ আব্দুর রশিদ, ফেরদাউস গাজী সুমন, হাফেজ মোঃ হাসান, মাওলানা ফরিদ উদ্দীন আজহার, মোঃ শিমুল ব্যাপারী, মোঃ মোমিন ইসলাম নাসিব, মোঃ আরিফুল ইসলাম, মোঃ টিপু সুলতান, মোঃ আব্দুর রাকিব প্রমূখ।

এমপি সালাম মূর্শেদী ও এ্যাড. সাইফুলকে অভিনন্দন

বিজ্ঞপ্তি : খুলনা – ৪ আসনের সংসদ সদস্য আব্দুস সালাম মূর্শেদী চতুর্থ বারের মত বিপুল ভোটে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে) এর সিনিয়র সহ-সভাপতি এবং সাবেক ছাত্র নেতা খুলনা সদর থানা আওয়ামীলীগ ও জেলা আাইনজীবী সমিতির সভাপতি এ্যাডভোকেট সাইফুল ইসলাম কার্য নির্বাহী সদস্য নির্বাচিত হওয়ায় অভিনন্দন জানিয়েছেন দক্ষিণ অঞ্চল উন্নয়ন পরিষদ কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটি খুলনার নেতৃবৃন্দ। তাঁদের এই বিজয় সমগ্র দক্ষিণাঞ্চলের ক্রীড়াঙ্গণসহ সার্বিক উন্নয়নে অগ্রনী ভূমিকা পালন করবে বলে নেতৃবৃন্দ আশাবাদ ব্যক্ত করেন। বিবৃতিদাতা নেতৃবৃন্দ হলেন পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা নেতা আলহাজ্ব শেখ মুহা. সাহেব আলি, বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব এ্যাডভোকেট আব্দুল মালেক, আলহাজ্ব রোটাঃ ইঞ্জিনীয়ার রুহুল আমিন হাওলাদার, রোটাঃ আলহাজ্ব মোশাররফ হোসেন, এম এস রাশিদা করিম, কাজী এনামুল হক টুকু, আলহাজ্ব সৈয়দ নাসরাত আলী দুলাল, আলহাজ্ব আফরোজা আক্তার মঞ্জুসহ পরিষদের নেতা আলহাজ্ব শেখ আবেদ আলী, ফিরোজ আলম খান, আলহাজ্ব রোটাঃ আলতাফ হোসেন, সাবেক প্যানেল মেয়র মনিরুজ্জামান খান খোকন, তসলিম আহমেদ আশা, এ্যাডেেভাকেট আব্দুল মজিদ, সাংবাদিক আলহাজ্ব আবু হেনা মুক্তি, অধ্যাপক এম. এ. মান্নান বাবলু, শেখ সারাফাত আলী দুলু, ইঞ্জিঃ খান আবুল হাসান, ইঞ্জিঃ কাজী এনায়েত হোসেন, প্রকৌশলী রফিকুল আলম সরদার, আলহাজ্ব আব্দুর রহমান, চিত্র সাংবাদিক দেবব্রত রায়, কহিনুর কাঞ্চন, এ্যাড. মাসুম বিল্লাহ, আসমা আক্তার রিতা, হুমায়ুন কবির বালি, সাবেক সেনা কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম, তাসলিমা আক্তার লিমা, এস কে এম ডি বাহালুল আলম, মনির হোসেন, সৈয়দা সাহানা নাসরিন, শিরিনা পারভীন, এস এম নাজমুল হক খোকন, ইসরাত জাহান জিনাত, মোঃ আনোয়ার হোসেন, বাবুল হোসেন, সাকিল হোসেন প্রমুখ।

হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের অনুদানের চেক বিতরণ

বিজ্ঞপ্তি : মন্দিরের সংস্কার ও অসহায় ব্যক্তিদের করোনাকালিন সময়ে কিছুটা আর্থিক সহযোগিতা প্রদানের লক্ষ্যে হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের উদ্যোগে অনুদান প্রদানের চেক বিতরণ করা হয়। শনিবার সন্ধ্যায় রাজাপুরস্থ খুলনা সেবাশ্রমে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে রূপসা, তেরখাদা ও দিঘলিয়া উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের কয়েকটি মন্দির ও অসহায় ব্যক্তিদের মাঝে অনুদান প্রদান করা হয়। চেক বিতরণ উপলক্ষ্যে এক আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ প্রফেসর সাধন রঞ্জন ঘোষ প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের ট্রাস্টি নান্টু রায়ের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন মহানগর আওয়ামীলীগ নেতা শ্যামল সিংহ রায়, মহানগর যুবলীগের আহবায়ক শফিকুর রহমান পলাশ, খুলনা টিভি রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি মল্লিক সুধাংশু এবং খুলনা সেবাশ্রমের অধ্যক্ষ ধ্রুব মহারাজ। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সাংবাদিক কানাই লাল মন্ডল। এ সময়ে বিভিন্ন মন্দিরের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, বিশিষ্ঠ ব্যক্তিবর্গ এবং অনুদানপ্রাপ্তরা উপস্থিত ছিলেন। করোনাকালিন সময়ে অসহায় মানুষের হাতে অনুদান পৌছে দেয়ার এমন মহোৎ উদ্যোগ গ্রহণ করায় বক্তারা বর্তমান সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন ও তার দীর্ঘায়ু কামনা করেন। বক্তারা বলেন, শারদীয় দুর্গা পুজোর আগে এমন উদ্যোগ মন্দির কমিটি ও আর্থিক ভাবে অস্বচ্ছল ব্যক্তিদেও কিছুটা হলেও উপকারে আসবে।

হিন্দুবৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের বস্ত্র বিতরণ

বিজ্ঞপ্তি : হিন্দুবৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ আড়ংঘাটা থানা শাখার উদ্যোগে অসচ্ছল ব্যক্তিদের মধ্যে নতুন বস্ত্রবিতরন অনুষ্ঠান গতকাল শনিবার বিকাল ৫ টায় আড়ংঘাটা শীতলাতলা মাতৃমন্দিরে থানা সভাপতি বাবু দেবাশিষ মন্ডল উজ্জল এর সভাপতিত্বেঅনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন হিন্দুবৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ এর খুলনা মহানগর শাখার সভাপতি বীরেন্দ্রনাথ ঘোষ, বিশেষ অতিথি ছিলেন সাধারন সম্পাদক গোপাল চন্দ্র সাহা, সহ সভাপতি সমর কুন্ডু, থানা সাধারন সম্পাদক অসীত মন্ডলের পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন প্রশান্ত কুমার সানা, রঘুনাথ ঘোষ, বিশ্বজিত দে, শুভ কুন্ডু, আশিক কবিরাজ, অধ্যাপক সুকৃতি মন্ডল, দেবদাস মন্ডল দেবু, দেবদাস হালদার, চন্দ্রন বিশ্বাস, সনজিত সরকার, পিন্টু, পবিত্র মন্ডল, দেবাশিষ বিশ্বাস, চন্দ্রশেখর হালদার, কালিপদ রায়, পরিমল বাড়ই, প্রদীপ বিশ্বাস, কানন বালা মন্ডল, রন্জু কুমার প্রমুখ।

খুলনায় বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবস পালিত

বিজ্ঞপ্তি : ‘সবার জন্য মানসিক স্বাস্থ্য: অধিক বিনিয়োগ, অবাধ সুযোগ’ এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে গতকাল পালিত হয়েছে বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবস ২০২০। দিবসটি উপলক্ষে দেশব্যাপী নানা আয়োজন বাস্তবায়ন করছে ব্র্যাক। দেশের অন্যান্য স্থানের মতো খুলনায়ও পালিত হয়েছে দিবসটি। ব্র্যাক মাইগ্রেশন প্রোগ্রামের উদ্যোগে আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বিদেশফেরত অভিবাসী, ব্র্র্যাক মাইগ্রেশন প্রোগ্রামের আওতাধীন সেবাগ্রহিতা, বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের কাউন্সিলর এবং খুলনা মহিলা টেকনিক্যাল ট্রেনিং সেন্টার এর অধ্যক্ষ ও প্রশিক্ষক। এছাড়া মানসিক সংকটে ভোগা বিদেশফেরত অভিবাসীদের বিনামূল্যে কাউন্সেলিং সেবাও প্রদান করা হয়। মানসিক স্বাস্থ্য বিষয়ে সচেতনতা বৃদ্ধি করার লক্ষ্যে এদিন সকাল ১০টায় খুলনার নিরালায় অবস্থিত ব্র্যাক মাইগ্রেশন প্রোগ্রামের কার্যালয়ে একটি সেমিনারের আয়োজন করা হয়। সেমিনারে বক্তব্য রাখেন খুলনা মহিলা টেকনিক্যাল ট্রেনিং সেন্টারের অধ্যক্ষ মো. রিয়াজ শরিফ। এছাড়া এ অন্ঠুানে আরো উপস্থিত ছিলেন খুলনা মহিলা টেকনিক্যাল ট্রেনিং সেন্টারের প্রশিক্ষক নিখিল চন্দ্র সরকার, বিদেশফেরত অভিবাসী, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি এবং খুলনা ব্র্যাক মাইগ্রেশন প্রোগ্রামের কর্মীরা। সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপনা করেন খুলনা ব্র্যাক মাইগ্রেশন প্রোগ্রামের সাইকো স্যোসাল কাউন্সেলর ফারহানা তাবাচ্ছুম। আলোচনা অনুষ্ঠানে বক্তারা মানসিক স্বাস্থের গুরুত্ব, মানসিক স্বাস্থ্যের উন্নয়নে পরামর্শ ও ভ’মিকা রাখা সহ মানসিক স্বাস্থ্য সংকটের ভয়াবহতার চিত্র তুলে ধরার পাশাপাশি এ সংকট উত্তরণে গৃহিত পদক্ষেপের কথা তুলে ধরেন।

মেডিকেল এসোসিয়েশন’র ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প অনুষ্ঠিত

বিজ্ঞপ্তি : বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশন, খুলনা জেলা শাখা ও নিজ বাড়ি নিজ হাসপাতাল করোনা মুক্ত বাংলাদেশ এর উদ্যোগে ঔষধ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান ইউনিহেলথ্ ইউনিমেড এর সহযোগিতায় আগামী ১২ ও ১৩ অক্টোবর সকাল ০৯ টা-বিকাল ০৪ টা পর্যন্ত বিনামূল্যে মেডিকেল ক্যাম্প অনুষ্ঠিত হবে। বাংলাদেশের স্বনামধন্য বক্ষ ব্যাধি বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা.মোহাম্মদ রাশেদুল হাসান এবং তার চিকিৎসা টিম ক্যাম্পে রোগী দেখবেন। উক্ত ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্পে নিম্নোক্ত সুবিধা দেওয়া হবে। সকল প্রকার রোগের বিনামূল্যে চিকিৎসা প্রদান করা হবে। রোগীদের বিনামূল্যে ঔষধ প্রদান করা হবে। রোগীদের বিনামূল্যে প্রয়োজনীয় মেডিকেল চেকআপ করা হবে। যে কোন রোগীর ক্ষেত্রে প্রয়োজনে ২৪ ঘন্টা অক্সিজেন সার্পোট প্রদান করা হবে। জ্বর ও সর্দি কাশির উপসর্গ আছে এমন রোগীদের পৃথক রুমে চিকিৎসা দেওয়া হবে। চিকিৎসা গ্রহনের জন্য সকল কে পূর্বেই এই নম্বরে (০১৯২৯-৯৯৩৪৬১ ও ০১৭২৯-৩০৩০৮৪) নিবন্ধন করার জন্য অনুরোধ জানাচ্ছি।

মহানগর যুবলীগের শোক

বিজ্ঞপ্তি : বিশিষ্ট সমাজ সেবক, ব্যবসায়ী ও খুলনা জেলা আইনজীবি সমিতির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট কে এম ইকবাল হোসেনের ফুপা এম এ মালেক ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না … রাজিউন)। দীর্ঘদিন দুরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত হয়ে তিনি নগরীর টিবি ক্রস রোডের নিজ বাস ভবনে মৃত্যু বরণ করেন। বিকাল সাড়ে চারটায় খুলনার আলিয়া মাদ্রাসায় তার নামাজের জানাযা অনুষ্ঠিত হয়েছ। পরে নিরালা কবর স্থানে দাফন সম্পন্ন হয়েছে। তার মৃত্যুতে গভীর শোক ও সমবেদনা জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছে নগর যুবলীগের নেতৃবৃন্দ। বিবৃতিদাতা নেতৃবৃন্দরা হলেন নগর যুবলীগের আহবায়ক সফিকুর রহমান পলাশ ও যুগ্ম আহবায়ক শেখ শাহাজালাল হোসেন সুজন সহ নগর যুবলীগের সকল নেতৃবৃন্দ। বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ মরহুমের বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করেন। পাশাপাশি শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানিয়েছেন নেতৃবৃন্দ। এম এ মালেক দাকোপ কয়রাসহ দক্ষিণ অঞ্চলের উন্নয়নে ৩২নং পোল্ডার রক্ষার আন্দোলনে অগ্রনী ভূমিকা পালন করেন।

খুলনা বিএনপি’র উদ্বেগ প্রকাশ

বিজ্ঞপ্তি : খুলনা মহানগর ও জেলা বিএনপি নেতৃবৃন্দ বলেছেন, বর্তমান সরকার জনগনের ভোট ছাড়াই ক্ষমতা দখল করে সমগ্র নির্বাচনী ব্যবস্থাই ধ্বংস করে দিয়েছে। জাতীয় সংসদ নির্বাচন, স্থানীয় সরকার নির্বাচনসহ সকল নির্বাচনেই পুলিশ, প্রশাসন, দল, গুন্ডা, সন্ত্রাসী সব যেন মিলেমিশে একাকার থাকে। সরকারি দলের প্রার্থীর অনুকুলে সমস্ত রাষ্ট্রযন্ত্র ব্যবহারের মাধ্যমে বিরোধী দলীয় প্রার্থীকে নির্বাচনী মাঠ থেকে তুলে দিয়ে একতরফা পরিবেশ সৃষ্টির মাধ্যমে জনগনের ভোটের অধিকার হরন করা হচ্ছে সরকারের মুল টার্গেট। পাইকগাছা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনেও সেই কুপ্রবৃত্তি থেকে বেড়িয়ে আসতে পারেনি আওয়ামী লীগ সরকার। অবিলম্বে নির্বাচন কমিশনের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা, পুলিশ প্রশাসন, সিভিল প্রশাসনসহ নির্বাচনসহ নির্বাচন ব্যবস্থার সাথে সম্পৃক্ত সকলকে নির্বাচনী পরিবেশ সঠিক পথে পরিচালিত করার জন্য বিএনপির পক্ষ থেকে আহবান জানানো হয়েছে। খুলনা পাইকগাছা উপজেলা পরিষদের উপ-নির্বাচনে সরকারি দলের অব্যাহত সন্ত্রাস ও নির্বাচনী আচরন ভঙ্গের করনীয় নির্ধারনে ১০ অক্টোবর শনিবার দুপুর ১২টায় কেডি ঘোষ রোডস্থ দলীয় কার্যালয়ে খুলনা মহানগর ও জেলা বিএনপির যৌথ সভা বক্তারা এসব কথা বলেন। জেলা বিএনপির সভাপতি অ্যাড, শফিকুল আলম মনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বক্তারা আরও বলেন, ৪ অক্টোবর ২০২০ নির্বাচনী প্রচারনার দিন থেকে বিএনপির প্রার্থীর ডা. আব্দুল মজিদের নিজ ইউনিয়ন লস্করসহ বিভিন্ন এলাকায় দফায় দফায় সন্ত্রাসী হামলা সংগঠিত হয়েছে। জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক শামসুল আলম পিন্টু, ছাত্রদল থানা শাখার যুগ্ম আহবায়ক নাজমুল হুদা মিন্টুসহ ১০জন আহতের ঘটনায় থানায় অভিযোগ দিলেও থানা পুলিশ মামলা গ্রহন করেনি এবং এছাড়া ৩ অক্টোবর বিএনপির প্রার্থী তার পিতার কবর জিয়ারত করা কালীন সরকার দলীয় সন্ত্রাসীরা হামলা চালিয়েছে। এছাড়া পাইকগাছা উপজেলার ১০ ইউনিয়নে বিএনপির সভাপতি সম্পাদকসহ বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মীদের বাড়িতে পুলিশী হয়রানির কারনে তারা অনেকেই বাড়ি ছাড়া হয়েছে। সম্ভাব্য এজেন্টদের নানভাবে ভয়ভীতি প্রদর্শন করা হচ্ছে যাতে করে তারা এজেন্ট হতে অস্বীকৃতি জানায়। খুলনা-৬ আসনের (পাইকগাছা-কয়রা) সংসদ সদস্য প্রতিদিনই উন্নয়ন পরিকল্পনা সভার নামে ইউনিয়নে ইউনিয়নে দলীয় কর্মকান্ডের নামে নির্বাচনী প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছেন। যা নির্বাচনী আচরনবিধি লঙ্ঘনের সামিল। সভায় আগামী ১২ অক্টোবর পাইকগাছা প্রেসক্লাব মিলনায়তনে বিএনপির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও সাবেক সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম মঞ্জুর উপস্থিতিতে খুলনা জেলা ও মহানগর বিএনপির নেতৃবৃন্দের অংশগ্রহনে চলমান পরিস্থিতি নিয়ে সংবাদ সম্মেলন ও একই সাথে বিএনপির প্রার্থীর ধানের শীষ প্রার্থীর পক্ষে গনসংযোগে অংশগ্রহন করার সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়। সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন কেন্দ্রীয় বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ও সাবেক সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম মঞ্জু। এছাড়া বক্তব্য রাখেন মহানগর বিএনপির সাধারন সম্পাদক ও সাবেক সিটি মেয়র মনিরুজ্জামান মনি, এ্যাড. ফজলে হালিম লিটন, স ম আব্দুর রহমান, অধ্যক্ষ তারিকুল ইসলাম, মনিরুজ্জামান মন্টু, শেখ আব্দুর রশিদ, অ্যাড, শরিফুল ইসলাম, এ্যাড. মোমরেজুল ইসলাম, মোল্লা খাইরুল ইসলাম, সিরাজুল ইসলাম নান্নু, জি এম কামরুজ্জামান টুকু, ডা, আব্দুল মজিদ, এ্যাড. কে এম শহিদুল ইসলাম, মেহেদী হাসান দিপু, ইউসুফ হারুন মজনু, সাজ্জাদ হোসেন পরাগ, ওয়াহিদুজ্জামান রানা, হাসানুর রশিদ মিরাজ হাফেজ বাশার, এ্যাড, আব্দুস সাত্তার, জি এম আসাদুজ্জামান, নাজমুল সাকিব পিন্টু, জসিম উদ্দীন লাবু, শামসুল বারিক পান্না, এনামুল হক সজল, মনিরুজ্জামান লেলিন প্রমূখ।

মকবুল হোসেন মিন্টু ‘সম্পাদক ফোরামে’র নির্বাহী সদস্য

বিজ্ঞপ্তি :
খুলনা প্রেস ক্লাব ও খুলনা সাংবাাদিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি, ‘দৈনিক রাজপথের দাবি’র সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা মকবুল হোসেন মিন্টু নবগঠিত ‘বাংলাদেশ সম্পাদক ফোরামে’র নির্বাহী সদস্য হয়েছেন। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা সমুন্নত রেখে সংবাদপত্র শিল্পের বিরাজমান সংকট উত্তরণে গত বুধবার ঢাকার একটি হোটেলে অনুষ্ঠিত সভায় ‘বাংলাদেশ সম্পাদক ফোরামে’র আহ্বায়ক ও উপদেষ্টা কমিটি গঠন করা হয়। এতে ঢাকার ২৫টি দৈনিকের সম্পাদক এবং ৮বিভাগীয় শহরের প্রতিষ্ঠিত পত্রিকার সম্পাদক ভার্চুয়ালি অংশগ্রহণ করেন। প্রাথমিকভাবে আহ্বায়ক কমিটির সদস্য হিসেবে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের এবং দেশের উন্নয়ন সহযোগী হিসেবে ঢাকাসহ বিভাগীয় ও জেলা শহরগুলো থেকে নিয়ামিত প্রকাশিত দৈনিকের সম্পাদক বিবেচনা করা হয়েছে। সভায় ২২সদস্যের আহ্বায়ক কমিটি ও ৭ সদস্যের উপদেষ্টা কমিটি গঠিত হয়। সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, দেশে করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে ঢাকায় জাতীয় সম্মেলনের আয়োজন করে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হবে। ফোরামের উপদেষ্টা পরিষদে আছেন ঃ ডেইলি অবজারভার সম্পাদক ইকবাল সোবহান চৌধুরী, আমাদের কুমিল্লা সম্পাদক নাঈমুল ইসলাম খান, ভোরের কাগজ সম্পাদক শ্যামল দত্ত, বাংলাদেশ জার্নাল সম্পাদক শাজাহান সরদার, বাংলাদেশের খবর সম্পাদক আজিজুল ইসলাম ভূঁইয়া, ভোরের ডাক সম্পাদক কে এম বেলায়েত হোসেন ও বাংলাদেশ পোস্ট সম্পাদক শরিফ সাহাবুদ্দিন। কমিটিতে ‘স্বদেশ প্রতিদিন’এর সম্পাদক রফিকুল ইসলাম রতনকে আহ্বায়ক এবং ‘আলোকিত বাংলাদেশ’ এর ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মাহমুদ আনোয়ার ও ‘আমাদের নতুন সময়’ সম্পাদক নাসিমা খান মন্টিকে যুগ্ম আহ্বায়ক করা হয়েছে। সদস্য সচিব হয়েছেন ‘আজকালের খবর’ সম্পাদক ফারুক আহমেদ তালুকদার।

ক্লাইমেন্ট এ্যাকশন ফোরাম গঠণ

বিজ্ঞপ্তি :
মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন ও জলবায়ু পরিবর্তনের ঝুঁকি মোকাবেলায় বীরমুক্তিযোদ্ধাদের সক্রিয় অংশগ্রহনের মাধ্যমে বাংলাদেশকে উন্নত দেশে পরিণত করতে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা বিনির্মানে সরাসরি ভূমিকা রাখার অঙ্গিকার ব্যক্ত করে গঠিত হল বাংলাদেশ ফিড্রম ফাইটার্স ক্লাইমেন্ট এ্যাকশন ফোরাম। ফোরামের উদ্যেশ্য তৃণমূল পর্যায়ে মুক্তিযোদ্ধাদের সংগঠিত করা। স্কুল পর্যায়ে স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধাদের সরাসরি উপস্থাপনায় মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস তুলে ধরা। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিষয়ে তরুণ প্রজন্মেদের উদ্বুদ্ধ করা। সরকারী এবং বেসরকারী উদ্যোগে পরিচালিত সকল উন্নয়ন প্রকল্পের সঠিক বাস্তবায়নের ওয়াচ ডগের ভূমিকা পালন করা এবং তার বাস্তব চিত্র যথাযথ কর্তৃপক্ষ, সরকার ও মিডিয়ার কাছে তুলে ধরা। এভাবে বললেন ক্লাইমেন্ট এ্যাকশন ফোরামের নবগঠিত কমিটি। গতকাল শনিবার সোনাডাঙ্গায় রাজটিক কার্যালয়ের সেমিনার কক্ষে জলবায়ু পরিবর্তনের ক্ষতি মোবাকেলায় করণীয় বিষয়ে জনগণকে সচেতনা করার লক্ষে এক সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন আহবায়ক বীর মুক্তিযোদ্ধা মোড়ল নূর মোহাম্মদ। অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির জেলা কমিটির সাধারন সম্পাদক সাংবাদিক মহেন্দ্রনাথ সেন। সভায় বক্তারা বলেন, উন্নত বাংলাদেশ গড়তে সরকার ও উন্নয়ন সহযোগীদের আর্থিক সহযোগীতায় সকল প্রকল্প প্রণয়নে সরাসরি ভূমিকা রাখবে। সভায় বীর মুক্তিযোদ্ধা মোড়ল নূর মোহাম্মদকে আহবায়ক, বীর মুক্তিযোদ্ধা অঅমিনুল ইসলাম, বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ আনোয়ারুল হক যুগ্ম -আহবায়ক ও বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ ইবারত আলী হাওলাদারকে সদস্য সচিব করে নির্বাহী সদস্য হিসাবে বীর মুক্তিযোদ্ধা মহিউদ্দিন মোড়ল, বীর মুক্তিযোদ্ধা এস এম কবিরুল ইসলাম, বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ লিয়াকত আলী, বীর মুক্তিযোদ্ধা তারাপদ বিশ্বাস, বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ জাফর আহমেদ, বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ আব্দুল ওয়াদুদ খান, বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ আলী আকবর এর নাম প্রস্তাব করে ১১ সদস্যবিশিষ্ট কমিটি গঠণ করা হয়। সভায় বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়।

খুলনা প্রেসক্লাব লাইব্রেরিতে প্রেস কাউন্সিলের ৪১টি বই প্রদান

বিজ্ঞপ্তি :
মুজিববর্ষ উপলক্ষে খুলনা প্রেসক্লাবের লাইব্রেরিতে ৪১টি বই উপহার হিসেবে প্রদান করেছে বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিল। গতকাল শনিবার বেলা ১১টায় খুলনা প্রেসক্লাবের হুমায়ুন কবীর বালু মিলনায়তনে ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বইগুলো হস্তান্তর করা হয়। খুলনা প্রেসক্লাবের সভাপতি এস এম নজরুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে ভার্চুয়াল মাধ্যমে যোগদান করে বক্তৃতা করেন বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের চেয়ারম্যান বিচারপতি মোহাম্মদ মমতাজ উদ্দিন আহমেদ। বিশেষ অতিথি অতিথি হিসেবে যোগদান করে বক্তৃতা করেন বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের সদস্য ইকবাল সোবহান চৌধুরী। বইগুলোর মধ্যে রয়েছে, বঙ্গুবন্ধু শেখ মুজবিুর রহমানের জীবন ও রাজনীতি (১ম ও ২য় খন্ড), ৭ই মার্চের ভাষণ কেন বিশ্ব-ঐতিহ্য সম্পদ, বঙ্গবন্ধুর কারাজীবন, ৬ দফার ৫০ বছর, বঙ্গবন্ধুর অর্থনৈতিক উন্নয়ন দর্শণ জাতীয়করণনীতি এবং প্রথম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা, স্মৃতি ১৯৭১ (২য়, ৩য় ও ৪র্থ খন্ড ), স্বাধীনতার পক্ষে বঙ্গবন্ধু পরিপ্রেক্ষিত ১৯৭০ এর নির্বাচন, বাংলাদেশ স্বাধীনতা কূটনৈতিক যুদ্ধ, কারাগারের রোজনামচা, চৎরংড়হ উরধৎরংব, মুক্তিযুদ্ধ বঙ্গবন্ধু ও বাংলা একাডেমী, বেজে ঔঠে সাইরেন, ঞযব ঠড়রপব ড়ভ ঋৎববফড়স, মুক্তির সংগ্রামে চাপাইনবাবগঞ্জ, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু, মুক্তি সংগ্রামে মেহেরপুর, বাংলাদেশ সরকার ১৯৭১, বাংলা ও বাঙালির ইতিহাস চুতর্থ খন্ড (৩য়, ৪র্থ ও ৫ম পর্ব), অ ডধৎ ঐবৎড়রহব ও ঝঢ়বধশ, ইধষষধফ ড়ভ ড়ঁৎ ঐবৎড় ইধহমধনধহফঁ, ঞযরং ধিং জধফরড় ইধহমষধফবংয, মুক্তিযুদ্ধের আঞ্চলিক ইতিহাস রংপুর, বঙ্গবন্ধুর জীবনকথা, মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় প্রাণদানকারী সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী, মানবতা বিরোধী অপরাধ বিচার আন্দোলন, বাংলাদেশের কবিতা ও উপন্যাস মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, রাজনীতিতে হাতেখড়ি ও কলকাতায় শেখ মুজিব, বঙ্গবন্ধুর আন্দোলন কৌশল ও হরতাল, বঙ্গবন্ধু ও ভাষা আন্দোলন, গণ মাধ্যমের লড়াই, অসমাপ্ত আত্মজীবনী, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইন (২০০৬, ২০০৯, ২০০১), আমার দেখা নয়াচীন, সংবাদপত্র বিষয়ক আইন(জাতীয় সম্প্রচার নীতিমালা ২০১৪), বাংলাদেশের সংবিধান, আধুনিক বাংলা অভিধান। অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন খুলনা প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি মকবুল হোসেন মিন্টু, এ কে হিরু, শেখ আবু হাসান ও এস এম হাবিব, সাবেক সাধারণ সম্পাদক এস এম জাহিদ হোসেন, ক্লাবের যুগ্ম-সম্পাদক এস এম কামাল হোসেন, কোষাধ্যক্ষ সোহেল মাহমুদ, নির্বাহী সদস্য হাসান আহমেদ মোল্লা ও মো. রাশিদুল ইসলাম, ক্লাব সদস্য দেবনাথ রনজিৎ কুমার, মোজাম্মেল হক হাওলাদার, সোহরাব হোসেন, মো. হুমায়ুন কবীর, ওয়াহেদ-উজ-জামান বুলু, শেখ মাহমুদ হাসান সোহেল, হেদায়েৎ হোসেন মোল্লা, কাজী শামীম আহমেদ, সুনীল কুমার দাসসহ অন্যান্য সাংবাদিকবৃন্দ।

মহানগর শ্রমিক লীগের মতবিনিময় সভা

বিজ্ঞপ্তি :
জাতীয় শ্রমিক লীগের ৫১ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী সফল করার লক্ষ্যে গতকাল সন্ধ্যায় সংগঠনের কার্যালয়ে খুলনা মহানগর শ্রমিক লীগের সাথে সড়ক ও জনপথ শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়ন খুলনা জেলা সংসদের নেতৃবৃন্দের মত বিনিময় অনুষ্ঠিত হয়। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন খুলনা মহানগর শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক রনজিত কুমার ঘোষ। সভাপতিত্ব করেন সড়ক ও জনপথ শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়ন খুলনা জেলা সংসদ এর সভাপতি আলহাজ্ব গোলাম মোস্তফা রনি। সভায় ১২ অক্টোবর জাতীয় শ্রমিক লীগের ৫১ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষ্যে ১২ অক্টোবর খুলনা মহানগর শ্রমিক লীগের সকল কর্মসূচীতে অংশ গ্রহণের সিদ্ধান্ত হয়। এই সময় উপস্থিত ছিলেন খুলনা মহানগর শ্রমিক লীগের নেতা মল্লিক নওশের আলী, মোল্লা মাহাবুবুর রহমান, আব্দুর রহিম খান, মোঃ জয়নাল আবেদিন, শরীফ মোর্ত্তজা আলী, মুন্সী ইউনুস, শেখ মোঃ রমজান, মোঃ মনিরুল ইসলাম, মোঃ তারিকুল ইসলাম বারেক, মোঃ নূর ইসলাম, মোঃ আজিম উদ্দিন, মোঃ সাদ্দাম হোসেন, সড়ক ও জনপথ কর্মচারী ইউনিয়ন খুলনা জেলা সংসদের সাধারণ সম্পাদক মীর আব্দুল জব্বার, মোঃ মঈনুল ইসলাম, মোঃ আজাদ হোসেন, মোঃ শহিদুল ইসলাম, মোঃ রবিউল ইসলাম প্রমুখ।

মহানগর জাতীয় যুব সংহতি মানববন্ধন

বিজ্ঞপ্তি :
জাতীয় যুব সংহতির কেন্দ্রীয় ঘোষিত সারা বাংলাদেশে ধর্ষন ও নারী নির্যাতন এর প্রতিবাদে গতকাল সকাল ১১ টায় খুলনা প্রেস ক্লাবের সামনে প্রতিবাদ সমাবেশ ও মানব বন্ধন, জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় সদস্য ও খুলনা মহানগর জাতীয় যুব সংহতির সভাপতি শেখ মোঃ তোবারেক হোসেন তপুর সভাপতিত্ত্বে জাতীয় যুব সংহতির কেন্দ্রীয় সদস্য খুলনা মহানগর জাতীয় যুব সংহতির সিনিয়র যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক মোঃ মাসুদ রানার পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন জাপার কেন্দ্রীয় সদস্য ও জাতীয় যুব সংহতির কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি ডাঃ সৈয়দ আবুল কাশেম, জাপার কেন্দ্রীয় সদস্য এ্যাড. এস এম মাসুদুর রহমান, জাপার কেন্দ্রীয় সদস্য এস এম এম এসাদুজ্জামান ডলার, জাপার কেন্দ্রীয় সদস্য মোঃ ওদুত মোড়ল, জাপা নেতা মোঃ রাসেল হোসেন, জাপা নেতা মোঃ মোতাহার উদ্দিন, খুলনা মহানগর জাতীয় যুব সংহতির সহ-সভাপতি দেলোয়ার হোসেন লালু, হানিফ সিকদার, সাংগঠনিক সম্পাদক রেজা মহাসিন। জাপা নেতা হাফিজুর রহমান বাবলু, যুব নেতা যথাক্রমে মোঃ বেল্লাল হোসেন, গাজী মোশারফ হোসেন, আখতার হোসেন, রাজন দাস, মোঃ জাকির হোসেন, মোঃ মামুন, মোঃ কামরুল, আকবর হোসেন, মোঃ জহির, মোঃ রানা, ইমরান হোসেন, ছাত্র নেতা তপু রায়হান, যুব নেতা মোঃ রুহুল আমিন, মোঃ জাহিদ হোসেন, মোঃ এস কে রনি, মোঃ জাহিদ হোসেন প্রমুখ।

শরণখোলায় অজগর সাপ উদ্ধার


দেশ প্রতিবেদক, শরণেখোলা :
বাগেরহাটের শরণখোলার উত্তর রাজাপুর গ্রাম থেকে একটি অজগর সাপ উদ্ধার করে বনে ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছে। শনিবার দুপুর দুইটার দিকে পুর্ব সুন্দরবনের চাঁদপাই রেঞ্জের ধানসাগর স্টেশনের ২৫নম্বর কম্পার্টমেন্টের বনে সাপটি অবমুক্ত করা হয়। ধানসাগর স্টেশন কর্মকর্তা (এসও) মো. ফরিদুল ইসলাম জানান, শরণখোলা উপজেলার রায়েন্দা ইউনিয়নের বনসংলগ্ন উত্তর রাজাপুর গ্রামের মৎস্য ব্যবসায়ী ইদ্রিস হাওলাদারের পুকুরে সাপটি দুইদিন ধরে অবস্থান করছিলো। ওই গৃহস্থের একটি হাঁসও খেয়েছে অজগরটি। এই খবর পেয়ে সকাল ১১টার দিকে নাংলী ফরেস্ট ক্যাম্পের অধীন বনব্যবস্থাপনা কমিটি কমিউনিটি প্যাট্রেলিং গ্রুপের (সিপিজি) দলনেতা লুৎফর রহমানসহ এলাবাসী জাল দিয়ে সাপটি ধরে বনবিভাগের কাছে হস্তান্তর করেন। অজগরটি লম্বায় ৯ফুট এবং ওজন প্রায় ১০কেজি বলে জানান এসও ফরিদুল। অজগরটি অবমুক্তকালে পূর্ব বনবিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএফও) মুহাম্মদ বেলায়েত হোসেন ও চাঁদপাই রেঞ্জের এসিএফ এনামুল হক উপস্থিত ছিলেন।

স্কুল ছাত্রীকে যৌনহয়রানির অভিযোগে প্রধান শিক্ষক গ্রেপ্তার

দেশ প্রতিবেদক, সাতক্ষীরা :
সাতক্ষীরার আশাশুনিতে ষষ্ঠ শ্রেণির স্কুল ছাত্রীকে যৌনহয়রানির অভিযোগে এক প্রি ক্যাডেট স্কুলের প্রধান শিক্ষককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। শুক্রবার সন্ধ্যায় আশাশুনি উপজেলার কোদন্ডা গ্রাম থেকে তাকে আটক করা হয়। গ্রেপ্তারকৃত শিক্ষক মঈনুর ইসলাম আশাশুনি উপজেলার কোদন্ডা গ্রামের বাবর আলী গাজীর পুত্র এবং আশাশুনি কেবিএ প্রি ক্যাডেট স্কুলের প্রধান শিক্ষক। পুলিশ জানায়, প্রধান শিক্ষক মঈনুর ইসলাম শুক্রবার সকাল ১০ টায় ওই স্কুল ছাত্রীর বাড়িতে তার বাবা-মার অনুপস্থিতির সুযোগে বাড়িতে ঢুকে তাকে জোরপূর্বক যৌনহয়রানি করে। এসময় স্কুলছাত্রীর চিৎকারে প্রতিবেশীরা ছুটে আসলে প্রধান শিক্ষক দ্রুত ঘটনাস্থল ত্যাগ করেন। এঘটনায় ভুক্তভোগি ওই স্কুলছাত্রী নিজে অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে আশাশুনি থানায় একটি মামলা দায়ের করে। যার মামলা নং-১০। মামলা দায়েরর পর পুলিশ সন্ধ্যায় অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষককে গ্রেপ্তার করে। এই ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তসহ অপরাধীর সর্বোচ্চ শাস্তির দাবি জানিয়েছেন ভুক্তভোগী স্কুল ছাত্রীর বাবা। আশাশুনি থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ গোলাম কবির বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, এ ঘটনায় ইতিমধ্যে অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তিনি আরো জানান, সুষ্ঠু তদন্তসহ অপরাধীর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করে আসামীকে বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করা হবে।

ফকিরহাটে ইজিবাইক ছিনতাই

দেশ প্রতিবেদক, ফকিরহাট :
বাগেরহাটের মোল্লাহাট উপজেলার জয়ডিহি এলাকা থেকে চালককে চেতনানাশক ঔষধ স্প্রে অথবা খাবারের সাথে মিশিয়ে সুকৌশলে আ: মান্নান নামের এক চালককে অচেতন করে তার ইজিবাইক নিয়ে পালিয়েছে দুষ্কৃতচক্র। অচেতন অবস্থায় রাস্তার পাশে একটি বাগানের ভেতর স্থানীয়রা দেখতে পেয়ে মোল্লাহাট থানা পুলিশ অবহিত করেন। পরে তাকে উদ্ধার করে ফকিরহাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এনে ভর্তি করে। ঘটনাটি শনিবার দুপুরের দিকে ঘটেছে। ইজিবাইক চালক আ: মান্নান ফকিরহাট উপজেলার ছোট-বাহিরদিয়া এলাকার বাসিন্দা বলে জানা গেছে। এ রিপোর্ট রেখা পর্যন্ত ইজিবাইকের সন্ধান মেলেনি।

ফকিরহাটে মটরসাইকেল চুরি

দেশ প্রতিবেদক, ফকিরহাট :
বাগেরহাটের ফকিরহাট উপজেলা বাহিরদিয়া-মানসা ইউনিয়নের বুড়ির বটতলা এলাকা থেকে একটি এ্যাপাসি লাল রং এর মটরসাইকেল চুরির ঘটনা ঘটেছে। ঘটনাটি শুক্রবার দুপুরে ঘটেছে। স্থানীয়রা জানান, বুড়ির বটতলা এলাকার মহিউদ্দিন শেখের পুত্র সাদিক শেখ তার মটরসাইকেল রেখে নামাজ পড়তে যায়। নামাজ শেষে এসে দেখে তার মটরসাইকেলটি নেই। প্রত্যক্ষদর্শী একজন নারী জানান, মটরসাইকেলটি অজ্ঞাত দুই যুবক নিয়ে পালিয়ে গেছে। উল্লেখ্য, ফকিরহাটে সম্প্রতি বিভিন্ন এলাকা থেকে মটরসাইকেল, ইজিবাইক ও ভ্যান চুরির ঘটনা ঘটেছে।

শার্শায় প্রতিবন্ধী গৃহবধূ ধর্ষণের শিকার

দেশ প্রতিবেদক, বেনাপোল :
শার্শার সেতাই-আমলাই গ্রামে এবার এক প্রতিবন্ধী গৃহবধূ (৩৩) ধর্ষণের শিকার হয়। এ ঘটনায় শুক্রবার শার্শা থানায় মামলা হয়েছে। যশোর জেনারেল হাসপাতালে ধর্ষিতাকে ডাক্তারী পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে। পরিবার ও এলাকাবাসি সূত্রে জানা যায়, সেতাই-আমলাই গ্রামে শারীরিক প্রতিবন্ধী এক গৃহবধূ শুক্রবার ভোররাতে প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে ঘরের বাইরে বের হয়। এসময় একই গ্রামের নুরালী মোড়লের ছেলে আব্দুল গফফার (৪০) তাকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। ধর্ষিতার চিৎকারে তার স্বামী ও স্থানীয়রা হাতে নাতে ধর্ষককে আটক করে। পরে রাজনৈতিক পরিচয়দানকারী প্রভাবশালী মহলসহ ধর্ষকের ভাইয়েরা এসে ধর্ষিতার আত্মীয় স্বজনকে মারধর করে। এ সময় জোরপূর্বক ধর্ষককে ছিনিয়ে নিয়ে যায়। বিষয়টি জানাজানি হলে ধর্ষিতার পরিবারকে হত্যা করার হুমকিও দেয় তারা। পরে প্রতিবন্ধী ওই গৃহবধূ পালিয়ে এসে থানায় মামলা করে। এর পর থেকে নিরাপত্তাহীনতায় ভূগছে গৃহবধূ ও তার পরিবারের সদস্যরা। শার্শা থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) বদরুল আলম খান জানান, শারীরিক প্রতিবন্ধী এক গৃহবধূকে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা হয়েছে। ধর্ষককে আটকের জন্য অভিযান অব্যাহত আছে। ধর্ষিতাকে ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য সকালে যশোর জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ২২ ধারা মোতাবেক ধর্ষিতাকে জবানবন্দী নেওয়া হবে বিকালে।

স্বাস্থ্যবিধি মেনেই দূর্গাপূজা হবে : এমপি নারায়ণ চন্দ্র

দেশ প্রতিবেদক, ডুমুরিয়া :
সাবেক মৎস্য ও প্রানিসম্পদ মন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দ এমপি বলেন, পূজা হবে স্বাস্থ্যবিধি মেনেই। এখানে কোন প্রকার আড়ম্বর বা অতিরিক্ত কোন কিছু করা ঠিক হবে না। কারণ আমরা এখনো করোনা পরিস্থিতি থেকে মুক্ত হতে পারিনি। তাই ধর্মীয় বিধি বিধান মেনে আমাদের এই পূজা উৎসব পালন করতে হবে। কোন ধরনের ভীড় বা জন সমাগম ঘটানো যাবে না। আরুতি প্রতিযোগিতা, ধর্মীয় বা সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজনের কোন সুযোগ নেই। প্যান্ডেল, আলোক সজ্জা এ সব থেকে এবার বিরত থাকতে হবে। শুধুমাত্র মা’য়ের পূজা ও অঞ্জলি, মন্ত্রপাঠ এইগুলো আমাদের শাস্ত্র মতেই পালন করতে হবে। সকলকে মাক্স ব্যবহার ও হাত ধোয়ার পরিবেশ করতে হবে। শনিবার বিকেলে ডুমুরিয়া কেন্দ্রীয় কালিবাড়ি মঠ মন্দির কমিটি আয়োজিত আসন্ন দূর্গা পূজা উপলক্ষ্যে অনুষ্ঠিত এক সমন্বয় সভায় তিনি এ কথা বলেন। সাবেক মন্ত্রীর সভাপতিত্বে এবং শিক্ষক রঞ্জন কুমার জোয়ার্দার ও শিক্ষক সুনীল কুমার মন্ডলের সঞ্চলনায় অনুষ্টানে আরও বক্তৃতা করেন ডুমুরিয়া উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভুমি) ডাঃ সঞ্জীব কুমার দাস, ডুমুরিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) রফিকুল ইসলাম, প্রকৌশলী তিমির কুমার মন্ডল, মঠ কমিটির সাধারণ সম্পাদক শিল্পপতি নির্মল চন্দ্র বৈরাগী, শিল্পপতি প্রফুল্ল্য চন্দ্র রায়, সহসভাপতি অনন্ত কুমার কুন্ডু, ইউপি চেয়ারম্যান সুরঞ্জিত কুমার বৈদ্য, অধ্যক্ষ রঞ্জন কুমার তরফদার, অধ্যাপক নারায়ণ চন্দ্র মন্ডল, শিশির কুমার সিংহ, প্রনব রাহা, শিক্ষক দেবাশীষ কুমার চন্দ, তপন কুমার সাহা, অশোক কুমার আচার্য্য, কবি তুষার দত্ত, বিভা রানী হালদার, গৌর চন্দ্র ঢালী, পরিতোষ কুমার বৈরাগী, প্রনব কান্তি সরদার ও প্রদীপ দেবনাথ প্রমুখ।

পাইকগাছায় ধর্ষন মামলার আসামী গ্রেফতার

দেশ প্রতিবেদক, পাইকগাছা :
পাইকগাছার থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে ধর্ষন মামলার আসামী মোস্তাক মিস্ত্রী (২২)কে গ্রেফতার করেছেন। উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার করে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই (নিঃ) এসএম পলাশ হোসেন শুত্রবার রাতে নড়াইল জেলার লোহাগড়া থানা এলাকা থেকে মোস্তাকে গ্রেপতার করেন। সে উপজেলার গদাইপুর ইউপির চেঁচুয়া গ্রামের ফজলু মিস্ত্রীর ছেলে। থানায় দায়ের করা মামলা সুত্রে জানাগেছে, চেঁচুয়া গ্রামের জনি মিস্ত্রীর স্ত্রীকে বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে মোস্তাক আপত্তিকর প্রস্তাব দিয়ে আসছিল। এক পর্যায়ে ঘটনার দিন মোস্তাক ঐ নারীর ইচ্ছার বিরুদ্ধে শারিরিক সম্পর্ক স্থাপন করে তা মোবাইলে ধারণ করে পরবর্তীতে ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেয়। এ ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্থ নারী বাদী হয়ে গত ১০-৬-২০ তারিখে মোস্তাকের বিরুদ্ধে নারী-শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০ (সংশোধনী ২০০৩) এর ৯( ৩)তৎ সহ পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রন আইনে মামলা করেন, যার নং-১৩। এ বিষয়ে ইন্সপেক্টর (ওসি) মোঃ এজাজ শফী জানান, উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার করে এ মামলার আসামীকে গ্রেফতার করে শনিবার সকালে পাইকগাছার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে পাঠানো হয়েছে।

পাইকগাছায় সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেফতার

দেশ প্রতিবেদক, পাইকগাছা :
পাইকগাছা থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে এনআই এ্যাক্টে ১৩৮ এর মামলায় সাজা প্রাপ্ত আসামী অসিত রায় ( ৪৫) কে গ্রেফতার করেছে। শনিবার ভোরে নিজ বসত বাড়ী থেকে থানার এসআই মুনতাসির মাহমুদ অসিতকে গ্রেফতার করেণ। সে উপজেলার সোনাতন কাঠি গ্রামের মৃতঃ বকুল রায়ের ছেলে। (ওসি) মোঃ এজাজ শফী জানিয়েছেন, সিআর -১৭৩/১৭ মামলায় সাজাপ্রাপ্ত পালাতক আসামীকে গ্রেফতার করে শনিবার সকালে আদালতে প্রেরণ হয়েছে।

গাড়ীর তেল খরচ বাঁচিয়ে মসজিদ বানাচ্ছেন মোংলা পৌর মেয়র

দেশ প্রতিবেদক, মোংলা :
দীর্ঘ প্রায় ১০ বছর ধরে মেয়রের দায়িত্ব পালনকালে পৌরসভার গাড়ীর তেল বাবদ খরচের টাকা উত্তোলন করেননি মোংলা পোর্ট পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব মো: জুলফিকার আলী। ওই তেল বাবদ খরচের সঞ্চিত টাকা দিয়ে তিনি নির্মাণ করতে যাচ্ছেন একটি আধুনিক দোতলা মসজিদ। শুক্রবার পৌর নতুন কবরস্থান জামে মসজিদটির নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেন পৌর মেয়র নিজেই। এ সময় ওই মসজিদে উপস্থিত সকল মুসল্লিদের উদ্দেশ্যে মেয়র জুলফিকার আলী বলেন, তিনি মেয়র হিসেবে নির্বাচিত হওয়ার পর হতে এ পর্যন্ত সরকরী বিধি মোতাবেক মেয়রের গাড়ীর জন্য যে পরিমাণ তেল প্রাপ্য তা তিনি কখনও উত্তোলন করেননি। আর তার সেই প্রাপ্য ফান্ড দিয়েই তিনি নির্মাণ করতে যাচ্ছেন একটি অত্যাধুনিকমানের দুইতলা মসজিদ। নির্মাণ ব্যয় ওই টাকায় সম্পন্ন না হলে মেয়র তার ব্যক্তিগত তহবিল থেকে প্রয়োজনীয় অর্থ দান করবেন বলেও জানান তিনি। এ সময় মেয়র আধুনিক ওই মসজিদটির থ্রী-ডি ডিজাইন সকল মুসাল্লীদের দেখান। এছাড়া তিনি আরো ঘোষণা দিয়ে জানান, যেহেতু মসজিদটি পৌরসভার তাই আগামী মাস হতে ঈমাম ও মুয়াজ্জিনের বেতন পৌরসভার ফান্ড থেকে প্রদাণ করা হবে। আর নির্মাণ কাজে সহযোগীতা করবেন পৌরসভার প্রকৌশলীরাই। উপস্থিত মুসল্লী ও এলাকাবাসী এমন মহৎ কাজের জন্য পৌর মেয়র জুলফিকার আলীকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান।

দৌলতপুরে নারী ও শিশু ধর্ষণের প্রতিবাদে মানববন্ধন

দেশ প্রতিবেদক, দৌলতপুর :
নগরীর দৌলতপুরে উত্তরা ব্যাংকের সামনে গতকাল বিকালে দৌলতপুর সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের উদ্যোগে দেশব্যাপি ধর্ষণের প্রতিবাদে মানববন্ধন কর্মসূচী পালিত হয়। সংগঠনের সভাপতি তিলোক কুমার গোস্বামীর সভাপতিত্বে সভা পরিচালনা করেন সংগঠনের সাঃ সম্পাদক অধ্যাঃ হাসিবুরজ্জামান বাবু ও প্রবীর বিশ্বাস। বক্তৃতা করেন ও উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের উপদেষ্টা বীর মুক্তিযোদ্ধা নূর ইসলাম বন্দ, কেসিসি প্যানেল মেয়র এ্যাডঃ মেমরী সুফিয়া রহমান শুনু, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব শাহীন জামাল পন, ৫ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও সমাজ সেবক শেখ মোহাম্মাদ আলী, শেখ মফিজুর রহমান হিরু, ওয়াজেদ আলী মজনু, মাসুদ পারভেজ পাভেল, ফরহাদ হোসেন মিটন, মানিক ঠাকুর বাপ্পা, শিল্পী প্রদীপ দে, রনজিৎ সাহা, অধ্যাঃ উজ্জল সাহা, নাহিদ আকরাম, সুলাইমান আলী, সুইট, দীপু, শিল্পী অশোক রায়, তন্ময় গোস্বামী, অধ্যাঃ মাধব কৃষ্ণ মন্ডল, অসিত রায়, মতি বন্দ, সুমন দাস, শেখ জিহাদ, শেখ সেলিম, বিজয়া সাহা, বিথী বিশ্বাস, দিপ্তী সহ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ও এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ। এ সময় বক্তারা বলেন, দেশে একের পর এক ধর্ষণ ও নারীর প্রতি নিপীড়ন, নির্যাতন বেড়েই চলেছে। ধর্ষণ কারীরা দেশ ও জাতির শত্রু। তারা দেশের সুনাম ও জাতির সুনাম নষ্ট করছে। তাই ধর্ষণকারীদের গ্রেফতার করে দ্রুত বিচারের আওতায় এনে সর্বোচ্চ শাস্তির দাবি জানান।

সাতক্ষীরায় রোগীদের মাঝে চেক বিতরণ

দেশ প্রতিবেদক, সাতক্ষীরা :
সাতক্ষীরায় ক্যান্সার, কিডনী, লিভার সিরোসিস, স্ট্রোকে প্যারালাইসড, জন্মগত হৃদরোগ ও থ্যালাসেমিয়া রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিদের মাঝে চেক বিতরণ করা হয়েছে। সদর উপজেলা পরিষদ ও সমাজসেবা কার্যালয়ের আয়োজনে শনিবার বেলা ১১টায় উপজেলা ডিজিটাল কর্ণারে উক্ত চেক বিতরন করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উক্ত চেক বিতরণ করেন, সাতক্ষীরা সদর আসনের সংসদ সদস্য মুক্তিযোদ্ধা মীর মোস্তাক আহমেদ রবি। সদর সহকারি কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আসাদুজ্জামানের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, জেলা সমাজসেবা অধিদফতরের সহকারি পরিচালক রোকনুজ্জামান, সদর উপজেলা সমাজসেবা অফিসার শেখ সহিদুর রহমান, শহর সমাজসেবা অফিসার মিজানুর রহমান প্রমুখ। উক্ত চেক বিতরন অনুষ্ঠান থেকে এ সময় জানানো হয়, সাতক্ষীরা সদর উপজেলার ৯ জন ক্যান্সার, কিডনী, লিভার সিরোসিস, স্ট্রোকে প্যারালাইসড জন্মগত হৃদরোগ ও থ্যালাসেমিয়া রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিদের প্রত্যেককে ৫০ হাজার টাকা করে মোট ৪ লক্ষ ৫০ হাজার টাকার চেক বিতরণ করা হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রীর অর্থিক সহয়তার চেক পেল ৭৬ জন সাংবাদিক

দেশ প্রতিবেদক, বাগেরহাট :
করোনাকালিন পরিস্থিতিতে বাগেরহাট জেলার ৭৬ জন সাংবাদিকদের মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর অর্থিক সহয়তার চেক অনুষ্ঠানিক ভাবে বিতরণ করা হয়েছে। শনিবার দুপুরে বাগেরহাট প্রেসক্লাব অডিটরিয়ামে প্রধান অতিথি হিসেবে সাংবাদিকদের হাতে এসব চেক তুলে তথ্য মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব (প্রেস) এস এম মাহফুজুল হক। বাগেরহাটে জেলা প্রশাসক ও বাংলাদেশ সাংবাদিক কল্যাল ট্রাষ্টে বাছাই কমিটির জেলা সভাপতি মো. মামুনুর রশীদের সভাপত্বিতে প্রধানমন্ত্রীর অর্থিক সহয়তার চেক অনুষ্ঠ নে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, বাগেরহাটের পুলিশ সুপার পংকজ চন্দ্র রায়, জেলা তথ্য কর্মকর্তা মো. জাহারুল ইসলাম, বাগেরহাট-১ আসনের এমপি শেখ হেলাল উদ্দিনের ব্যক্তিগত কর্মকর্তা মো. ফিরোজুল ইসলাম, বাগেরহাট প্রেসক্লাবের সভাপতি এমডি মোজাফ্ফর হোসেন, সাবেক সভাপতি অধ্যাপক এবিএম মোর্শারফ হুসাইন, আহাদ উদ্দিন হায়দার, প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি নীহার রঞ্জন সাহা, প্রেসক্লাবের সহ সম্পাদক শেখ আজমল হেসোন, কচুয়া প্রেসক্লাবে সাবেক সাধারন সম্পাদক সমির বরণ পাইক প্রমুখ্য। বাংলাদেশ সাংবাদিক কল্যাল ট্রাষ্টের মাধ্যমে বাগেরহাটের ৭৬ জন সাংবাদিকের প্রত্যেকে প্রধানমন্ত্রীর অর্থিক সহয়তার ১০ হাজার টাকার চেক প্রদান করা হয়।

শরাফপুরে মিজানুরের মন্দির পরিদর্শন ও সহায়তা প্রদান

দেশ প্রতিবেদক, ডুমুরিয়া :
ডুমুরিয়া উপজেলার শরাফপুর ইউনিয়নে সম্ভব্য চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী মিজানুর রহমান বিশ্বাস তার নির্বাচনী এলাকায় শারদীয়া দুর্গোৎসব উপলক্ষ্যে মন্দির পরিদর্শন ও আর্থিক সহায়তা প্রদান করেন। শুক্রবার সন্ধ্যায় তিনি ইউনিয়নের দক্ষিণ কালিকাপুর কুন্ডুপাড়া সার্বজনীন দূর্গা গিয়ে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। এ সময় মন্দির কমিটির পংকোজ কুন্ডু, শিক্ষক জয়দ্রত কুন্ডু ও বিকাশ কুন্ডুর হাতে পূজায় সহায়তা হিসেবে পাঁচ হাজার টাকা অনুদান দেন। এরপর তিনি দক্ষিণ কালিকাপুর কলতলা দূর্গা মন্দিরে গিয়ে সভাপতি সুভাষ দাস, প্রমিল দাস ও শ্যামল কান্তি দাসের হাতে পাঁচ হাজার টাকা তুলে দেন। অনুরুপ ভাবে কালিকাপুর পূর্বপাড়া দূর্গা মন্দিরে এক পথসভায় মিলিত হন। সভা শেষে মন্দির কমিটির জীবন দাস, কৃীটি মন্ডল, ইন্দ্রজিত মন্ডল ও নিখিল দাসের হাতে পাঁচ হাজার টাকা অনুদান দেন। এ সময় মিজানুর রহমান বিশ্বাস বলেন, আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আমি চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে চাই। তাই আপনাদের দোয়া ও সমার্থন প্রত্যাশায় এসেছি। আমি আপনাদের পাশে আছি সব সময়। ইতোমধ্যে আমি এলাকার বিভিন্ন মসজিদ, মাদ্রাসা, ক্লাব ও মন্দিরসহ রাস্তা সংস্কারে কাজ করেছি। আমি অপনাদের সহযোগিতা পেলে এ ধারা অব্যাহত রাখতে চাই।

ডুমুরিয়ায় তথ্য কার্ড প্রদান ও মানববন্ধন

দেশ প্রতিবেদক, ডুমুরিয়া :
এনজিও সংস্থা ব্র্যাক সামাজিক ক্ষমতায়ন কর্মসুচীর উদ্যোগে ডুমুরিয়া উপজেলার হাসানপুর পল্লী সমাজের আয়োজনে কিশোরীদের তথ্য কার্ড প্রদান ও মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় হাসানপুর বাজারের রাস্তার ওপর একঘন্টা ব্যাপি এ মানববন্ধনে সারাদেশে নারী নির্যাতন, ধর্ষণ, হত্যা ও বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ করা হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন কর্মসুচীর এফও (সিএসি) মিঠু রানী বিশ্বাস, সভাপ্রধান শিরিনা বেগম, সেক্রেটারি সাবিনা বেগমসহ পল্লী সমাজের সদস্যবৃন্দ। এ বিষয়ে এফও মিঠু রানী বিশ্বাস বলেন, ব্র্যাক সামাজিক ক্ষমতায়ন কর্মসুচীর আয়োজনে এবং পল্লী সমাজের সদস্যরা কিশোরীদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে তাদের জম্ম নিবন্ধন কার্ড দেখে ১৮ বছর পূর্ণ হওয়ার তারিখ লিখে একটি তথ্য কার্ড দরজায় লাগিয়ে দেওয়া হচ্ছে। যাতে করে ওই কিশোরীর বয়স সম্পর্কে যে কেউ বুঝতে পারবে। এ কার্যক্রমের ফলে কোন অভিভাবক মেয়ের বয়স গোপন রেখে বিবাহ দিতে পারবে না।

মোংলা বন্দরকে শক্তিশালী ও আধুনিকায়ন করতে হবে : এনবিআর চেয়ারম্যান

দেশ প্রতিবেদক, মোংলা :
জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান আবু হেনা মো: রহমাতুল মুনিম বলেছেন, মোংলা বন্দরকে যেভাবেই হোক আরো বেশি শক্তিশালী ও আধুনিকায়ন করতে হবে। এ বন্দর আরো বেশি কার্গো হ্যান্ডেলিং যাতে করতে পারে সেজন্য যে সকল সুযোগ-সুবিধা প্রয়োজন তা বৃদ্ধি করতে হবে। শনিবার সকালে মোংলা কাস্টমস হাউসে ‘কাস্টমস ই-পেমেন্ট বিষয়ক সচেতনতামূলক সভা/সেমিনার’র শেষে অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি আবু হেনা মো: রহমাতুল মুনিম সাংবাদিকদের সাথে এসব কথা বলেন। সেমিনারে তিনি বলেন, ২০২২সালের ১লা জানুয়ারী থেকে দেশের সকল কাস্টমস হাউজ ও কাস্টমস ষ্টেশনে শুল্ক, করাদি, ফি, সব ধরণের চার্জ পরিশোধের পদ্ধতি ই-পেমেন্ট বাধ্যতামূলক করা হবে। সেমিনারে আরো উপস্থিত ছিলেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সদস্য খন্দকার মুহাম্মদ আমিনুর রহমান, সদস্য মো: সাইফুল ইসলাম, সদস্য ড. আব্দুল মান্নান শিকদার, বাগেরহাট চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ড্রাষ্ট্রি’র সভাপতি শেখ লিয়াকত হোসেন লিটন ও মোংলা কাস্টমস হাউসের কমিশনার হোসেন আহমদ। এরপর এনবিআর চেয়ারম্যান মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের সাথে বৈঠক করেন। এ সময় বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান রিয়ার এডমিরাল এম শাহজাহানসহ উর্ধতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। বৈঠকে বন্দর ও কাস্টমস কর্তৃপক্ষের নানা সমস্যার বিষয় তুলে ধরা হয়। এর প্রেক্ষিতে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান আবু হেনা মো: রহমাতুল মুনিম আরো বলেন, শুধু বাংলাদেশ নয়, যে কোন জায়গায়, যে কোন কাজে ও বিষয়ে অনেক সমস্যা থাকবে। সমস্যার ভিতর দিয়ে কাজ করতে হবে। সমস্যাগুলোকে চ্যালেঞ্চ হিসেবে নিয়েই এর থেকে উত্তরণ ঘটাতে হবে। সমস্যাগুলো শুধু এনবিআর সম্পর্কিত নয়, বন্দর ও কাস্টম কর্তৃপক্ষসহ অন্যান্য বিভাগ জড়িত রয়েছে। সকল বিভাগের সাথে আলোচনা করে এ সমস্যা সমাধান করা হবে।

পৌর নির্বাচনের দাবিতে ২১ সংগঠনের মতবিনিময়

দেশ প্রতিবেদক, বেনাপোল :
১০ বছর ধরে হচ্ছে না মেয়াদ উত্তীর্ণ বেনাপোল পৌর সভার নির্বাচন। নির্বাচনের দাবিতে “পৌরবাসী” নামে একটি সংগঠনের ব্যানারে ২১ টি সংগঠন শনিবার দুপুরে সিএন্ডএফ এজেন্টস এসোসিয়েশন মিলনায়তনে এক মতবিনিময় সভা করেছে। নির্বাচন বাস্তবায়নের জন্য এ সংগঠন আগামিতে বিভিন্ন কর্মসূচি ঘোষনা করবেন। বন্দর নগরী বেনাপোল প্রথম শ্রেণীর একটি পৌরসভা। ২০০৬ সালে প্রতিষ্ঠিত, বেনাপোল পৌরসভার নাগরিকরা ২০১১ সালে একবার ভোট দিতে পেরেছে। সীমানা সংক্রান্ত জটিলতায় আদালতে ৯টি মামলা হয়েছে। এসব মামলা নিষ্পত্তি না হওয়ায় পৌর নির্বাচনও স্থগিত হয়ে পড়েছে। নির্বাচনের দাবিতে পৌরবাসী নামক সংগঠনের সংগঠনের আহবায়ক মুস্তাফিজুর রহমান স্বপনের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন বিশিস্ট মুক্তিযোদ্ধা শাহ আলম, শার্শা উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব নুরুজ্জামান, বেনাপোল পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব এনামুল হক মুকুল, সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব নাছির উদ্দিন, সাংবাদিক মহসিন মিলন, বকুল মাহবুব, আব্দুর রহিম, কামাল হোসেন, মনিরুল ইসলাম মনি, যশোর জেলা পরিষদের সদস্য অহেদুজ্জামান অহিদ, বেনাপোল বাজার কমিটির সভাপতি আলহাজ্ব আজিজুর রহমান, ৪ নং বেনাপোল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বজলুর রহমান, স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি জুলফিকার আলী মন্টু, সিএন্ডএফ এজেন্ট স্টাফ এসোসিয়েশনের সভাপতি মজিবর রহমান, সাধারন সম্পাদক সাজেদুর রহমান, বন্দর হ্যন্ডলিং ইউনিয়নের সভাপতি রাজু মিয়া, যশোর আন্তঃ জেলা ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মো: শাহীন, প্রাইভেট কার সমিতির সভাপতি মতিয়ার রহমান, আকবর হোসেন প্রমুখ। সভায় আগামী সপ্তাহে নির্বাচনের দাবিতে মানব বন্ধন, সমাবেশ, ও সাংবাদিক সম্মেলন করার ঘোষনা দেয়া হয়। উল্লেখ্য সীমানা নির্ধারন নিয়ে ১২ টি মামলা থাকায়, গত দশ বছর ধরে বেনাপোল পৌর সভায় নির্বাচন হচ্ছে না।

মোরেলগঞ্জে প্রত্যয়নপত্র পায়নি অর্ধ শতাধিক জেলে

দেশ প্রতিবেদক, মোরেলগঞ্জ :
বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জ উপজেলার নিশানবাড়িয়া ইউনিয়নের অর্ধ শতাধিক জেলে উৎকোচ না দেয়ায় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানের প্রত্যয়ন পত্র পায়নি বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ নিয়ে জিউধরা বাজারে শুক্রবার বিক্ষোভ প্রদর্শন করে প্রতিবাদ জানিয়েছে জেলেরা। সরেজমিন জানা গেছে, সুন্দরবনে মাছ ধরতে যাওয়া ওই ইউনিয়নের জেলেদের সরকারি সহযোগীতা দেয়ার সুবিধার্থে জিউধরা ফরেষ্ট ক্যাম্প (বনবিভাগ) থেকে ইউনিয়ন পরিষদের প্রত্যয়ন পত্র জমা দিতে বলা হয়। আর এ জন্য প্রত্যয়ন পত্র সংগ্রহের জন্য ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আ. রহিম বাচ্চুর দ্বারস্থ হয়৮ ও ৯ নং ওয়ার্ডের জেলেরা। কিন্তু ইউনিয়ন পরিষদ থেকে প্রতিটি প্রত্যয়ন পত্রের বিনিময় ৫শ টাকা করে উৎকোচ দাবি করা হয়। অনেক জেলে ইউনিয়ন তথ্য কেন্দ্র থেকে যথারীতি প্রত্যয়নপত্র প্রস্তÍুত করে। পরে ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আব্দুর রহিম বাচ্চু’র স্বাক্ষর করাতে গিয়ে বিপাকে পড়ে জেলেরা। এ সময় যারা টাকা দিতে পেরেছে তাদেরই প্রত্যয়নপত্রে স্বাক্ষর দেয়া হয়। অর্ধ শতাধিক জেলে চেয়ারম্যানের চাহিদা অনুযায়ী টাকা দিতে না পেরে স্বাক্ষরবিহীন প্রত্যয়ন নিয়ে বাড়ি ফিরে যান। প্রত্যয়নপত্র গ্রহনকারী জেলে আ. বারেক হাওলাদার, রোকন উদ্দিন খান, শুকুর হাওলাদার জানান, তারা প্রত্যেকেই নগদ ৫শ টাকা করে উৎকোচ দিয়ে চেয়ারম্যানের কাছ থেকে প্রত্যয়ন পত্র গ্রহন করেছেন। জেলে মো. লোকমান শেখ জানান, প্রত্যয়ন পত্র স্বাক্ষর করাতে গেলে চেয়ারম্যান তার আইডি কার্ডের ফটোকপিতে সত্যায়িত সিল স্বাক্ষরও করেন কিন্তু টাকা দিতে না পারায় তার প্রত্যয়ন পত্র স্বাক্ষর করেননি। এবিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল রহিম বাচ্চু বলেন, প্রকৃত জেলেদের প্রত্যয়ন দেয়া হয়েছে। যারা প্রকৃত জেলে নয় তাদের প্রত্যয়ন দেয়া হয়নি। অর্থ কিংবা উৎকোচ গ্রহনের প্রশ্নই ওঠে না। একটি নির্বাচনী প্রতিপক্ষ তাকে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য অপচেষ্টা চালাচ্ছে।

বাগেরহাটে মানসিক স্বাস্থ্য দিবস পালিত

দেশ প্রতিবেদক, বাগেরহাট :
বাগেরহাটে বিশ^ মানসিক স্বাস্থ্য দিবস-২০২০ উপলক্ষ্যে আয়োজিত আলোচনা সভায় সদর উপজেলা নির্বাহি অফিসার মুহাম্মদ মুছাব্বেরুল ইসলাম বলেছেন, যারা যারা দুর্নীতিবাজ, কর্তব্য কাজে অনিয়ম ও অপরাধ করে তারা সব সময় বিষন্নতায় ভোগে। এরাও মানসিক রোগি হয়ে এক পর্যায়ে শারিরিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়ে। আজ যারা নারী-নির্যাতন ধর্ষন করছে এরাও মানসিকভাবে ভাবে বিপথগ্রস্থ। ’’সবার জন্য মানসিক স্বাস্থ্যঃ অধিক বিনিয়োগ-অবাধ সুযোগ” এই প্রতিপাদ্য বিষয় নিয়ে বেসরকারি সংস্থা এডিডি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের আয়োজনে শনিবার বেলা ১১ টায় র‌্যালী শেষে আলোচনা সভায় তিনি একথা বলেন। সংকল্প প্রতিবন্ধি সংগঠনের জেলা সভাপতি শেখ হারুন উর রশিদের সভাপতিত্বে বাগেরহাট সদর উপজেলা নির্বাহি অফিসারের সম্মেলন কক্ষে এ আলোচনা সভায় আরো বক্তব্য রাখেন সদর উপজেলা মেডিকেল অফিসার ডাঃ শেখ আদনান হোসেন, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান খান রেজাউল ইসলাম, সমাজ সেবা কর্মকর্তা মোঃ রওনাকুল ইসলাম এনজিও প্রতিনিধি কাজি সাইদুর রহমান, শেখ আসাদ, শিল্পি আক্তার, সাংবাদিক আজাদুল হক, সংকল্প প্রতিবন্ধি সংগঠনের আজিজুর রহমান প্রমুখ। এডিডি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের ফিল্ড কোঅর্ডিনেটর মোঃ এহসানুল হক তাদের সংস্থার প্রকল্পকাজ নিয়ে বলেন, সবার জন্য মানসিক স্বাস্থ্য নিশ্চিত করা আমাদের সকলের দায়িত্ব। বাগেরহাট সদর উপজেলার গোটাপাড়া এবং ষাটগম্বুজ ইউনিয়ন এবং রামপাল উপজেলার বাশতলী এবং রামপাল ইউনিয়নে মানসিক প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের নিয়ে সমাজভিত্তিক মানসিক স্বাস্থ্যসেবা নামে একটি প্রকল্প ২০২০ সালের জুন মাস থেকে দৃশ্যমান কাজ করে আসছে। তিনি এ বিষয়ে সরকারের সু-দৃষ্টি কামনা করেন।

বাগেরহাটে হারিয়ে যাওয়া শিশু উদ্ধার

দেশ প্রতিবেদক, বাগেরহাট :
বাগেরহাট পৌরসভার নাগেরবাজার এলাকায় রাফিদ (১০) নামের একটি ছেলে গতকাল রাত ১০ টায় খুজে পায় স্থানীয় লোকজন। পরে ৭ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর শাহনেওয়াজ মোল্লা দোলন, ন্যাশনাল চিলড্রেন টাস্ক’স ফোর্সের বাগেরহাট জেলা কার্যনিবাহী কমিটির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এস.এম. মানজুরুল ইসলাম সাজিদ, সাংবাদিক সোহাগ হাওলাদার, জেলা শিশু বিষয় কর্মকতার সহযোগিতায় থানায় ফোন করে পুলিশের হাতে হসান্তর করে। জানা জায় ছেলেটির বাড়ি ঢাকায় এবং নানা বাড়ির ঠিকানা বলে বাগেরহাটের নওয়াপাড়া। সে অনুযায়ী কাউন্সিলর দোলন মোল্লা এলাকার চেয়ারম্যান শমসের আলীকে জানালে সে খোজ নেয় কিন্তু হারিয়ে যাওয়া ছেলের ঠিকানা অনুযায়ী না পাওয়ায়, পরে বাগেরহাট সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কে ফোন দিলে সে সাথে সাথে পুলিশ পাঠিয়ে ছেলিটিকে থানায় নিয়ে যায়। ন্যাশনাল চিলড্রেন টাস্ক’স ফোর্সের বাগেরহাট জেলা কার্যনিবাহী কমিটির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এস.এম. মানজুরুল ইসলাম সাজিদ বলেন ” জেলা ন্যাশনাল চিলড্রেন টাস্ক’স ফোর্স (এনসিটিএফ) শিশুদের নিয়ে কাজ করে, আমার এলাকায় শিশু হারিয়ে যাওয়ার ঘঠনা শুনে গঠনা স্থলে যাই, এবং কাউন্সিলর শাহনেওয়াজ মোল্লা দোলন ও সাংবাদিক সোহাগ হাওলাদার সহযোগিতায় পুলিশের কাছে তুলে দেই” পরে গতকাল দুপুরে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত পুলিশ ওই ছেলিটির মাকে খুজে পেয়েছে এবং তার মা থানায় রয়েছে উপযুক্ত প্রমান দিয়ে ছেলেটিকে দিয়ে দিবে বলে জানিয়েছে বাগেরহাট মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কে এম আজিজুল ইসলাম।

কয়রায় অবৈধ শুটকির ঘাটি উচ্ছেদ

দেশ প্রতিবেদক, কয়রা :
কয়রা উপজেলা প্রসাশন ও সুন্দরবণ পশ্চিম বনবিভাগের খুলনা রেঞ্জ যৌথ অভিযান চালিয়ে কয়রা উপজেলার জোড়শিং বাজার ও বাজার সংলগ্ন এলাকার ১৮ টি অবৈধ শুটকি ডিপো ঘর উচ্ছেদ করা হয়েছে। গতকাল শনিবার দিনব্যাপী কয়রা উপজেলা নির্বাহী অফিসার অনিমেষ বিশ্বাসের নেতৃত্বে এ অভিযান পরিচালিত হয়। অভিযান সম্পর্কে উপজেলা নির্বাহী অফিসার অনিমেষ বিশ্বাস বলেন, দীর্ঘদিন যাবৎ সুন্দরবণ থেকে একধরণের অসাধু জেলেরা বিষ প্রয়োগ করে মাছ শিকার করে এসকল অবৈধ শুটকি ডিপোতে মাছ শুকায়।যার কারনে সুন্দরবনের মৎস্য সম্পদের ক্ষতি হচ্ছে।এবং সুটকি শুকানোর ফলে পরিবেশ বিপর্যয়ের পাশাপাশি স্বাস্থ্য ঝুকিতে পড়ছে সাধারণ মানুষ।এমন অভিযোগের ভিত্তিতে উপজেলা আইন শৃঙ্খলা কমিটির সিদ্ধান্ত মোতাবেক এসকল অবৈধ শুটকি ডিপো উচ্ছেদ করা হয়। অভিযানকালে উপ¯িহত ছিলেন খুলনা রে›েজর সহকারী বনসংরক্ষক মোঃ আবু সালেহ, উপজেলা মৎস্য অফিসার এস এম আলাউদ্দিন আহমদ, কাশিয়াবাদ ষ্টেশন কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আল বাহরাম, বানিয়াখালি ষ্টেশন কর্মকর্তা কাজী মাহফুজুল হক, স্মার্ট টিম লিডার শেখ মোঃ আনিছুর রহমান, রে›জ সহযোগী শাহান শাহ নওশাদ, কাশিয়াবাদ ষ্টোশনের সহযোগী ষ্টেশন কর্মকর্তা আব্দুল হাকিম, সি এম সি এর কোষাধ্যক্ষ রিয়াছাদ আলী, বজবোজা টহল ফাঁড়ির ওসি খায়রুল আলম মিঠু, খাশিটানা টহল ফাঁডির ওসি একেএম আব্দুস সুলতান, আনদার মানিক টহল ফাঁডির ওসি স্বাদ আল জামি, গেওয়াখালি টহল ফাঁডির ওসি নুরুল আমিন সহ বনবিভাগের স্টার্ফ, সিমসির সদস্য ও সিপিজির সদস্যরা।

ইছামতি আর কালিন্দী নদীর পারে দর্শনার্থীদের ভীড়

দেশ প্রতিবেদক, কালিগঞ্জ :
কালিগঞ্জের সিমান্তবর্তী কালিন্দী, ইছামতি ও কাঁকশিয়ালী নদীর ত্রি-মোহনায় বসন্তপুর যেন এখন অপরূপ সৌন্দর্য্যের প্রতিকী নিদর্শন হয়ে দাঁড়িয়েছে। যে কোন উৎসব কিংবা দিবস নয়, সারা বছরই এখানে ভ্রমণপিপাসু মানুষের ভীড়ে জমজমাট অবস্থা বিরাজমান। প্রতিদিন সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত বিনোদন পিপাসুদের ভীড় লক্ষণীয়। তবে করোনার কারণে কিছুদিন মানুষের ভীড় কিছুটা কম থাকলেও আবার নতুন করে তা জমজমাট হয়ে উঠেছে। তাই সিমান্তবর্তী কালিন্দীর পাড় ঘিরে গড়ে উঠতে পারে ভ্রমণপিপাসুদের বড় বিনোদন কেন্দ্র। গত শুক্রবার বিকেলে সরেজমিনে গিয়ে দেখাগেছে, পড়ন্ত বিকেলে সরকারী কর্মকর্তা, জনপ্রতিধি, গনমাধ্যমকর্মী, শিশু-কিশোরসহ বিভিন্ন বয়সের নারী-পুরুষ পরিবার পরিজনদের নিয়ে বসন্তপুর বিজিবি ক্যাম্প সংলগ্ন এলাকায় নদী পাড় দিয়ে হাঁটছেন এবং নিজেকে ক্যামেরাবন্দী করছেন। নদীর কিনারে শত শত মানুষ দূর থেকে দেখছেন প্রতিবেশী রাষ্ট্র ভারতের হিঙ্গলগঞ্জ বাজার। নদীর পাড়ে হাটতে হাঁটতেই চোখে পড়ল চারজন তরুণ সমবয়সী একসঙ্গে দাঁড়িয়ে মুঠোফোনে সেলফি তুলছেন। বিশেষ করে বিকেল হলে সিমান্তবর্তী নদীর পাড়ের চেহারা আমূল বদলে যায়। তবে শুক্রবার ও ছুটির দিনগুলোয় দর্শনার্থীদের ভিড় বেড়ে যায়। ভ্রমন পিপাঁসু ও প্রকৃতিপ্রেমি মানুষ নদীর সৌন্দর্যে অভিভূত হয়ে বার বার ছুটে আসেন এখানে। অনুসন্ধানে জানাগেছে, ব্রিটিশ আমলে নির্মিত প্রাকৃতিক সৌন্দর্য মন্ডিত “রামজননী ভবন” এলাকায় গড়ে উঠা বিনোদন ও পিকনিক স্পট কেন্দ্র এক পলক দেখলেই মুখ ফিরাতে পারবেনা কেউই। একবার আসলে বার বার আসতে মন চায় সবার। তারপরও পুরাতন এই ভবনের অজানা ইতিহাস জানতে চায় সবাই। সব মিলে জায়গাটা সবসময় মুখরিত থাকে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ব্রিটিশ আমলে পরিত্যক্ত বাড়ি “রামজননী ভবন” এলাকায় দর্শনার্থীদের ভিড়ে এখন বিনোদন কেন্দ্র ও পিকনিক কর্ণার হিসেবে পরিচিতি পেয়েছে। ইতিমধ্যে গত ৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০ তারিখে উপজেলা শিল্পকলা একাডেমির সার্বিক ব্যাবস্থাপনায় দিন ব্যাপি জাকজমকপূর্ণ পিকনিক শেষে আলোচনা সভায় কালিগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোজাম্মেল হক রাসেল রামজননী ভবনের পরিত্যাক্ত জমিতে পিকনিক স্পট কর্ণার ঘোষনা দেন। এই পিকনিকে ততকালীন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) সিফাত উদ্দিন, কালিগঞ্জ প্রেসক্লাব নেতৃবৃন্দ, সরকারী কর্মকর্তাসহ উপজেলার বিশিষ্ঠ জনেরা অংশগ্রহন করেন। সেই থেকে আকর্ষণীয় হয়ে উঠেছে “রামজননী ভবন” এলাকাটি। সাতক্ষীরা জেলার বিভিন্ন স্হান থেকে ঘুরতে আসা কয়েকজন দর্শনার্থী জানান, পুরাতন রামজননী ভবন দেখার পর আমরা নদীর সৌন্দর্য দেখার সুযোগ পেয়েছি। ভালই মজা লাগলো, তবে একটা পার্ক বা বিনোদন কেন্দ্র থাকলে আমরা আরো বেশী মজা পেতাম। প্রকৃতি প্রেমিক, মানবাধিকারকর্মী ও সাংবাদিক ইশারাত আলী বলেন, পড়ন্ত বিকেলে নদীর বুকে সূর্যের প্রাকৃতিক দৃশ্য দেখে আমি মুগ্ধ হয়েছি। সারাদিনের কর্মক্লান্তীর পরে চমৎকার দর্শনীয় স্থানে ঘুরতে আসি। তবে প্রশাসনের উদ্যোগে নদীর পাড়ে একটি পার্ক হলে আরও বেশী আনন্দ উপভোগ করতে পারতাম। আন্তর্জাতিক অভিবাসী সংস্থার রানুকা রানী মন্ডল বলেন আমি মুগ্ধ হয়েছি, আমি এই প্রথম এছেছি অপুর্ব দর্শনীয় স্থানে। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সজিব হোসেন নামে একজন বলেন, কালিগঞ্জের সিমান্ত এলাকায় এই প্রথম ঘুরতে এলাম। শুনেছি দুই দেশের মনোরম দৃশ্য এখানে আসলেই দেখা যায়। এমন সুন্দর জায়গা আগে কখনো দেখিনি। সরকারের সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের কাছে দাবি রাখবো প্রাকৃতিক সৌন্দর্য মন্ডিত এই জায়গাটি দর্শনার্থীদের জন্য পার্ক বা বিনোদন কেন্দ্র হিসেবে তৈরি করা হোক।

কালিগঞ্জের মাছ চোর আটক

দেশ প্রতিবেদক, কালিগঞ্জ :
কালিগঞ্জ উপজেলার পল্লী থেকে মৎস্য ঘের থেকে মাছ চুরীর অভিযোগে আনজুর আলীকে হাতেনাতে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করা হয়েছে। সে উপজেলার চাম্পাফুল ইউনিয়নের ঘুষুরী গ্রামের মৃত শেখ বাছের আলীর পুত্র। নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানাগেছে, গতকাল শনিবার গভীর রাতে উজিরপুর গ্রামের আব্দুল মালেক মোড়লের মৎস্য ঘের থেকে গলদা ও বাগদা চিংড়ীসহ আটক করা হয়। বিষয়টি ঘের মালিক থানা পুলিশকে অবহিত করলে থানার উপ পরিদর্শক (এস আই) জিয়ারত আলীসহ সঙ্গীয় ফোর্স ঘটনাস্থল থেকে সকালে তাকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসেন। ঘটনার সত্যতা জানতে এস আই জিয়ারত আলীর নিকট জানতে চাইলে তিনি এ প্রতিনিধিকে জানান, আনজুর আলী মাছ চুরীর অভিযোগে ঘের মালিক তাকে আটক করলেও তার সত্যতা পাওয়া যায়নি। তাকে স্থানীয় জনপ্রতিধি ও গ্রাম পুলিশের জিম্মায় দুপুরে আনজুর আলীকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

বিদ্যালয়ের ভবন নির্মানে নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহারের অভিযোগ

দেশ প্রতিবেদক, পাইকগাছা :
পাইকগাছায় ভবন নির্মানে নিম্ন মানের সামগ্রী ব্যবহারের অভিযোগে আগরঘাটা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সুনাম ও প্রধান শিক্ষকের সামাজিক মর্যাদা ক্ষুন্ন করার চেষ্টা করছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। এলাকাবাসী ও বিদ্যালয় কমিটি সংশ্লিষ্টদের অভিমত ভবন নির্মানকালে স্থানীয় অনেকেই সুবিধা বঞ্চিত হয়ে এ অভিযোগ তুলে পরিবেশ ঘোলাটে করার পাঁয়তারা করছেন। সংশ্লিষ্ট সুত্র মতে জানাগেছে, বিগত ১৮-১৯ অর্থবছরে উপজেলার কপিলমুনি ইউপির ঐতিহ্যবাহী আগরঘাটা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৪ তলা বিশিষ্ট আধুনিক ভবন নির্মানে সরকার ২ কোটি ৮৬ লাখ ২২ হাজার ৬০৬ টাকা বরাদ্ধ দেন। জানাগেছে, টেন্ডারের পর শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর তত্বাবধানে মোজাহার এন্টার প্রাইজের নিয়ন্ত্রনে বাস্তবায়নাধীন এ প্রকল্পটির কাজ শেষ পর্যায়ে। এদিকে প্রকল্পের শেষ পর্যায়ে কেউ-কেউ ৪ তলার লিন্টন ও ছাদে নিম্ন মানের রড-বালি খোয়া ব্যাবহারে অভিযোগ তুলে প্রধান শিক্ষককে দোষারোপ করেছেন। এ বিষয়ে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের সাব এ্যাসিষ্টান্ড ইঞ্জিনিয়ার তারিকুল ইসলাম তারিক সিডিউল মেনে কাজের কথা বলে জানান,, এ অঞ্চলে আমাদের একাধিক প্রকল্পের মধ্যে ১ নম্বরে রয়েছে এ স্কুলের ভবন নির্মান কাজ। ছাদের ৫ টি ভিম ভাঙার কথা বলে ব্যাখা করে জানান, করোনা পরিস্থিতিতে ভবনের কাজ করাকালে হঠাৎ বিদ্যুৎ চলে যাওয়ায় কিছুক্ষন মিকচার মেশিন ও ভাইব্রেশন ম্যাশিন বন্ধ থাকায় কাজের কিছু অংশ দেশীয় প্রযুক্তিতে করা হয়। সংশ্লিষ্টদের পর্যবেক্ষনে এ অংশটি ত্রুটি ধরা পড়ায় তা ভেঙে ফেলে নতূন ভাবে করা হচ্ছে। প্রতিষ্ঠানের হেড মিস্ত্রী কাকন চৌধুরী বলেন ভবন নির্মানে নির্মমানের মালামালের ব্যাবহারের কোন সুযোগ নেই এবং এ নিয়ে আমি প্রধান শিক্ষককে জড়িয়ে কারোর সাথে কোন মন্তব্য করেনি। প্রধান শিক্ষক গাজী মোশারফ হোসেন ক্ষোভ প্রকাশ করে জানান, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষর দেখভালে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছেন। এছাড়া ম্যানেজিং কমিটি ও শিক্ষকদের সমন্বয়ে গঠিত ৭ সদস্যোর তদারকি টিম কাজের তদারকি করে থাকেন এখানে একক ব্যক্তির প্রভাব খাটিয়ে কোন রকম অনিয়ম করে পার পাবার সুযোগ নেই। তবে তিনি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও পত্রিকান্তরে প্রকাশিত খবরটি অসত্য বলে মন্তব্য করেন। এ বিয়য়ে ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ফরহাদুজ্জামান তুষার বলেন কারিগরি ত্রুটির কারনে ৫ টি ভিম ভেঙে ফেলে কাজ করা হচ্ছে, এখানে একক ভাবে প্রধান শিক্ষককে অহেতুক দোষারোপ করার কোন সুযোগ নেই বলে মন্তব্য করেন।

ধর্ষকদের ফাঁসির দাবীতে সাতক্ষীরায় মানববন্ধন

দেশ প্রতিবেদক, সাতক্ষীরা :
দেশব্যাপী অব্যাহত ধর্ষন ও যৌন নিপীড়নের প্রতিবাদে এবং ধর্ষকদের ফাঁসির দাবীতে সাতক্ষীরায় মানববন্ধন কর্মসুচি পালিত হয়েছে। সাম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট সাতক্ষীরার ব্যানারে শনিবার বিকালে শহরের আব্দুর রাজ্জাক পার্কস্থ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ঘন্টাব্যাপী উক্ত মানববন্ধন কর্মসুচি পালিত হয়। মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি ও কন্ঠশিল্পী আবু আফফান রোজ বাবু, সাধারণ সম্পাদক শামিমা পারভীন রত্না, কন্ঠশিল্পী চৈতালী মূখার্জী, মহিলা কাউন্সিলর ফারহা দীবা খান সাথী প্রমুখ। বক্তারা এ সময় নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে গৃহবধূকে বিবস্ত্র করে নির্যাতন ও সিলেটে এমসি কলেজে নববধূকে গণধর্ষণসহ দেশব্যাপী অব্যাহত ধর্ষন ও যৌন নিপীড়নের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান। তারা এ সময় ধর্ষনের বিরুদ্ধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলার আহবান জানান। একই সাথে তারা ধর্ষন ও যৌন নিপীড়নে জড়িতদের দ্রুত গ্রেপ্তার ও ফাঁসির দাবি জানান। পরে সাংস্কৃতিক কর্মীরা সেখানে দেশাত্নবোধক গান ও কবিতা পরিবেশন করেন।

স্বামীর অত্যাচার থেকে রেহাই পেতে দ্বারে-দ্বারে ঘুরছেন গৃহবধু

দেশ প্রতিবেদক, ফুলবাড়ীগেট :
খানজাহান আলী থানার আফিলগেট চেকপোষ্ট এলাকার আকবার এর পুত্র বাস ড্রাইভার রিগান (৩২) এর অত্যাচারের হাত থেকে রেহায় পেতে ৭ বছরের পুত্র সন্তান ফয়সাল কে নিয়ে বিচারের আসায় দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন স্ত্রী নুরজাহান (২৬)। ২০০৭ সালে ইসলামী শরিয়ত মোতাবেক ইষ্টার্ণ জুট মিলের শ্রমিক নুরুজ্জামান এর কন্যা নুরজাহান এর সাথে বিবাহ হয় বাস ড্রাইভার রিগানের। বিয়ের পর থেকে স্ত্রী নুরজাহান কে বিভিন্ন সময় যৌতুকের জন্য চাপ প্রয়োগ করতে থাকে। এর মধ্যে গত বছরের জুন মাসে ড্রাইভার রিগান শিরোমনি এলাকায় একজনের স্ত্রীকে কৌশলে ভাগিয়ে নিয়ে বিবাহ করে, কিছুদিন পর তাকেও তালাক দেয়। পরবর্তিতে চলতি বছরের জুলাই মাসে কৈয়া বাজারের এক মহিলাকে বিবাহ করে, ছোট শিশু পুত্রসহ স্ত্রীর খোজ খবর ভরনপোষন না দিয়ে এবার স্ত্রীকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানোর হুমকী দিচ্ছে তার স্বামী বহু বিবাহের হোতা রিগান। স্বামীর অত্যাচারের হাত থেকে রেহায় পেতে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান সহ বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন নুরজাহান। লিখিত অভিযোগে নুরজাহান বেগম জানান, বিয়ের পর থেকে স্বামীর অত্যাচার চলতে থাকে, এর মধ্যে আমার ছোট সন্তানের কথা ভেবে মুখ বুজে রিগানের নির্যাতন সহ্য করে সংসার করছিলাম, আমার ভরণ পোষণ দেওয়াতো দুরে থাক এখন আমাকে মিথ্যা মামলাসহ প্রাণ নাশের হুমকি দিচ্ছে। স্থানীয়রা জানান রিগান নিয়মিত মাদক সেবন করে, রিগানের কারনে অনেকের সংসার ভেঙ্গেছে। এছাড়া বিভিন্ন সময়ে অনৈতিক কর্মকান্ড করায় এলাকায় একাধিকবার শালিস দরবার হয়েছে। এ ব্যাপারে তিনি প্রশাসনের উর্দ্ধতন কর্র্মতাদের সুদৃষ্টি কামনা করেছেন।

ফকিরহাটে বাছুরসহ গাভী চুরি

দেশ প্রতিবেদক, বাগেরহাট :
জেলার ফরিহাটে প্রতি নিয়ত চুরির ধারাবাহিকতায় শনিবার ভোর রাতে এগ্রফার্মের কয়েকটি তালা ভেঙে লখপুর থেকে বিদেশী জাতের বাছুর সহ গাভী চুরি হয়েছে।ঘটনাটি ঘটেছে ক্ষতিগ্রস্ত ফার্ম মালিকের বসত বাড়িতে। ভুক্তভোগীর পরিবার ও এলাকাবাসির সূত্রে জানা যায়, উপজেলার লখপুর গ্রামের সন্দীপ পাড়ার তরুন ক্ষুদ্র উদেক্ততা মো:রিপন ও আবদুর রহমান আপন দুই ভাই, এস এস এগ্রোফার্ম লি: নামে বসত বাড়ি সংলগ্ন বিদেশী জাতের কয়েকটি গরু ও ছাগল নিয়ে নিজেস্ব অর্থায়নে ক্ষুদ্র পরিসরে ফার্মের যাত্রা শুরু করেন। ফার্মে যথেষ্ট সিকিউরিটি থাকা শর্তে ও শনিবার ভোর রাতে কয়েকটি তালা ভেঙে ফার্ম থেকে অষ্ট্রেলীয়ন জাতের বছুর সহ গাভী চুরি হয়। যাহার আনুমানিক মূল্য আড়াই লক্ষ্য টাকা। উল্লেখ্য প্রতিদিন এ গাভী থেকে ২০/২২ কেজী দুধ হতো। ফার্ম মালিকদয় বিভিন্ন স্থানে অনুসন্ধান করে কোনো তথ্য না পেয়ে বাছুর ও গাভীর বর্ননা উলেখ পূর্বেক ফকিরহাট মডেল থানায় একটি জি, ডি করেন।যার নং-৩৪৫।তাং ১০/১০/২০২০।

মুন্সিগঞ্জে তিন শতাধিক তালবীজ বপন

দেশ প্রতিবেদক, মুন্সিগঞ্জ :
বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা লিডার্স এর সহযোগিতায় গতকাল মুন্সিগঞ্জ ইউনিয়ন জলবায়ু সহনশীল ফোরামের উদ্যোগে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে শ্যামনগর উপজেলার মুন্সিগঞ্জ ইউনিয়নে গ্যারেজ-জেলেখালী রোডের দুইপাশে বজ্রপাত প্রতিরোধে তিন শতাধিক তালবীজ বপন করা হয়। তালবীজ বপন উদ্বোধন করেন মুন্সিগঞ্জ কলেজের অধ্যক্ষ ও লিডার্স এর সভাপতি জনাব বিধুস্রবা মণ্ডল। তিনি বলেন, “তাল গাছ বজ্র প্রতিরোধ করে, সেজন্য বেশি বেশি তালবীজ বপন করা প্রয়োজন এবং বীজ বপন পরবর্তী রক্ষণাবেক্ষণ ও পরিচর্যা করার দায়িত্ব আমাদের সকলের।” এছাড়া তালবীজ বপনকালে উপস্থিত থেকে সহযোগিতা করেছেন মুন্সিগঞ্জ ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ড এর সদস্য জনাব আকবর আলী পাড়, মুন্সিগঞ্জ ইউনিয়ন জলবায়ু সহনশীল ফোরামের সভাপতি জনাব ধনঞ্জয় কুমার মিস্ত্রী, সম্পাদক জনাব তপন কুমার মণ্ডল সহ ২২ জন সদস্য, লিডার্স এর প্রকল্প সমন্বয়কারী জনাব রনজিৎ কুমার মণ্ডল প্রমূখ।

“আত্মপ্রকাশ পাইকগাছা” সংগঠণের আত্মপ্রকাশ

দেশ প্রতিবেদক, পাইকগাছা :
পাইকগাছায় ছাত্র ও যুব সমাজের উদ্যোগে বৃক্ষরোপন ও বিতরণের মধ্য দিয়ে “আত্মপ্রকাশ পাইকগাছা” নামে একটি সামাজিক সংগঠণের আত্মপ্রকাশ ঘটেছে। উপজেলা চেয়ারম্যান (ভারপ্রাপ্ত) লিপিকা ঢালী ও পৌর মেয়র সেলিম জাহাঙ্গীর যৌথভাবে এর উদ্বোধন করেন। শনিবার বেলা ১১টায় এ উপলক্ষে পৌরসভার সরলে পৌর পানি শাখা কার্যালয়ে সংগঠণের সভাপতি আরিফুল ইসলাম রনির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, উপজেলার চেয়ারম্যান (ভারপ্রাপ্ত) লিপিকা ঢালী। বিশেষ অতিথি ছিলেন, পৌর মেয়র সেলিম জাহাঙ্গীর। ফয়সাল আশিকুজ্জামানের পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন, সাবেক কাউন্সিলর ইদ্রিস আলী গাজী, সাইফুল ইসলাম, আব্দুল মজিদ বয়াতী, আব্দুল গফফার মোড়ল, মোঃ সাইফুল, সাইদুর রহমান, ফিরোজ আহমেদ, নয়ন মনি বিশ্বাস, সাজিদ শাহরিয়ার, মামুন হোসেন, ইসরাফিল হোসেন, হাসান আলী, ইকরামুল হোসেন, দীপ্ত কুমার দাশ, উজ্জ্বল পাল। উক্ত সংগঠণ বেকারদের কর্মসংস্থান সৃষ্টির জন্য চা বিক্রির সরঞ্জাম, মাদক, বাল্য বিবাহ, জুয়া বন্ধ ও রক্তদান কর্মসূচি গ্রহণ করেছে।

পাইকগাছায় মটরসাইকেল ছিনতাই

দেশ প্রতিবেদক, পাইকগাছা :
পাইকগাছায় প্রকাশ্য দিবালোকে মাছ ব্যবসায়ী মটরসাইকেল চালককে মারপিট করে মটরসাইকেল ও টাকা ছিনতায়ের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনাটি ঘটেছে, শুক্রবার দুপুরে পৌরসভার জিরোপয়েন্টস্থ বরফ মিলের সামনে। অভিযোগে জানা যায়, উপজেলার হাড়িয়ারডাঙ্গা গ্রামের ফজলু করিম সরদারের ছেলে গোলাম কিবরিয়া রুহিন একজন মাছ ব্যবসায়ী। ঘটনার দিন আঠারমাইল থেকে মাছ বিক্রি করে বাড়ী ফিরছিল। প্রতিমধ্যে পাইকগাছা জিরোপয়েন্টস্থ বরফ মিলের সামনে পৌছালে নাইম মোড়ল ও নয়ন মিস্ত্রীর নেতৃত্বে কতিপয় দুস্কৃতিকারীরা রুহিনকে গতিরোধ করে মারপিট করে মটরসাইকেল থেকে ফেলে দেয়। এ সময় তারা ১৫০ সিসি একটি হাংক মটরসাইকেল ও তার কাছে থাকা মাছ বিক্রির ২২ হাজার ৮৩০ টাকা নিয়ে চলে যায়। স্থানীয়রা আহত রুহিনকে হাসপাতালে ভর্তি করে। এ ব্যাপারে ঘটনার বর্ণনা দিয়ে রুহিনের পিতা ফজলুল করিম সরদার বলেন, রোববার আদালতে মামলার প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে।

বাসের মধ্যে নারীর স্বেচ্ছায় যৌন সম্পর্ক মনিরের আদালতে জবানবন্দি

দেশ প্রতিবেদক, যশোর :
যশোরে বাসের মধ্যে নারীর সাথে স্বেচ্ছায় যৌন সম্পর্ক হয় বলে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দিয়েছে অভিযুক্ত মনিরুল ইসলাম। শনিবার জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মামুনুর রহমান ১৬৪ ধারায় আসামি মনিরের স্বীকারোক্তি রেকর্ড করেছেন। মনিরুল ইসলামসহ বাকি ৬ আসামিকে আদালতের নির্দেশে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। এদিকে, মনিরুল বাদে বাকি ৬ শ্রমিক পরিস্থিতির শিকার বলে দাবি করেছে তাদের পরিবারের সদস্যরা। তারা গাড়ি চুরি হয়েছে এমন সংবাদ পেয়ে তা উদ্ধার করতে গিয়ে ধর্ষণের মতো মামলার আসামি হয়েছে বলে দাবি করা হয়েছে। পুলিশ সূত্রে জানাগেছে, মনির আদালতকে জানিয়েছে-তার সাথে ওই নারীর বছর দুইয়েক আগে থেকে পরিচয়। তিনি যখন রাজশাহী যাতায়াত করতেন তখন থেকে সে (মনির) তাকে নানাভাবে সহযোগিতা করতো। এছাড়াও তার সাথে ওই নারীর মোবাইল ফোনে কথা হয়। গত বৃহস্পতিবার রাতে ওই নারী রাজশাহী থেকে যশোরে এসে মনিরের সাথে যোগাযোগ করেন। রাতে তার থাকার ব্যবস্থা করেন ওই নারীর অনুরোধে। বাড়িতে না নিয়ে গিয়ে বাসের মধ্যে ঘুমানোর ব্যবস্থা করেন। রাতেই গাড়ির মধ্যে উভয়ের সম্মতিতে যৌন সম্পর্ক হয়। পরে অন্যান্য শ্রমিক গিয়ে তাকে গাড়ি থেকে নামিয়ে নিয়ে আসে। পরে ওই নারীর সাথে অন্য কারো যৌন সংযম হয়েছে কি-না তা সে জানে না বলে আদালতকে জানিয়েছে। এদিকে মামলার এজাহারে ওই নারী দাবি করেছেন, তিনি রাজশাহী থেকে যশোরে আসতে রাত ১১টা বেজে যায়। সে সময় মনিরের সাথে তার কথা হয়। তারা একটি রেস্তরায় রাতের খাবার খান। মনির তাকে নিউমার্কেটে পৌছে দেয়ার কথা বলে এমকে পরিবহনের কাছে রিকসাযোগে নিয়ে যায়। বাসটি কোল্ডস্টোরেজের পাশে রাখা ছিলো। মনির গাড়ির মধ্যে নিয়ে গিয়ে রাত ১২টার দিকে তাকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। পরে অন্য আসামিরা এসে তাকে জোরপূর্বক ধর্ষণের চেষ্টা করে। ব্যর্থ হয়ে মারপিট করে। সংবাদ পেয়ে পুলিশ সেখানে গিয়ে তাকে উদ্ধার করে এবং যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে। এই ঘটনায় তিনি মনিরসহ ৭জনের বিরুদ্ধে মামলা করেন। উল্লেখ্য, যশোরে বাসের মধ্যে এক নারী ধর্ষণের শিকার হয়েছে এমন সংবাদে তোলপাড়া হয়। পুলিশ প্রথমে জানতে পারে ওই নারীর বাড়ি মাগুরার শালিখা উপজেলার শতপাড়া গ্রামে। সে ওই গ্রামের গফফার বিশ্বাসের মেয়ে। কিন্তু অনেক অনুসন্ধান করে পুলিশ নিশ্চিত হয়-ওই নারীর বাড়ি আসলে যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলার বন্দবিলা ইউনিয়নের মীর্জাপুর গ্রামে। ওই নারী (২৫) রাজশাহীর লক্ষিপুর এলাকার জিপিও নামক একটি ক্লিনিকে আয়ার কাজ করেন। তিনি স্বামী পরিত্যক্ত। তার ৮ বছরের একটি ছেলে আছে। শতপাড়ায় তার সাবেক স্বামীর বাড়ি। যশোর থেকে রাজশাহী যাতায়াতের পথে এমকে পরিবহনের হেলপার মনিরের সাথে তার পরিচয় হয়। বৃহস্পতিবার তিনি যশোরে এলে তিনি বাড়ি ফিরে যেতে না পারায় বাসের মধ্যে ঘুমিয়ে পড়েন। পরে মনির তাকে ধর্ষণ করে। অন্য ৬জন তাকে ধর্ষণের চেষ্টা করে।

সেই প্রধান শিক্ষকের ‘তৎপরতা’ থেমে নেই!

দেশ প্রতিবেদক, যশোর :
যশোরের চৌগাছা উপজেলার বর্ণি রামকৃষ্ণপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে অবৈধভাবে’ নিয়োগ দেয়া সেই সহকারী গ্রন্থাগারিকের এমপিও’র জন্য আবেদন করা হয়েছে। গত ৭ অক্টোবর এই আবেদন করেছেন বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক মিজানুর রহমান। যদিও এর দুইদিন আগে যশোর জেলা শিক্ষা অফিস ও যশোর শিক্ষা বোর্ড থেকে এই নিয়োগ প্রক্রিয়া ও বিদ্যালয়টির ম্যানেজিং কমিটির বিরুদ্ধে পৃথক দুইটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। যশোর জেলা শিক্ষা অফিস থেকে এই তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে চৌগাছা উপজেলা শিক্ষা অফিসার আবুল কালাম রফিকুজ্জামানকে। আর শিক্ষা বোর্ডের তদন্ত করবেন জেলা শিক্ষা অফিসার এএসএম আব্দুল খালেক। এমপিও আবেদনের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন চৌগাছা উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আবুল কালাম রফিকুজ্জামান। এর আগে ৪ অক্টোবর বিদ্যালয়টির ম্যানেজিং কমিটির বিরুদ্ধে নাজিম উদ্দিন নামে একব্যক্তি কিছু তথ্য-উপাত্তযুক্ত করে জেলা শিক্ষা অফিস ও যশোর শিক্ষা বোর্ডে দুইটি আবেদন করেন। জেলা শিক্ষা অফিসের গঠিত কমিটির তদন্তের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা চৌগাছা উপজেলা শিক্ষা অফিসার আবুল কালাম রফিকুজ্জামান বলেন, চৌগাছার বর্ণি রামকৃষ্ণপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে একটি অভিযোগের তদন্তের দায়িত্ব আমাকে দেয়া হয়েছে। শতভাগ স্বচ্ছাতার সাথে তদন্ত করে আমি দ্রুতই প্রতিবেদন দখিল করবো। তিনি আরো বলেন, প্রধান শিক্ষক সহকারী গ্রন্থাগারিক ছালমা খাতুনকে এমপিওভুক্তির জন্য আবেদন করেছেন। যেহেতু, নিয়োগ প্রক্রিয়া ও ম্যানেজিং কমিটি নিয়ে তদন্ত চলছে, সেহেতু এখনই এই আবেদন জেলা শিক্ষা অফিসে পাঠানো হচ্ছে না। অভিযোগে জানা যায়, বিদ্যালয়টিতে দীর্ঘদিন সহকারী গ্রন্থগারিক পদ খালি ছিল। সম্প্রতি সেই পদে মোটা অংকের অর্থের বিনিময়ে ছালমা খাতুন নামে একজনকে নিয়োগ দেয়া হয়েছে। এই নিয়োগবাণিজ্যের জন্য প্রধান শিক্ষক আগে থেকেই প্রস্তুতি নিয়ে রাখেন। যার অংশ হিসেবে নিজের অনুগতদের সমন্বয়ে ম্যানেজিং কমিটি গঠন করেন। সেই কমিটিতে এমন একাধিক অভিভাবক সদস্য আছেন, যাদের সন্তান স্কুলটিতে লেখাপড়া করে না। এই অবৈধ কমিটির সভাপতি, প্রধান শিক্ষক ও কতিপয় রাজনৈতিক দুর্বৃত্ত মিলে এই নিয়োগবাণিজ্য করেছেন। সূত্র বলছে, শুধু ম্যানেজিং কমিটি নয়, নিয়োগবাণিজ্য সুচারুরুপে করতে নিয়োগ বোর্ড গঠনেও অনিয়মের আশ্রয় নেয়া হয়েছে। বোর্ডে এমন একজনকে অভিভাবক সদস্য করা হয়, যার কোন সন্তান স্কুলটির শিক্ষার্থী নয়।

যশোরে বাসে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের ঘটনায় গ্রেফতার ৭

দেশ প্রতিবেদক, যশোর :
রাজশাহী থেকে যশোরে আসা এক তরুণীকে (২৫) বাসের মধ্যে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের ঘটনায় মামলা হয়েছে। গত শুক্রবার বিকালে ওই তরুণী বাদী হয়ে সাত জনকে আসামি করে যশোর কোতয়ালি থানায় মামলা করেছেন। কোতয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। মামলায় সাত আসামিকেই গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। শনিবার তাদের আদালতে সোপর্দ করা হবে। আসামিরা হচ্ছে যশোর সদরের রামনগর ধোপাপাড়া এলাকার বাসশ্রমিক মনিরুল ইসলাম, শহরের বারান্দী মোল্লাপাড়া এলাকার শাহিন হোসেন জনি, সিটি কলেজপাড়ার কৃষ্ণ বিশ্বাস, সুভাষ সিংহ, বারান্দী কাঁঠালতলা বৌবাজার এলাকার রাকিবুল ইসলাম রকিব, বারান্দীপাড়ার কাজী মুকুল এবং বেজপাড়া কবরস্থান রোড এলাকার মঈনুল ইসলাম। ওসি জানিয়েছেন, প্রাথমিক তদন্তে জানা গেছে, ওই নারী রাজশাহীর লক্ষ্মীপুর এলাকায় একটি বেসরকারি হাসপাতালে আয়ার কাজ করেন। তার বাড়ি যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলায়। যশোর থেকে এমকে পরিবহনের দুটি বাস সরাসরি রাজশাহী যায়। ওই নারী এমকে পরিবহনের বাসে করে রাজশাহী থেকে যশোরে যাওয়া-আসা করতেন। যাতায়াতের পথে বাসের হেলপার মনিরের সঙ্গে তার পরিচয় হয়। মাঝেমধ্যে মনিরের সঙ্গে মোবাইল ফোনে তার কথাবার্তা হতো। বৃহস্পতিবার রাজশাহী থেকে তিনি যশোরে আসার জন্য মনিরকে ফোন দেন। ওইদিন রাত ১১টার দিকে তিনি বাসে এসে মণিহার প্রেক্ষাগৃহের সামনে নামেন এবং মনিরকে ফোন করেন। মনির ফোন পেয়ে তার সঙ্গে দেখা করে। তিনি আরও জানিয়েছেন, ওই রাতে মনির মেয়েটিকে জানায়, বাঘারপাড়ায় যাওয়ার কোনও বাস পাওয়া যাবে না। তাকে যশোরেই থাকতে হবে। সে সময় মনির তাকে বাসের মধ্যে থাকার প্রস্তাব দেয় এবং পরে তাকে ধর্ষণ করে। বিষয়টি টের পেয়ে সেখানে থাকা অন্য তিন শ্রমিক ওই নারীকে ধর্ষণের চেষ্টা করে। সে সময় বাধা দিলে ওই তিন শ্রমিক তাকে মারপিট করে। পুলিশ সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে ওই নারীকে উদ্ধার করে যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে এবং মনিরসহ সাত জনকে থানায় নিয়ে যায়। মেয়েটি জানান, তাকে তিন জন ধর্ষণ করেছে।

৭ মাস পর চালু পার্ক প্রবেশ টিকিটের সঙ্গে মাস্ক ফ্রি

দেশ প্রতিবেদক, ঝিনাইদহ :
করোনা পরিস্থিতির কারণে ৭ মাস বন্ধ থাকার পর আবারও চালু হলো ঝিনাইদহের বিনোদন কেন্দ্র জোহান ড্রিমভ্যালি পার্ক অ্যান্ড রিসোর্ট সেন্টার। পার্কটি জেলা শহরের রাউতাইল এলাকায় চুয়াডাঙ্গা মহাসড়কের পাশে অবস্থিত। তবে, দর্শনার্থীদের টিকিটের সঙ্গে একটি মাস্ক বিনামূল্যে দেওয়া হবে। পার্কে বেড়াতে আসা ঝিনাইদহ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বদরুদ্দোজা শুভ জানান, তিনি তার ৩ সন্তানকে নিয়ে অনেক দিন পর পার্কে বেড়াতে এসেছেন। ঘরবন্দি থাকতে থাকতে ক্লান্ত পরিবারের লোকজন। একইসঙ্গে তিনি স্বাস্থ্যবিধি মেনে সীমিত আকারে দর্শনার্থী প্রবেশের বিষয়ে খেয়াল রাখার নির্দেশ দেন কর্তৃপক্ষকে। পার্কের মালিক মোয়াজ্জেম হোসেন জানান, করোনা পরিস্থিতির কারণে পার্কটি বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। গত শুক্রবার থেকে আবার পার্কটি চালু করা হয়েছে। তবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সামাজিক দূরুত্ব বজায় রেখেই পার্কে দর্শনার্থীদের চলাচলের আহ্বান জানান তিনি। ইতোমধ্যে পার্কে হাত ধোয়া, স্যানিটাইজার স্প্রে করা ও মাস্ক পড়া নিশ্চিত করতে সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছেন তারা। পার্কে যত দর্শনার্থী আসবে প্রত্যেককে টিকিটের সঙ্গে একটি মাস্ক বিনামূল্যে দেওয়া হবে। পার্কের কার্যক্রম দীর্ঘদিন বন্ধ থাকলেও কর্মচারী বেতন বন্ধ ছিল না। যে কারণে অনেক লোকসান গুনতে হয়েছে।

যশোরে সর্বস্তরের মানুষের মানববন্ধন

দেশ প্রতিবেদক, যশোর :
সারাদেশে নারী ও শিশুর ওপর নির্যাতন, নিপীড়ন ও ধর্ষণের ঘটনায় প্রতিবাদ জানাতে প্রেস ক্লাবের সামনে মুজিব সড়কে জড়ো হন তারা। নারী ও শিশু অধিকার ফোরাম, আলোর রেখা নারী সংঘ, ইচ্ছাপূরণ স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন, বিকশিত নারী নেটওয়ার্ক, জাতীয় কন্যা শিশু অ্যাডভোকেসি ফোরাম, যশোর ব্লাড ব্যাংক, যশোরের সর্বস্তরের সাধারণ শিক্ষার্থী, ইয়ুথ এন্ডিং হাঙ্গার, বাংলাদেশ সংগঠনের ব্যানারে সহস্রাধিক নারী-পুরুষ সড়কের দু’পাশে দাঁড়িয়ে যান। ঘণ্টাব্যাপী মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, বিচারহীনতার কারণে দেশে কয়েক বছর ধরে ধর্ষণ, নারী ও শিশু নির্যাতন, নিপীড়ন বেড়ে গেছে। এরই ধারাবাহিকতায় গত কয়েকদিনে সারাদেশে নারী ও শিশুর প্রতি পৈশাচিক নির্যাতনের ঘটনা ঘটছে। এখনই এসব ঘটনায় জড়িতদের আটক ও বিচার নিশ্চিত করতে না পারলে নারী ও শিশুদের নিরাপত্তা বলে কিছুই থাকবে না। এ জন্য দ্রুত আইনের সংস্কার করে বিচার ত্বরান্বিত করতে সরকারের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

এসএম সুলতানের ২৬তম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত

দেশ প্রতিবেদক, নড়াইল :
বিশ্ব বরেণ্য চিত্রশিল্পী এসএম সুলতানের ২৬তম মৃত্যুবার্ষিকী শনিবার (১০ অক্টোবর)। সুলতান ফাউন্ডেশনের সভাপতি ও জেলা প্রশাসক আনজুমান আরা জানান, শিল্পীর মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে সুলতান সংগ্রহশালা চত্বরে সকালে স্বাস্থ্যবিধি মেনে কোরআনখানি, দোয়া মাহফিল ও শিল্পীর কবরে পুষ্পমাল্য অর্পণ করা হয়। এই গুণী শিল্পী ১৯২৪ সালের ১০ আগস্ট নড়াইল শহরের মাছিমদিয়ায় জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবার নাম মেছের আলী, মা মাজু বিবি। রাজমিস্ত্রি বাবার সংসারে দারিদ্রতার মাঝেও ১৯২৮ সালে নড়াইল ভিক্টোরিয়া কলেজিয়েট স্কুলে লেখাপড়া শুরু করেন এসএম সুলতান। বাবার কাজে সহযোগিতার করার ফাঁকে ছবি আঁকতে শুরু করেন। এসময় তার আঁকা ছবি স্থানীয় জমিদারদের দৃষ্টি আর্কষণ করে। রাজনীতিক ও জমিদার শ্যামাপ্রাসাদ মুখোপাধ্যায় ১৯৩৩ সালে নড়াইলের জমিদার ব্যারিস্টার ধীরেন রায়ের আমন্ত্রণে ভিক্টোরিয়া কলেজিয়েট স্কুল পরিদর্শনে আসলে তার একটি পোট্রেট আঁকেন পঞ্চম শ্রেণির ছাত্র এসএম সুলতান। লেখাপড়া ছেড়ে ১৯৩৮ সালে কলকাতায় গিয়ে ছবি আঁকা ও জীবিকা নির্বাহ শুরু করেন সুলতান। সে সময় চিত্র সমালোচক শাহেদ সোহরাওয়ার্দীর সঙ্গে তার পরিচয় হয়। সোহরাওয়ার্দীর সুপারিশে অ্যাকাডেমিক যোগ্যতা না থাকা সত্ত্বেও ১৯৪১ সালে কলকাতা আর্ট স্কুলে ভর্তির সুযোগ পান এসএম সুলতান। ১৯৪৪ সালে আর্ট স্কুল ত্যাগ করে ঘুরে বেড়ান এখানে-সেখানে। এ সময় কাশ্মীরের পাহাড়ে আদিবাসীদের সঙ্গে বসবাস শুরু করেন এবং তাদের জীবন-জীবিকা নিয়ে চিত্রাঙ্কন শুরু করেন। ১৯৪৫-৪৬ সালে ভারতের সিমলায় তার প্রথম একক চিত্র প্রদর্শনী হয়। মোহাম্মদ আলী জিন্নাহর বোন ফাতিমা জিন্নাহ ১৯৪৮ সালে লাহোরে সুলতানের চিত্র প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন। ১৯৫০ সালে চিত্রশিল্পীদের আন্তর্জাতিক কনফারেন্সে পাকিস্তান সরকারের প্রতিনিধি হিসেবে যোগদানের জন্য তিনি যুক্তরাষ্ট্রে যান। এরপর ইউরোপের বেশ কয়েকটি দেশের একক ও যৌথ চিত্র প্রদর্শনীতে অংশগ্রহণ করেন। ১৯৫৩ সালে নড়াইলে ফিরে আসেন সুলতান। শিশু-কিশোরদের সাধারণ শিক্ষার পাশাপাশি চারুকলা শিক্ষার প্রসারের লক্ষ্যে ১৯৬৯ সালের ১০ জুলাই নড়াইলে ‘দ্য ইনস্টিটিউট অব ফাইন আর্ট’ প্রতিষ্ঠা করেন। ১৯৮৭ সালে স্থপন করেন ‘শিশুস্বর্গ’। চিত্রাপাড়ের লালমিয়া শিল্পের মূল্যায়ন হিসেবে পেয়েছেন ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ‘ম্যান অব দ্য ইয়ার’ নিউ ইয়র্কের বায়োগ্রাফিক্যাল সেন্টার থেকে ‘ম্যান অব অ্যাচিভমেন্ট’ এবং এশিয়া উইক পত্রিকা থেকে ‘ম্যান অব এশিয়া’ পুরস্কার। এছাড়া ১৯৮২ সালে একুশে পদক এবং ১৯৯৩ সালে স্বাধীনতা পদকে ভূষিত হন। ১৯৮৪ সালে বাংলাদেশ সরকারের রেসিডেন্ট আর্টিস্ট হিসেবে স্বীকৃতি এবং ১৯৮৬ সালে বাংলাদেশ চারুশিল্পী সংসদ সম্মাননা পান। সুলতানের স্মৃতিকে ধরে রাখার জন্য শিল্পীর মৃত্যুর পর সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে শিল্পীর বাসভবন সংলগ্ন ২ একর ৫৭ শতক জমির ওপর নির্মিত হয়েছে এস এম সুলতান স্মৃতি সংগ্রহশালা। ১৯৯৪ সালের ১০ অক্টোবর এই শিল্পী দীর্ঘদিন শ্বাসকষ্টে ভোগার পর যশোর সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। নড়াইলের কুড়িগ্রামের নিজ বাড়ির আঙিনায় তাকে শায়িত করা হয়।

বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে ইবির নতুন উপাচার্যের শ্রদ্ধা

দেশ প্রতিবেদক, গোপালগঞ্জ :
কুষ্টিয়ার ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের নব নিযুক্ত উপাচার্য অধ্যাপক ড. শেখ আব্দুস সালাম গতকাল শনিবার দুপুরে টুঙ্গিপাড়ায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন। পরে তিনি বঙ্গবন্ধু ও ১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্ট শাহাদত বরণকারীদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে ফাতেহা পাঠ, দোয়া ও বিশেষ মোনাজাত করেন। এসময় ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা ও কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

সবজির দাম সাধারণের ক্রয় ক্ষমতার বাইরে

দেশ প্রতিবেদক, বেনাপোল :
গত মার্চ মাস থেকেই করোনার কারণে কর্মহীন অনেক মানুষ। বেসরকারি সেক্টেরের অনেক সেক্টরেই চাকরি হারিয়েছেন অনেকে, অনেকে চাকরিতে থাকলেও বেতন বোনাস কমে গেছে। এর বাইরে ছোট ও মধ্যম মানের ব্যবসায়ীদেরও ব্যবসা কম। অসহায় স্থবিরতার মধ্য দিয়ে যাচ্ছে নতুন স্বাভাবিক পৃথিবীতে মানুষের জীবন। এদিকে দ্রব্যমূল্যের বাজারেও আগুন। সম্প্রতি কাঁচা বাজারে ঢোকাটাই কষ্টকর হয়ে পড়েছে সাধারণ মানুষের জন্য। সরেজমিনে জানা যায়, সব ধরনের সবজির দামের পাশাপাশি লাফিয়ে লাফিয়ে বেড়েছে কাঁচা মরিচের দাম। তিন থেকে সাত দিনের ব্যবধানে কাঁচা মরিচের দাম ২৫০ শত টাকায় পৌঁছেছে। এই সময়ে মরিচের দাম প্রতি কেজিতে বৃদ্ধি পেয়েছে ১০০ টাকা এবং সব ধরনের সবজির দাম ১৫ থেকে ৩০ টাকা পর্যন্ত বৃদ্ধি পেয়েছে। বাজারে চাহিদার তুলনায় পর্যাপ্ত সবজির সরবরাহ থাকলেও বৃদ্ধি পেয়েছে নিত্যপ্রয়োজনীয় এসব সবজির দাম। ব্যবসায়ীদের সিন্ডিকেটের কারণেই এটি হচ্ছে বলে অভিযোগ ক্রেতাদের। গতকাল শনিবার সকালে বেনাপোল ও শার্শার বিভিন্ন বাজারে প্রতিকেজি কাঁচা মরিচ ২৫০ টাকা, বেগুন ৭৫ থেকে ৮০ টাকা, গাজর ১০০ টাকা, খিরই ৪০ থেকে ৫০ টাকা, টমেটো ১০০ থেকে ১২০ টাকা, ঝিঙে ৫০ টাকা, পটল ৫০ টাকা, পেঁপে ৩০ থেকে ৪০ টাকা, আলু ৪০ টাকা, ঢেঁড়স ৪০ টাকা, উচ্ছে ৯০ থেকে ১০০ টাকা, করল্লা ৮০ টাকা, বরবটি ৫০ টাকা, কাঁকরল ৮০ টাকা, মিষ্টি কুমড়া ৩০ থেকে ৩৫ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। অথচ তিন থেকে চার দিন আগে কাঁচা মরিচ ১৫০ টাকা, বেগুন ৫০ টাকা, গাজর ১০০ টাকা, খিরই ৩০ থেকে ৩২ টাকা, টমেটো ১০০ টাকা, ঝিঙে ৩৫ থেকে ৩৬ টাকা, পটল ৩০ থেকে ৩২ টাকা, পেঁপে ২০ থেকে ২২ টাকা, আলু ৩৫ টাকা, ঢেঁড়স ৪০ টাকা, উচ্ছে ৬০ টাকা, করলা ৫০ থেকে ৫৫ টাকা, বরবটি ৪০ টাকা, কাকরল ৫০ থেকে ৫২ টাকা, মিষ্টি কুমড়া ২৫ থেকে ২৮ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছিল। তবে সপ্তাহখানেক আগেও এসব পণ্যের দাম ছিল খুবই স্বাভাবিক। একেবারেই হাতের নাগালে। শনিবার সকালে বেনাপোল বাজারে আসা ক্রেতা জিয়া বলেন, ‘করোনার সময়ে অধিকাংশ মানুষ কর্মহীন হয়ে পড়েছে। ফলে নিম্ন ও মধ্য আয়ের মানুষ পড়েছে বিপাকে। দাম যাতে শিগগির নিয়ন্ত্রণে আসে এজন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করছি। শার্শার নাভারন বাজারে আসা ক্রেতা আলমগীর হোসেন বলেন, ‘সবজির বাজার বেসামাল অবস্থা। তিন-চার দিনের মধ্যে কাঁচা মরিচের দাম কেজিপ্রতি কমপক্ষে ৮০ থেকে ১০০ টাকা বৃদ্ধি পেয়েছে। একই সঙ্গে বৃদ্ধি পেয়েছে সব ধরনের সবজির দামও। বিপাকে পড়েছে নিম্ন ও মধ্যম আয়ের মানুষ। বেনাপোল চেকপোস্টের শাপলা হোটেলের মালিক মনিরুজ্জামান বলেন, ‘অতিরিক্ত বৃষ্টিপাতের কারণে বাজারে সবজির সরবরাহ কমে যাওয়ায় সবধরণের সবজির দাম বৃদ্ধি পেয়েছে। একইভাবে পলাশ হোটেলের মালিক জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, ‘কাঁচা মরিচের পাশাপাশি সব ধরনের সবজির মূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে। শার্শা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সৌতম কুমার শীল জানান, দেশে এবার বৃষ্টিপাতের পরিমাণ বেশি। এতে সবজিসহ তরিতরকারির ক্ষেত ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এজন্য ব্যবসায়ীরা বাইরের জেলা থেকে এসব সবজি ও ঝাল ক্রয় করে আনছে। পরিবহন ভাড়া বেশি হওয়ার কারণে সবজি ও ঝালের মূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে।

মশিয়ালীর ট্রিপল মার্ডার : প্রধান আসামিসহ ৩ জন ৫ দিনের রিমান্ডে

দেশ প্রতিবেদক :
খুলনার খানজাহান আলী থানার মশিয়ালী গ্রামে নির্বিচারে গুলি করে তিনজনকে হত্যা মামলার প্রধান আসামি বহিস্কৃত আওয়ামী লীগ নেতা শেখ জাকারিয়া, তার ভাই মিল্টন ও আরেক আসামি রাজুর ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। গতকাল শনিবার দুপুরে খুলনা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের (নম্বর-৩) বিচারক মো. শাহীদুল ইসলাম এ রিমান্ড মঞ্জুর করেন। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা নগর গোয়েন্দা পুলিশ পরিদর্শক মো. এনামুল হক দশ দিনের রিমান্ডের আবেদন জানিয়েছিলেন। এনামুল হক জানান, গত ১৬ জুলাই নগরীর খানজাহান আলী থানার মশিয়ালী এলাকায় তিন জনকে গুলি করে হত্যা করা হয়। এ ঘটনার পর শেখ জাকারিয়া, তার ভাই মিল্টন ও আরেক আসামি রাজু আত্মগোপন করে। শুক্রবার (০৯ অক্টোবর) সকালে রাজধানীর মিরপুর এলাকার ১৮ তলা একটি ভবন থেকে তাদের গ্রেপ্তার করে খুলনা মহানগর ডিবি পুলিশ। তাদের হত্যাকাণ্ডের কারণ এবং কারা কারা জড়িত ছিল সেসব বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দশ দিনের রিমান্ডের আবেদন করা হয়েছিল। আদালত প্রত্যেককে ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে। মশিয়ালী গ্রামের একটি মসজিদ কমিটির মেয়াদ শেষ হলে সভাপতির পদ থেকে শেখ জাকরিয়াকে পদত্যাগ করতে বলে মিল শ্রমিক মুজিবরসহ মসজিদের মুসল্লিরা। সবার দাবির মুখে বাধ্য হয়ে পদ থেকে সরে দাঁড়াতে সম্মত হয়ে ১৭ জুলাই জুম্মার নামাজের পর পদত্যাগ করার সিদ্ধান্ত হয়। কিন্তু এর আগে ১৬ জুলাই বিকেলে জাকারিয়া ও তার ভাইয়েরা অস্ত্র দিয়ে মিল শ্রমিক মুজিবরকে পুলিশের কাছে ধরিয়ে দেয়। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে প্রতিবাদি এলাকাবাসীর উপর জাকারিয়া-জাফরিন-মিল্টন বাহিনী নির্বিচারে গুলি বর্ষণ করে। এ সময় গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যায় মশিয়ালী গ্রামের মৃত বারিক শেখের ছেলে মো. নজরুল ইসলাম (৬০), একই এলাকার মো. ইউনুছ আলীর ছেলে গোলাম রসুল (৩০) এবং পরে গুলিবিদ্ধ এলাকার সাইদুল ইসলামের ছেলে আটরা মেট্রো টেকনিক্যাল অ্যান্ড বিএম কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র সাইফুল ইসলাম (২২) খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায় এবং গুলিবিদ্ধ হয়ে আফসার শেখ, শামিম, রবি, খলিলুর রহমান, মশিয়ার রহমানসহ বেশ কয়েকজনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অপরদিকে বিক্ষুব্ধ গ্রামবাসীর গণপিটুনিতে জাকারিয়ার চাচাতো ভাই জিহাদ শেখ নিহত হন। এছাড়া হত্যাকারী সন্দেহে গ্রামবাসী কয়েকজনের বাড়ি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে অগ্নিসংযোগ করে। এই ঘটনায় খানজাহান আলী থানা আওয়ামী লীগের সহ-প্রচার সম্পাদক জাকারিয়া জাকারকে দল থেকে বহিস্কার করে খানজাহান আলী থানা আওয়ামী লীগ। ১৮ জুলাই নিহত মো. সাইফুল ইসলামের পিতা মো. শহিদুল ইসলাম বাদী হয়ে খানজাহান আলী থানায় মামলায় খানজাহান আলী থানা আওয়ামী লীগের বহিস্কৃত সহ-প্রচার সম্পাদক শেখ জাকারিয়া হোসেন জাকার, তার ভাই মহানগর ছাত্রলীগের বহিস্কৃত সহ-সভাপতি শেখ জাফরিন, অস্ত্র মামলার সাজাপ্রাপ্ত আসামি মিল্টনসহ ২২জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত ১৫-১৬ জনকে আসামি করে মামলা (যার নম্বর-১২, ১৮-৭-২০২০ইং) করেন। এই মামলার এজাহারভুক্ত ২২ জন আসামির মধ্যে এ পর্যন্ত ১৩ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

কুষ্টিয়ায় দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে নিহত ১

দেশ প্রতিবেদক, কুষ্টিয়া :
কুষ্টিয়া সদর উপজেলার ভবানীপুর গ্রামে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে ফরিদ হোসেন (৪৫) নামে একজন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন উভয়পক্ষের আরো কমপক্ষে ১০ জন। গতকাল শনিবার সকাল ১০টার দিকে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। গুরুতর আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। সংবাদ পেয়ে কুষ্টিয়া মডেল থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিয়েছে বলে নিশ্চিত করেন মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি)। নিহত ফরিদ স্থানীয় বাসিন্দা মৃত ময়েন ফারাজির ছেলে ও রাশিদুল-লাবু পক্ষের সমর্থক। প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, স্থানীয় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে এক সপ্তাহ আগে এক ব্যক্তিকে মারধরের ঘটনা ঘটে। সেই ঘটনায় স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা লিয়াকত আলী বাদশা-রেজা মণ্ডল পক্ষের সঙ্গে রাশিদুল-লাবু পক্ষের লোকজনদের বিরোধ সৃষ্টি হয়। এই বিরোধের জেরে শনিবার সকালে রাশিদুল-লাবু পক্ষের সমর্থকরা বাদশা এবং রেজা মণ্ডলের বাড়িঘরে হামলা ও ভাঙচুর করে। এসময় উভয় পক্ষের লোকজনদের মধ্যে সংঘর্ষ বেঁধে যায়। এতে দেশীয় ধারালো অস্ত্রের আঘাতে উভয়পক্ষের অন্তত ১০ জন গুরুতর আহত হন। আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়ার পথে ফরিদ হোসেন নামে এক ব্যক্তি মারা যায়। মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুজ্জামান তালুকদার জানান, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিয়েছে। অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে সেখানে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

খুলনায় প্রশাসনের হস্তক্ষেপে বাল্য বিবাহ বন্ধ

দেশ প্রতিবেদক :
খুলনা মহানগরীর লবণচরার ইসলামপাড়া এলাকায় বাল্য বিবাহ বন্ধ করেছে জেলা প্রশাসন। শুক্রবার ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট দেবাশীষ বসাক। অভিযুক্ত কণ্যার পিতাকে অর্থদন্ড করেন তিনি। সূত্রে জানা গেছে, নগরীর ইসলামপাড়া এলাকায় ১৪ বছরের কিশোরীকে বাল্য বিবাহের প্রস্তুতিকালে অভিযান চালিয়েছে লবনচরা থানা পুলিশ। জেলা প্রশাসনের নির্দেশে তৎক্ষণাত সে বিয়ের আয়োজন বন্ধ করা হয়। মেয়ের বয়স গোপন করে বাল্যবিবাহ আয়োজনের নির্দেশ প্রদান করার দায়ে কন্যার পিতাকে ‘বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন, ২০১৭’ এর যথাযথ বিধান মোতাবেক অর্থদন্ড করেন নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট। একই সাথে পাত্রের নিকট থেকে ভবিষ্যতে বাল্য বিবাহের সাথে সংশ্লিষ্ট না হওয়ার মুচলেকা গ্রহণপূর্বক বিয়ের অনুষ্ঠানস্থল থেকে পাত্র পক্ষের চলে যাওয়া নিশ্চিত করেন নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট দেবাশীষ বসাক। বাল্য বিবাহের মতো সামাজিক অপরাধ নির্মূলে জেলা প্রশাসনের এমন অভিযান অব্যাহত থাকবে।

দাকোপে নদীর চরে বঙ্গবন্ধু ম্যানগ্রোভ ফরেষ্ট

দেশ প্রতিবেদক :
খুলনার দাকোপ উপজেলায় পশুর নদের চরে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচির আওতায় চর বনায়ন করা হয়েছে। চর বনায়নের উদ্বোধন করেন সংরক্ষিত নারী-৩০ (খুলনা-বাগেরহাট) আসনের সাংসদ অ্যাডভোকেট গ্লোরিয়া ঝর্ণা সরকার। গত বৃহস্পতিবার উদ্বোধনের পর গেল দু’দিনে আরো গাছ লাগানো হয়েছে। বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ওয়েস্কা ইন্টারন্যাশনাল (আইডিবি) জাপান বাংলাদেশের অর্থায়নে উপজেলা প্রশাসনের সহযোগীতায় রূপসা সংস্থা ‘চর বনায়ন প্রকল্প’ বাস্তবায়ন করছেন। পশুর নদের পাড়ে প্রায় দুইশ’ কিলোমিটার জায়গায় বনটির উদ্বোধনের আয়োজন করে রূপসা সংস্থা। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বনের নাম ‘বঙ্গবন্ধু ম্যানগ্রোভ ফরেষ্ট’ নামে ঘোষণা দেন সাংসদ গ্লোরিয়া ঝর্ণা সরকার। গ্লোরিয়া ঝর্ণা বলেন, সামাজিক এই বন গড়ে তোলা হয়েছে নদীতে জেগে ওঠা চরে। মূলত নদীভাঙন রোধ, উপকূলীয় এলাকায় সবুজবেষ্টনী গড়ে তোলা, ঝড়-জলোচ্ছ্বাস থেকে এলাকা রক্ষা, সরকারি জমি অবৈধ দখলদারমুক্ত রাখা, জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ, পশুপাখির আবাসস্থল গড়ে তোলা, পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করা এবং স্থানীয়ভাবে জ্বালানির চাহিদা মেটানো ও ঘরবাড়ি নির্মাণ করার জন্য বনায়ন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে জানান তিনি। এতে জুম অ্যাপসের মাধ্যমে সংযুক্ত হন দাকোপ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আবদুল ওয়াদুদ। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অংশ নেন রূপসা সংস্থার নির্বাহী পরিচালক হিরন্ময় মণ্ডল, ওয়েস্কা ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের প্রতিনিধি হামিদুল হক মানিক, রূপসা সংস্থার ফিরোজা খাঁনম, অনুপ মণ্ডল, আজিজুর রহমান ও অভিজিৎ বিশ্বাসসহ আরও অনেকে।

দৌলতপুরে ফুটপাত দখল মৌসুমী ফল ব্যবসায়ীদের

দেশ প্রতিবেদক :
একের পর এক উচ্ছেদ, তারপর ফের ফুটপাত দখল করে ব্যবসা করছে মৌসুমী ফল ব্যবসায়ীরা। স্থানীয় প্রশাসনকে ম্যানেজ করেই ফুটপাত দখল করেই ব্যবসা করা হয় বলে অভিযোগ আছে। নগরীর দৌলতপুরের ফুটপাতের অবস্থা দেখলে মনে হবে এটি বড় কোন বাজার। খুলনা সিটি কর্পোরেশন থেকে একাধিকবার ফুটপাত উচ্ছেদ অভিযান করলেও ২/৩ দিনের ব্যবধানে পুনরায় ফুটপাত দখল করে ব্যবসায়ীরা। নগরীর দৌলতপুর থানাধীন নতুন রাস্তার মোড় থেকে শুরু করে বেবীট্যাক্সী স্ট্যান্ড পর্যন্ত এবং আঞ্জুমান ঈদগাহের সামনের ফুটপাতের ওপর গড়ে উঠেছে অবৈধ দোকান। যার ফলে পথচারী চলাচলে চরম বিগ্নের সৃষ্টি হচ্ছে। যার ফলে মহিলা এবং শিশুরা পড়েছে সবথেকে বিপত্তিতে। ফুটপাত দখল হওয়ায় তারা ঝুঁকি নিয়ে রাস্তার পাশ দিয়ে চলাচল করছে। যার ফলে প্রতিনিয়ত ঘটে দূর্ঘটনা। বিশেষ করে দৌলতপুর ট্রাফিক মোড় থেকে আঞ্জুমান ঈদগাহ মাঠ পর্যন্ত মহাসড়কের দু’পার্শ্বে বিভিন্ন অবৈধ ব্যবসায়ীরা ফুটপাত দখল করে মৌসুমী ফল বিকিকিনি করে। ব্যবসায়ীরা কলা, ডিম, মালটা, লেবু, আঙ্গুর, আপেল, বিভিন্ন ধরণের ফুল, মাস্ক, স্যানেটাইজার, ডাবসহ নানান ধরণের ফল বিকিকিনি করে। ইদানীং মৌসুমী ব্যবসায়ীদের বাইরে কাপড়ের দোকানও দৃশ্যমান হয়েছে। বাজার কমিটি বা পুলিশ এ বিষয়ে কোন ব্যবস্থা নেয় না। এদিকে কর্তৃপক্ষ ফুটপাত দখল উচ্ছেদের অভিযানের সংবাদ আগেই পেয়ে যায় এখনকার ব্যবসায়ীরা। এর ফলে দোকান বন্ধ করে অধিকাংশ ব্যবসায়ীরা পালিয়ে যায়। ঘটনাক্রমে যদি ৩/৪ টি দোকান খোলা থাকলে তাদেরকে করা হয় সতর্ক। ফুটপাত দখল উচ্ছেদে কঠোর কোন ব্যবস্থা না নেওয়ার ফলে রীতিমত দৌলতপুরের ফুটপাত এখন এক প্রকার স্থায়ী বাজারে পরিণত হয়ে গেছে। এ বিষয়ে স্থানীয় পুুলিশ জানিয়েছে ফুটপাত দখল করে ব্যবসা করাটা অন্যায়। তবে এ বিষয়ে দৌলতপুরের বাজার কমিটির ব্যবস্থা নিলে আমরা সহযোগীতা করব। দৌলতপুরের বাজার কমিটি এ বিষয়ে কোন বক্তব্য দিতে রাজি নন। খুলনা সিটি কর্পোরেশনের এষ্টেট কর্মকর্তা নুরুজ্জামান তালুকদার জানান, জেলা আইনশৃংখলা বিষয়ক কমিটির সভায় ফুটপাত দখলমুক্ত করার সিদ্ধান্ত আছে। ম্যাজিষ্ট্রেট না থাকায় অনেক সময় অভিযান করা হয় না। তবে মেয়রের নির্দেশনায় খুব দ্রুতই অভিযান করা হবে।

নারী নির্যাতনের প্রতিবাদে খুলনায় সুজনের মানববন্ধন

দেশ প্রতিবেদক :
ক্রমবর্ধমান নারী নির্যাতনের প্রতিবাদ এবং দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে গতকাল শনিবার সকাল ১১ টায় খুলনার শিববাড়ী মোড়ে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। “সুজন-সুশাসনের জন্য নাগরিক”এর আহ্বানে উক্ত মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন সুজন জেলা কমিটির সভাপতি ও বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ অধ্যক্ষ জাফর ইমাম, সম্পাদক এড. কুদরৎ ই খুদা, মহানগর কমিটির সম্পাদক অধ্যাপিকা রমা রহমান, নারী নেত্রী রসু আক্তার, এড. শামীমা সুলতানা শিলু, পেইভ-এর পীস এ্যাম্বেসেডর শরিফ শফিকুল হামিদ চন্দন ও নিজামউর রহমান লালু, সিপিবি নেতা মিজানুর রহমান বাবু, শেখ আঃ হালিম, বিকাশিত নারী নেটওয়ার্কের জেলা সাঃ সম্পাদক লাকী আক্তার, খালিশপুর থানা কমিটির সম্পাদক খলিলুর রহমান সুমন, শেখ আইনুল হক, সাবিদ খান, শেখ হেদায়েত হোসেন, অবকাশ গণ গ্রন্থগারের সাঃ সম্পাদক খন্দকার খলিলুর রহমান, রাজু আহমেদ, সুপ্রিয় মন্ডল, গণ সংহতি আন্দোলন জেলা কমিটির আহবায়ক মুনীর চৌধুরি সোহেল, ছাত্র ফেডারেশনের আহবায়ক আল আমিন শেখ, নজরুল ইসলাম, এস এম খলিলুর রহমান, ইউনুস আলী পাটোয়ারী, শফিকুল ইসলাম, প্রমূখ। মানববন্ধন পরিচালনায় ছিলেন সুজন বিভাগীয় সমন্বয়কারী মাসুদুর রহমান রঞ্জু। মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, ধর্ষনসহ সকল ধরণের নারী নির্যাতন প্রতিরোধে রাষ্ট্র কর্তৃক যথোপযুক্ত ব্যবস্থা করতে হবে। প্রতিটি ঘটনা তদন্তপূর্বক দোষীদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। বিদ্যামান আইনের যথাযথ প্রয়োগ নিশ্চিত করতে হবে। ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি হোক মৃত্যু দন্ড। ধর্ষকপোষা রাজনীতি অবিলম্বে বন্ধ করতে হবে। রাজনৈতিক দুর্বৃত্তায়ন সমবেতভাবে রুখে দাড়াতে হবে।

নির্যাতনের প্রতিবাদে নারী ও শিশু অধিকার ফোরামের মানববন্ধন

দেশ প্রতিবেদক :
খুলনাসহ দেশব্যাপী নারী ধর্ষণ ও নির্যাতনের প্রতিবাদে নারী ও শিশু অধিকার ফোরাম খুলনা মহানগর শাখার পক্ষ থেকে গতকাল শনিবার বেলা ১১টায় নগরীর পিকচার প্যালেস মোড়ে অনুষ্ঠিত মানববন্ধন কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়। দু’দিনব্যাপী প্রতিবাদ কর্মসূচির অংশ হিসেবে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। কর্মসূচিতে সভাপতিত্ব করেন নারী ও শিশু অধিকার ফোরাম খুলনা মহানগর আহ্বায়ক ও সাবেক সিটি মেয়র মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান মনি। পরিচালনা করেন সদস্য সচিব নারীনেত্রী রেহানা ইসা। পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন ফোরামের প্রচার সম্পাদক সাংবাদিক মুহাম্মদ নূরুজ্জামান। প্রধান অতিথি ছিলেন সাবেক সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম মঞ্জু। প্রধান বক্তা ছিলেন জেলা বিএনপি’র সভাপতি এ্যাড. শফিকুল আলম মনা। অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন- শিক্ষাবিদ অধ্যক্ষ তারিকুল ইসলাম, শিক্ষক নেতা অধ্যাপক মনিরুল হক বাবুল, বিএনপি নেতা মনিরুজ্জামান মন্টু, শেখ আব্দুর রশিদ, খুলনা উন্নয়ন সংগ্রাম সমন্বয় কমিটির নেতা নিজামুর রহমান লালু, সিরাজুল হক নান্নু, এ কে এম শহীদুল ইসলাম, আইনজীবী ফোরাম নেতা অ্যাডভোকেট গোলাম মাওলা, এ্যাড. কানিজ ফাতেমা আমিন, কাওছারী জাহান মঞ্জু, সাবেক কাউন্সিলর আনজিরা খাতুন। উপস্থিত ছিলেন এ্যাড. ফজলে হালিম লিটন, স ম আব্দুর রহমান, মোল্লা খায়রুল ইসলাম, এড. শরিফুল জোরদার খোকন, এ্যাড. মোমরেজুল ইসলাম, এড. মাসুম আল রশিদ, কামরুজ্জামান টুকু, নজরুল ইসলাম বাবু, আসাদুজ্জামান মুরাদ, মেহেদি হাসান দিপু, ইকবাল হোসেন খোকন, শাহিনুল ইসলাম পাখি, মর্শিদুর রহমান লিটন, ইউসুফ হারুন মজনু, সাজ্জাদ আহসান পরাগ, ওয়াহিদুজ্জামান, মুরশিদ কামাল, ইকরামুল কবির মিল্টন, হাসানুর রশীদ মিরাজ, অধ্যাপক গুলশান আরা, মশিউর রহমান যাদু, শামসুজ্জামান চঞ্চল, শরিফুল ইসলাম বাবু, নাজির উদ্দিন আহমেদ নান্নু, মোল্লা মজিবুর রহমান, হাফেজ আবুল বাশার, অধ্যাপক মুন্সি শফিকুল ইসলাম, নিয়াজ আহমেদ তুহিন, রাহাত আলী লাভলু, জসিম উদ্দিন লাবু, কেসিসি’র কাউন্সিলর হাফিজুর রহমান মনি, আবু সায়ীদ হাওলাদার, আব্বাস তালুকদার, শাহাবুদ্দিন মন্টু, বদরুল আনাম, হাসনাহেনা, মাহবুব হোসেন, সরদার রবিউল ইসলাম রবি, আনসার আলী, হারুন-অর-রশিদ, মেজবাহউদ্দিন মিজু, এনামুল হক সজল, মোল্লা ফরিদ আহমেদ, মোস্তফা কামাল, তহিদুল ইসলাম খোকন, মোজাফফর হোসেন, ওয়াহিদুর রহমান দিপু, আব্দুল জব্বার, হেদায়েত হোসেন হিদু, আব্দুল আলিম, ওয়াহিদুজ্জামান, গৌতম দে হারু, মাজেদা খাতুন, মনিরুল ইসলাম, জুলকার নাইন, জামাল উদ্দিন মন্ডল, আলহাজ্ব সাব্বির হোসেন, মোহাম্মদ আলী, হুমায়ুন কবির, জাকারিয়া লিটন, রাজু আহমেদ, সাইফুল ইসলাম রাজ্জাক, ডাক্তার ফারুক হোসেন, চমন আরা, সেলিম বড় মিয়া, মনিরা সুলতানা, লায়লা পারভীন, আব্দুল মাজেদ, রফিকুল ইসলাম, মনিরুজ্জামান লেলিন, কাজী মুহাম্মদ মাসুম ও মশিউর রহমান লিটন প্রমুখ।

বিকাশ প্রতারণায় ২৩ হাজার টাকা খুইয়েছেন খুবি শিক্ষার্থী

দেশ প্রতিবেদক :
বিকাশ প্রতারক চক্রের খপ্পরে পড়ে ২৩ হাজার টাকা খুইয়েছেন খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী মৌমিতা রায়। গতকাল গতকাল শনিবার সোনাডাঙ্গা মডেল থানায় সাধারণ ডায়েরি (যার নং-৬৩১) করেছেন। গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় বিকাশ হ্যাকিং চক্রের কবলে পড়েন তিনি। সূত্রে জানা গেছে, শনিবার সন্ধ্যায় +১৬২৪৭ থেকে কল করে বিকাশ এজেন্ট অফিস থেকে কল করা হয়েছে বলে কিছু তথ্য চাওয়া হয়। তিনি তাদের চাহিদা মত সকল তথ্য দেন। এর কিছুক্ষণ পরে দেখতে পান তার বিকাশ একাউন্ট থেকে ১৫ হাজার ও ৮ হাজার দুই দফায় ২৩ হাজার টাকা বের করে নেয়া হয়েছে। বিষয়টি বিকাশ কর্তৃপক্ষের হট লাইনে জানানো হলে তাকে বলা হয় ০১৮৮২২৩৫৬৪৬৭ পারসোনাল নম্বরে ১৫ হাজার টাকা এবং ০১৮৪৬৭৫৩৮০৭ এজেন্ট নম্বরে ৮ হাজার টাকা নেয়া হয়েছে। গতকাল শনিবার বিকেল ৩টা ৩২মিনিটে ০১৮৪৬৭৫৩৮০৭ ফোন করে সেটি খোলা পাওয়া যায়। এদিকে, বিকাশ চক্রের খপ্পরে পড়ে টাকা খুইয়ে ওই ছাত্রী চরম বিপাকে পড়েছেন। খুবি’র চারুকলা বিভাগের শিক্ষার্থী মৌমিতা রায় অভিযোগ করেছেন, গতকাল শনিবার দুপুর আড়াইটার দিকে বিকাশ অফিসে গেলেও সহযোগিতা করেননি কর্মকর্তারা। তিনি বলেন, গতকাল প্রতারিত হবার পরপরই আমি বিকাশ হেল্প লাইনে কল করেছিলাম। তারা আমার পাসওয়ার্ড পরিবর্তন করতে বললেন, করলাম। সেই সময়ে আমার নম্বরে সাড়ে চারশ’ টাকা, সেই টাকাটা আটকতে বললাম। হেল্প লাইনও বললো, ঠিক আছে- টাকাটা আটকে দিলাম। কিন্তু সকালে উঠে দেখি সেই সাড়ে চারশ’ টাকাও নম্বরে নেই। জিডি করে খুলনা বিকাশ অফিসে গেলেও কর্তব্যরত কর্মকর্তারা সহযোগিতা করছেন না বলে অভিযোগ ভুক্তভোগীর।

হরিণাকুণ্ডু পৌরসভায় নির্বাচনের আগাম আমেজ

দেশ প্রতিবেদক, ঝিনাইদহ :
ঝিনাইদহের হরিণাকুণ্ডু পৌরসভায় বইতে শুরু করেছে ভোটের হাওয়া। আগামী ডিসেম্বরে পৌরসভা নির্বাচন হতে পারে, নির্বাচন কমিশনের এমন ইঙ্গিতের পরে মাঠে নেমে পড়েছেন সম্ভাব্য প্রার্থী ও তাদের কর্মী-সমর্থক। দলীয় মনোনয়ন পেতে দৌড়ঝাঁপ শুরু হয়েছে। কর্মী-সমর্থককে নিয়ে কেন্দ্রীয় ও জেলা পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ এবং স্থানীয় সংসদ সদস্যের কাছে ছুটছেন সম্ভাব্য প্রার্থীরা। ২০০২ সালে তৎকালীন হরিণাকুণ্ডু, তাহেরহুদা ও দৌলতপুর ইউনিয়নের কয়েকটি এলাকা নিয়ে তৃতীয় শ্রেণির পৌরসভা হিসেবে এ পৌরসভার যাত্রা শুরু। বর্তমানে পৌরসভার ভোটার ১৭ হাজার ২৯৬ জন। সর্বশেষ ২০১৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর এ পৌরসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। সেই নির্বাচনে ৮ হাজার ১৭৫ ভোট পেয়ে জয়ী হন আওয়ামী লীগের প্রার্থী। উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোঃ নূর-উল্লাহ জানান, আগামী নভেম্বরে তফসিল ঘোষণা এবং ডিসেম্বরে পৌর নির্বাচন হতে পারে। এরই মধ্যে নির্বাচন কমিশনের নির্দেশনায় তারা সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছেন। এবারের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের টিকিট পেতে একাধিক সম্ভাব্য প্রার্থী মাঠে নেমেছেন। তারা হলেন- বর্তমান মেয়র পৌর আওয়ামী লীগের (একাংশের) সভাপতি শাহিনুর রহমান রিন্টু, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও পৌর আওয়ামী লীগের (একাংশের) সাধারণ সম্পাদক কাউন্সিলর ফারুক হোসেন ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য (প্রস্তাবিত কমিটি) সাইফুল ইসলাম টিপু মল্লিক। বিএনপিতে নির্বাচন নিয়ে কোনো তোড়জোড় না থাকলেও গত দ্’ুবারের পরাজিত প্রার্থী পৌর বিএনপির সভাপতি জিন্নাতুল হক খানই দল নির্বাচনে গেলে এবারও প্রার্থী হতে পারেন বলে শোনা যাচ্ছে। জিন্নাতুল হক খান জানান, দল নির্বাচনে গেলে তিনি এবারও প্রার্থী হতে আগ্রহী। তিনি দলীয় মনোনয়নের বিষয়েও শতভাগ আশাবাদী। জেলা বিএনপির সদস্য সচিব এম এ মজিদ বলেন, বিএনপি নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত রয়েছে। দল নির্বাচনে অংশগ্রহণ করলে হরিণাকুণ্ডু পৌরসভা নির্বাচনের প্রার্থী জিন্নাতুল হক খানকে এবারও দলীয় মনোনয়ন দেয়া হবে। আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশী শাহিনুর রহমান রিন্টু বর্তমান মেয়র হিসেবে ব্যাপক উন্নয়ন করেছেন দাবি করে জানান, এবারও তিনি দলীয় মনোনয়নের ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী। দলটির আরেক মনোনয়নপ্রত্যাশী ফারুক হোসেন জানান, মনোনয়ন পেলে তিনি ব্যাপক ভোটে নির্বাচিত হবেন। তিনি হরিণাকুণ্ডুকে দ্বিতীয় শ্রেণির পৌরসভায় উন্নীত করে পৌরবাসীর সহায়তায় মাদক ও সন্ত্রাসমুক্ত আধুনিক পৌরসভা হিসেবে গড়ে তুলতে কাজ করবেন। অন্য মনোনয়নপ্রত্যাশী সাইফুল ইসলাম টিপু মল্লিকও দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, সাধারণ মানুষের দোরগোড়ায় নাগরিক সেবা পৌঁছে দিতে মেয়র হিসেবে নয়, পৌরবাসীর একজন সেবক হিসেবে আমি তাদের পাশে থাকব। উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রবিউল ইসলাম বলেন, পৌর নির্বাচন উপলক্ষে সম্ভাব্য প্রার্থীদের অতীত ও বর্তমান কর্মকাণ্ড বিবেচনা করা হচ্ছে। সবদিক বিবেচনা করে জনগণের কাছে গ্রহণযোগ্য, সৎ ও ক্লিন ইমেজের প্রার্থীর নাম সুপারিশ করে কেন্দ্রে পাঠানো হবে। জেলা আওয়ামী লীগের উপ-দপ্তর সম্পাদক জাহাঙ্গীর হোসাইন বলেন, সম্ভাব্য প্রার্থীদের জনসম্পৃক্ততা ও রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড বিবেচনা করে জনসাধারণের কাছে সর্বাধিক গ্রহণযোগ্য নেতাদের নাম কেন্দ্রে পাঠানো হবে।

কেশবপুরে গৃহবধুকে হত্যা : আদালতে স্বামীর স্বীকারোক্তি

দেশ প্রতিবেদক, যশোর :
যশোরের কেশবপুরে টেলিভিশনে তামিল সিনেমা দেখতে না দেয়ায় অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী বৃষ্টি খাতুনকে গলা কেটে হত্যা করে স্বামী সাইফুল ইসলাম মনা। যশোর জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে দেয়া স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে তিনি এ কথা বলেছেন। আটক সাইফুল ইসলাম মনা সরদার কেশবপুর উপজেলার পাঁচ বাকাবর্শি গ্রামের মৃত আব্দুল খালেক সরদারের ছেলে। বিচারক মামুনুর রহমান জবানবন্দি গ্রহণ শেষে তাকে জেলহাজতে পাঠানোর আদেশ দেন। জবানবন্দিতে সাইফুল ইসলাম উল্লেখ করেন, দুই বছর আগে একই উপজেলার চিংড়া বাজারের রফিকুল ইসলামের মেয়ে বৃষ্টি খাতুনকে বিয়ে করেন তিনি। বাড়িতে কেউ না থাকায় মেজ ভাইয়ের ঘরে বসে বুধবার রাত ১১টার দিকে সাইফুল ও তার স্ত্রী বৃষ্টি খাতুন টেলিভিশন দেখছিলেন। ওই সময় সাইফুল তামিল ছবি দেখতে চান। তখন তার স্ত্রী অন্য চ্যানেলে সিরিয়াল দেখবেন বলে জানান। এ নিয়ে দু’জনের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায় বৃষ্টি তার স্বামী সাইফুলকে গালি দেন। এরপর টেলিভিশনের রিমোট বৃষ্টির কাছে দিয়ে সাইফুল ঘরের বাইরে চলে যান। এরপর তিনি বারান্দায় একঘণ্টা বসে থাকার পর ঘরে গিয়ে দেখেন স্ত্রী বৃষ্টি টেলিভিশন চালিয়ে রেখে ঘুমিয়ে পড়েছেন। তখন তিনি বৃষ্টির বুকের ওপর বসে বাম হাতে মুখ চেপে ধরে ডান হাতে থাকা দা দিয়ে গলায় কেটে হত্যা করেন। এরপর বাড়ির পাশে আজিজুর রহমানের পুকুরে দা ফেলে দিয়ে চিৎকার করে কান্নাকাটি করেন। তখন আশপাশের লোকজন এলে সাইফুল বলেন বৃষ্টির সাথে অন্য পুরুষের সম্পর্ক ছিল। তারা ছয়-সাতজন এসে তাকে গলা কেটে হত্যা করেছে। খবর পেয়ে পুলিশ এসে লাশ উদ্ধার করে যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। এই ঘটনায় বৃষ্টির পিতা বাদী হয়ে কেশবপুর থানায় হত্যা মামলা করেন। রাতেই পুলিশ সাইফুলকে আটক করে। এরপর শুক্রবার বিকেলে সে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী প্রদান করে।

আ’লীগের প্রতিনিধি সভায় দলে প্রতিহিংসাকারীর ঠাঁই নেই : মোজাম্মেল হক

দেশ প্রতিবেদক, যশোর :
আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেছেন, ‘নেতৃত্বের প্রতিযোগিতা থাকলেও বঙ্গবন্ধুর আদর্শে উজ্জীবিত দলে প্রতিহিংসাকারীদের ঠাঁই নেই।’ তিনি বলেন, ‘নৌকা প্রতীক নিয়ে কোনো ভাগাভাগি চলবে না। তৃণমূলের শক্তিই শেখ হাসিনার প্রাণ। তাই যশোর আওয়ামী লীগে কোনো গ্রুপিং দেখতে চাই না। এ কারণে সদর উপজেলা নির্বাচনে সব নেতার ভালোবাসার পাত্র দীর্ঘ রাজনৈতিক সংগ্রাম ও ক্লিন ইমেজের নেত্রী নূরজাহান ইসলাম নীরাকে মনোনয়ন দেয়া হয়েছে।’ অতীতের সব বিভেদ ভুলে এক ছায়াতলে থেকে জননেত্রীর আশীর্বাদপুষ্ট নূরজাহান ইসলাম নীরাকে জয়ী করার আহ্বান জানান তিনি। গত শুক্রবার বিকেলে জেলা পরিষদ মিলনায়তনে সদর ও পৌর আওয়ামী লীগের প্রতিনিধি সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন। সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহিত কুমার নাথের সভাপতিত্বে প্রতিনিধি সভায় বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন জেলা সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলন, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সাইফুজ্জামান পিকুল ও নৌকা প্রতীকের প্রার্থী নূরজাহান ইসলাম নীরা, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও যশোর-৬ আসনের সংসদ সদস্য শাহীন চাকলাদার। শহর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাহমুদ হাসান বিপুর সঞ্চালনায় বক্তৃতা করেন সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহারুল ইসলাম, উপজেলা ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন বিপুল, পৌর কাউন্সিলর হাবিবুর রহমান চাকলাদার মনি, রোকেয়া পারভীন ডলি, উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক অশোক কুমার বোস ও ছাত্রলীগ সাবেক নেতা রওশন ইকবাল শাহী। সভায় যশোরের ১৫টি ইউনিয়ন ও পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকরা উপস্থিত ছিলেন।

শ্যামনগরে ভারতীয় ছাগলসহ আটক ১

দেশ প্রতিবেদক, সাতক্ষীরা :
সাতক্ষীরার শ্যামনগর থানার পুলিশ এক অভিযান চালিয়ে ভারত থেকে পাচার করে আনা ১৩ টি মারাঠী জাতের ছাগল উদ্ধার করেছে। শনিবার ভোরের দিকে সুন্দরবন সংলগ্ন কালিঞ্চী গ্রামের আব্দুল কাদেরের বাড়ি থেকে পুলিশ এই ছাগল গুলো উদ্ধার করে। এ সময়ে চোরাচালানীর অভিযোগে আব্দুল কাদেরকে আটক করা হয়। পুলিশ জানায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সাতক্ষীরার শ্যামনগর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) খবির হোসেনের নেতৃত্বে পুলিশ ভোরে সুন্দরবন সংলগ্ন কালিঞ্চী গ্রামে অভিযান চালিয়ে আব্দুল কাদেরের বাড়ি থেকে ভারতের মারাঠী জাতের ১৩ টি ছাগল উদ্ধার করে। অবৈধভাবে ভারত থেকে এই ছাগল গুলো পাচার করে বাংলাদেশে আনা হয়। এ ঘটনায় পুলিশ আব্দুল কাদের নামের এক পাচারকারীকে হাতেনাতে আটক করে। তবে, পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে পাচারের মুল হোতা আব্দুল্লাহ তরফদার পালিয়ে যায়। আব্দুল্লাহ দীর্ঘদিন ধরে সুন্দরবনে বনদস্যু কাজে জড়িত ছিল। এ ঘটনায় শ্যামনগর থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। শ্যামনগর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নাজমুল হুদা ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ‘একটি সংঘবদ্ধ পাচারকারীর দল সুন্দরবনের ভেতর দিয়ে ভারতীয় ছাগল পাচার করছে এমন গোপন খবরের ভিত্তিতে পুলিশ অভিযান চালিয়ে ১৩ টি মূল্যবান মারাঠী জাতের ছাগল আটক করে। আটক ছাগল গুলোর মূল্য প্রায় ৬ লাখ টাকা বলে জানান তিনি।

খুলনা সোসাইটির দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত

বিজ্ঞপ্তি :
খুলনা সোসাইটির শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক প্রফেসর তাসরিনা বেগমের স্বামী প্রয়াত অধ্যক্ষ নুর উদ্দিন আল মাসুদ এর ১ম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে গতকাল শনিবার বাদ মাগরিব সংগঠনের উদ্যোগে দোয়া মাহফিল ও স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় সোসাইটির অসুস্থ সদস্য আজিজুল হাসান দুলু, ইসরাত আমিন সাবানা, ডা: চয়ন বিশ্বাস, অধ্যক্ষ মির্জা নুরুজ্জামানসহ অসুস্থ সকল সদস্য ও পরিবারের সকলের জন্য দোয়া করা হয়। সংগঠনের চেয়ারম্যান এস এম সোহেল ইসহাক এর সভাপতিত্বে ও মহাসচিব ইঞ্জি. সাব্বির হোসেন এর পরিচালনায় সভায় আরও বক্তৃতা করেন ও উপস্থিত ছিলেন কাজী আইনুল মুন, আব্দুল জলিল সাগর, মো: জয়নাল ফরাজী, ইঞ্জি: আরিফুল ইসলাম, ড. মো: শাফায়েত হোসেন, এস এম মিশকাতুল ইসলাম, ইয়াফেস ইসতিহাদ দীপ, আমিনুর রহমান প্রমুখ। দোয়া পরিচালনা করেন মাওলানা ফায়জুল্লাহ।

উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী মন্টু’র পক্ষে জেলা যুবলীগ নেতার গণসংযোগ

দেশ প্রতিবেদক, পাইকগাছা :
পাইকগাছা উপজেলা পরিষদ উপ-নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী মোঃ আনোয়ার ইকবাল মন্টু’র পক্ষে শনিবার (১০ অক্টোবর) বিকালে উপজেলার দেলুটি ইউনিয়নের বিভিন্ন স্থানে লিফলেট বিতরণ ও গণসংযোগ করেছেন খুলনা জেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জসীম উদ্দিন বাবু। তিনি এলাকার উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে সাধারণ ভোটারদের কাছে নৌকা প্রতীকে ভোট প্রার্থনা করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা যুবলীগের সদস্য রাম টিকাদার, মোঃ আকরামুল ইসলাম, অঞ্জন মন্ডল, ইউপি সদস্য বিশ্বজিত রায়, কৃষ্ণপদ শীল, নীশিত মজুমদার, সুকুমার কবিরাজ, শিবু প্রসাদ মন্ডল, জিয়াউর রহমান, সুজন মন্ডল, সবুজ ব্যাপারী, শ্রীকৃষ্ণ রফতান, জাহিদুর রহমান, জহির উদ্দিন শেখ, বিপ্লব, কামরুল, মাসুদ প্রমুখ।

নারী জোট খুলনার মানববন্ধন আজ

বিজ্ঞপ্তি :
দেশ ব্যাপী ধর্ষণ ও নারি নির্যাতনের প্রতিবাদে আগামী ১২ অক্টোবর সকাল ১১টায় নগরীর পিকচার প্যালেস মোড়ে মানববন্ধন কর্মসূচী গ্রহণ করেছে জাতীয় নারী জোট খুলনা। উক্ত কর্মসূচীতে যথা সময়ে সংশ্লিষ্ট সকলকে উপস্থিত থাকার জন্য অনুরোধ করেছেন সংগঠনের সভাপতি রুনা লায়লা।

শেখ রাসেল জাতীয় শিশু কিশোর পরিষদের পরিচতি সভা

দেশ প্রতিবেদক :
শেখ রাসেল শিশু কিশোর পরিষদ খুলনা মহানগরের নবনির্বাচিত কমিটির পরিচতি সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান শুক্রবার বাদ আসর অনুষ্ঠিত হয়। মুজগুন্নি কাজীপাড়ায় সাংস্কৃতিক সম্পাদক কাজী মিকুর বাসায় অনুষ্ঠিত সভায় সভাপতিত্ব করেন মহানগরের নবনির্বাচিত কমিটির সভাপতি আনিছুর রহমান কবির। সার্বিক তত্ত্বাবধানে ছিলেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক নাছিমা সুলতানা, উপস্থাপনা করেন যুগ্ন সাধারন সম্পাদক নুর হাসান জনি। ঘরোয়া পরিবেশে পরিচিতি সভায় ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে উপস্থিত থেকে শুভেচ্ছা জানানোসহ অনুষ্ঠানটি উপভোগ করেন শেখ রাসেল জাতীয় শিশু কিশোর পরিষদ এর কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক লায়ন মোঃ মুজিবুর রহমান হাওলাদার । সাস্কৃতিক সম্পাদক কাজী মিকুর আয়োজনে খুলনা রেডিও বেতারের শিল্পিদের নিয়ে সাস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। সাস্কৃতিক অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন সাংস্কৃতিক সম্পাদক কাজী মিকু। সভায় সর্বসম্মতিক্রমে আগামী ১৮ই অক্টোবর বঙ্গবন্ধুর কনিষ্ঠ পুত্র শহীদ শেখ রাসেলের জন্মদিন উপলক্ষে বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহন করা হয়। কমর্সূচির মধ্যে থাকবে দোয়া মহফিল, কেককাটা ও ক্রিকেট টুর্নামেন্টের উদ্বোধন। এ সভায় বক্তব্য রাখেন খুলনা মহানগর আওয়ামীলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক শেখ ফারুক আহমেদ, শেখ রাসেল জাতীয় শিশু কিশোর পরিষদ খুলনা মহানগরের সহ সভাপতি শেখ নুর উদ্দিন,নাহিদ রেজা রানা, সাংগঠনিক সম্পাদক মো: কলিন হোসেন আরজু, দপ্তর সম্পাদক মো: রায়হান মোল্লা, প্রচার সম্পাদক এস এম মিশকাতুল ইসলাম, মুক্তি যুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক মো: শাহরিয়ার হাসান, কার্য নির্বাহি সদস্য শাহাবুদ্দিন মনির, শাহানা পারভীন, মো: আরিফ হোসেন, মো: সিয়াম শেখ, মুকিতুজ্জামান আরিফ, শেখ রিজাউল করিম, মুসফিকার শামস মেনান, মো: জহিরুল ইসলাম রাতুল, মো: তৌহিদুজ্জামান, মো: নাহিদ রেজা, আক্তার মায়ীশা প্রিয়াম, মো: হাফিজুর রহমান, শেখ রাকিবুল ইসলাম রাজু, জুয়েল, ফরিদ আহম্মদ সহ আরও অনেকে।

জেলা ছাত্রদলের নিন্দা ও প্রতিবাদ

বিজ্ঞপ্তি :
গতকাল শুক্রবার পাইকগাছা উপজেলা পরিষদ উপ-নির্বাচনে বিএনপি মনোনীত ধানের শীষের প্রার্থীর পক্ষে প্রচারনা শেষে বাড়ী ফেরার পথে পাইকগাছাস্ত জিরো পয়েন্টের অদুরে আগে থেকে ওৎপেতে থাকা ছাত্রলীগের সন্ত্রাসীরা পাইকংগাছা উপজেলা ছাত্রদলের সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক নাজমুল হুদা মিন্টুর উপর দিশীয় অস্ত্র শ্বস্ত্র নিয়ে অতর্কিত হামলা চালিয়ে গুরুতরভাবে জখম করে এবং তার ব্যবহৃত মোটর সাইকেল ভাংচুুর করে ও কাছে থাকা নগদ টাকা ছিনিয়ে নেয়। নাজমুল হুদা মিন্টু উপর এহেন ঘৃন্য ও ন্যাক্কারজনক হামলার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ এবং অবিলম্বে আওয়ামী সন্ত্রসীদের গ্রেফতারের জোর দাবি জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন খুলনা জেলা ছাত্রদলের নেতৃবৃন্দ। বিবৃতিদাতারা হলেন- খুলনা জেলা ছাত্রদলের সভাপতি আব্দুল মান্নান মিস্ত্রী, সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা তুহিনসহ খুলনা জেলা ছাত্রদলের সকল নেতৃবৃন্দ।

আপনার মতামত জানানঃ