বটিয়াঘাটায় ৪র্থ শ্রেনীর ছাত্রের উপ-বৃত্তির টাকা আত্মস্বাৎ

ইন্দ্রিজত টিকাদার, বটিয়াঘাটা : বটিয়াঘাটা উপজেলার ৬২নং বারোআড়িয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৪র্থ শ্রেনীর ছাত্র সিদ্ধার্থ বিশ্বাসের উপ- বৃত্তির টাকা সু- কৌশলে জনৈক হিরামন মন্ডল (সাগর) উত্তোলন করে নেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে । এ ব্যাপারে ভূক্তভোগী ছাত্রের পক্ষে বিদ্যালয়ের (ভারপ্রাপ্ত) প্রধান শিক্ষক রজত কান্তি হালদার প্রতিকার চেয়ে সংশ্লিষ্ট থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী দায়ের করেছেন ।সাধারণ ডায়রী নং ১০৪১,ইং তাং ২৭/০৪/২০২১। অভিযোগ সূত্রে প্রকাশ, উপজেলার ৬২ নং বারোআড়িয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৪র্থ শ্রেনীর ছাত্র সিদ্ধার্থ বিশ্বাসের উপ-বৃত্তির টাকা নগদ হেল্পলাইনে যোগাযোগ করলে বলে ০১৯৭২৩২১৪২১ নম্বর থেকে উক্ত টাকা উত্তোলন করে নেওয়া হয়েছে। পরবর্তীতে উক্ত নম্বর যাঁচাই- বাঁছাই করে জানা যায় নম্বরটি হিরামন মন্ডল সাগরের ।এ ব্যাপারে ছাত্রের অভিভাবক ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক রজত কান্তি হালদারের কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করলে তিনি উক্ত অভিযোগের ভিত্তিতে হিরামনকে জিজ্ঞাসা করলে বিষয়টি সম্পূর্ণ অস্বীকার করে। এমনকি গত ২৩ এপ্রিল বেলা ১১টা ৩ মিনিটে উক্ত শিক্ষক রজত কান্তি হালদারের ব্যবহৃত মোবাইল ফোনে কল দিয়ে হিরামন মন্ডল অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ সহ জীবন নাশের হুমকি দেয় । জিডিতে তিনি আরো অভিযোগ করে বলেন, হিরামন মন্ডল সাগর এলাকায় নিজেকে সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে বিভিন্ন ধরনের অপকর্মের সাথে জড়িয়ে পড়ে বহু অপকর্মের কারনে বিভিন্ন সময়ে যৌথবাহিনীর অভিযানে আটক হয় । এ ব্যাপারে ভূক্তভোগীর পরিবারের পক্ষ থেকে সংশ্লিষ্ট দপ্তরের উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করা হয়েছে। জিডির কপিটি হিরামন মন্ডলের ফেসবুক ম্যাসেন্জারে প্রেরণ করে তাকে অবগত করলেও তিনি জানান, অভিযোগটি সঠিক নয়। আমি বিষয়টি অভিযোগকারীর বিরুদ্ধে ইতো মধ্যে উপজেলা ও জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার বরাবর অভিযোগ দিয়েছি। তবে হিরামন মন্ডল জিডির বিষয়বস্তু এড়িয়ে গিয়ে কোন আইনি পদক্ষেপ না নিয়ে প্রধান শিক্ষক রজত কান্তি হালদার এর বিরুদ্ধে প্রতিহিংসা মূলক ভাবে উপজেলা ও জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার বরাবর অভিযোগ করার বিষয়টি নিয়ে এলাকায় বেশ চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

 

আপনার মতামত জানানঃ