বটিয়াঘাটার সুরখালী ইউপি চেয়ারম্যান আঃ হাদী’র বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ প্রমানিত

ইন্দ্রজিৎ টিকাদার, বটিয়াঘাটা : বটিয়াঘাটা উপজেলার সুরখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আঃ হাদী সরদার এর বিরুদ্ধে বিভিন্ন প্রকল্প থেকে সরকারী অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ প্রমানিত হওয়ায় সাধারণ মানুষের মাঝে চরম ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে।
সূত্রে প্রকাশ, উপজেলার সুরখালী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আঃ হাদী সরদার বিভিন্ন সময় টিআর, কাবিখা, এলজিএসপি সহ বিভিন্ন প্রকল্পের কাজ না করে সমুদয় অর্থ আত্মসাৎ করে। এর বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট ইউনিয়নের ওয়ার্ড সদস্য বিএমমাসুদ রানা, মোঃ জাহিদুর রহমান শেখ ও স্বপ্না রানী রায় সহ একাধিক ইউপি সদস্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আহমেদ জিয়াউর রহমান এর নিকট লিখিত অভিযোগ দায়ের করে। নির্বাহী কর্মকর্তা অভিযোগটি আমলে নিয়ে ৫ সদস্য বিশিষ্ঠ একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে। তদন্ত কমিটি ৭৪৬ নং স্বারকে গত ১৭/১০/২০১৯ ইং তারিখে একটি তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করে। তদন্ত প্রতিবেদনে অর্থ আত্মসাতের বিষয় সত্যতা প্রমানিত হওয়ায় প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর একটি সুপারিশনামা সহ উক্ত প্রতিবেদন দাখিল করে। আত্মসাতের মধ্যে সুরখালী ইউনিয়নের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নামে ক্রীড়া সামগ্রী সঠিকভাবে ক্রয় না করে বিতরণ দেখানো, এলজিএসপি ২০১৭-২০১৮ প্রকল্পের আওতায় সুন্দরমহল খেয়াঘাট পুনঃ পাকাকরণ ও সুন্দর মহল বাজার হতে খেয়াঘাট পর্যন্ত ইটের সোলিং রাস্তা নির্মাণ/সংস্কার প্রকল্পের আওতায় ৬ লক্ষ টাকা আত্মসাৎ এলজিএসপি ২০১৬-২০১৭ প্রকল্পের আওতায় গাওঘরা চান্দারডাঙ্গা হাবিবুর শেখ এর বাড়ি হতে রকিব উদ্দিনের বাড়ি পর্যন্ত ইটের সোলিং রাস্তা নির্মানের নামে ৩ লক্ষ ৯০ হাজার টাকা আত্মসাৎ, প্রিন্টার ক্রয়ের জন্য বরাদ্দকৃত ২০ হাজার টাকা আত্মসাৎ, এলজিএসপি ২০১৭-২০১৮ প্রকল্পের আওতায় ভগবতীপুর গ্রামের খালের উপর নির্মিত ফুট ব্রীজ নির্মাণ কাজ আংশিক ও দায়সারা ভাবে করে সমুদয় অর্থ আত্মসাৎ, ইউনিয়ন পরিষদের দৈনন্দিন কাজের টাকা আদায় ও অন্যান্য খাত হতে আদায়কৃত টাকা পরিষদের তহবিলে জমা না দিয়ে সকল টাকা আত্মসাতের অভিযোগ। তদন্ত প্রতিবেদনটি পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য স্থানীয় সরকার বিভাগ, পল্লি উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রনালয়ের উপ-সচিব, ইউপি শাখা-১ বরাবর প্রেরন করা হয়েছে। এ নিয়ে এলাকায় চরম ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে।

আপনার মতামত জানানঃ