ফুলতলায় অসহায় মহিলাদের সেলাই মেশিন ও শিশু খাদ্য বিতরণ

ফুলতলা (খুলনা) প্রতিনিধিঃ ফুলতলা উপজেলা পরিষদের উদ্যোগে বুধবার বিকালে উপজেলা অডিটরিয়ামে অসহায় ও দরিদ্র মহিলাদের মাঝে সেলাই মেশিন বিতরণ করা হয়। এ সময় উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ¦ শেখ আকরাম হোসেন, ইউএনও সাদিয়া আফরিনসহ পরিষদের কর্মকর্তাবৃন্দ। এদিকে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ইউএনও সাদিয়া আফরিন আটরা গিলাতলা, দামোদর, জামিরা ও ফুলতলা ইউনিয়নের অসহায় পরিবারের শিশুদের জন্য শিশু খাদ্য এবং খামারীদের মাঝে গো—খাদ্য বিতরণ করেন।

বিতরণকালে উপস্থিত ছিলেন সমাজসেবা কর্মকর্তা শাহীন আলম, ইউপি চেয়ারম্যান শেখ মনিরুল ইসলাম, শরীফ মোহাম্মদ ভূঁইয়া শিপলু. মাওঃ সাইফুল হাসান খান, শেখ আবুল বাশার, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ রফিকুল ইসলাম, মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা ফারাহানা ইয়াসমিন, আইসিটি কর্মকর্তা পুষ্পেন্দু দাস, যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা পারভেজ মোল্যা প্রমুখ। প্রসঙ্গতঃ ৪ ইউনিয়নের ১২০জন শিশু ও ১২২জন খামারীদের মাঝে এ খাদ্য বিতরণ করা হয়।

ফুলতলায় বিধি ভঙ্গ করায় ২ ব্যক্তিকে জরিমানা

ফুলতলা (খুলনা) প্রতিনিধি : করোনা সংক্রমন রোধে খুলনা জেলা প্রশাসন ঘোষিত বিধি নিষেধ আরোপ কার্যকর করতে ফুলতলা উপজেলা প্রশাসনের নজরদারি ও ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালিত হয়। বুধবার দুপুরে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) রুলী বিশ্বাস ফুলতলা বাজারে বিধি ভঙ্গ করে দোকান খুলে রাখায় ১ এক ব্যক্তি ও ১ প্রতিষ্ঠানকে ১৩ হাজার টাকা জরিমানা ধার্য ও আদায় করেন। দন্ডপ্রাপ্তদের মধ্যে খান এন্টার প্রাইজের কর্মচারী অনিককে ১০ হাজার টাকা এবং এসএস টাইলস্ এন্ড স্যানিটারী মালিক ইমদাদ হোসেন মোল্যাকে ৩ হাজার টাকা অর্থদন্ড দেয়া হয়।

বটিয়াঘাটার জলমা ইউনিয়ন তহশীল অফিসে শত ভাগ রাজস্ব আদায়

বটিয়াঘাটা প্রতিনিধিঃ খুলনা জেলা প্রশাসনের রাজস্ব আদায়ের ক্ষেত্রে বেঁধে দেওয়া শতভাগ রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রায় বটিয়াঘাটার উপজেলার জলমা ইউনিয়ন তহশীল অফিস একশত এক ভাগ রাজস্ব আদায়ে সক্ষম হয়েছে। রাজস্ব আদায়ের পরিমান ১ কোটি ১১ লক্ষ ৮২ হাজার টাকা। সেক্ষেত্রে জেলার মধ্যে রাজস্ব আদায় করে রেকর্ড অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে উপজেলার এ তহশীল অফিস। জানা গেছে, গত ১ জুলাই ২০২০ থেকে ৩০ জুন ২০২১ পর্যন্ত রাজস্ব আদায়ের ক্ষেত্রে খুলনা জেলা প্রশাসনের রাজস্ব আদায় কমিটির মাসিক সভায় জেলার সকল তহশীল অফিসকে শতভাগ রাজস্ব আদায়ের জন্য লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করে দেয় উক্ত জেলা রাজস্ব কমিটি। সেক্ষেত্রে জেলা প্রশাসক বটিয়াঘাটার জলমা তহশীল অফিসকে রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করে দেয় ১ কোটি ১০ লক্ষ টাকা । জেলা প্রশাসকের নির্ধারিত লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে জলমা ইউনিয়ন তহশীল অফিস প্রায় ৫০ হাজার সাধারণ ভূমি মালিকদের সেবা দিয়ে লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে গিয়ে ১ কোটি ১১ লক্ষ ৮২ হাজার টাকা আদায় করে শতভাগ উতরে ১০১% রাজস্ব আদায় করে সর্বোচ্চ রেকর্ড গড়তে সক্ষম হয়েছে। অন্যদিকে উপজেলা ভূমি অফিসের সহকারী কমিশনার ভূমি আব্দুল হাই সিদ্দিকীর প্রচেষ্টায় গত জুন মাসের ৩০ দিনে নামপত্তন কেস থেকে প্রায় ২০ লক্ষ টাকা রাজস্ব আদায় হয়েছে। এব্যাপারে জলমা ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তা কৃষ্ণ পদ দাসকে জিজ্ঞসা করলে এ প্রতিবেদককে জানান, উদ্ধতন কর্তৃপক্ষ যে লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছিল আমরা অফিসের সকলে মিলে প্রায় ৫০ হাজার সাধারণ ভূমি মালিকদের সেবা প্রদান করে উক্ত ১০১% রাজস্ব আদায় করতে সক্ষম হয়েছি। অপরদিকে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) অফিস গত একমাসে আশাতীত রাজস্ব আদায় করে নজিরবিহীন দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে।

ফুলতলায় সাবেক মন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দে’র সুস্থতায় প্রার্থনা সভা

ফুলতলা (খুলনা) প্রতিনিধিঃ সাবেক মন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দ এমপির সুস্থতা কামনায় পূজা উদযাপন পরিষদ ফুলতলা উপজেলা শাখার উদ্যোগে এক প্রার্থনা সভা বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় দামোদর সাহাপাড়া মন্দির চত্বরে অনুষ্ঠিত হয়।

মন্দির কমিটির সভাপতি সরোজ কুমার সাহার সভাপতিত্বে এবং পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক মৃনাল হাজরার পরিচালনায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সনজিৎ বসু, প্রেসক্লাব ফুলতলা সভাপতি তাপস কুমার বিশ্বাস, প্রধান শিক্ষক প্রেমচাঁদ দাস, বিশ্বনাথ মন্ডল, বিকাশ রায়, প্রদ্যুৎ কুমার বিশ্বাস, প্রবীর হালদার, শেখর সুর, রবীন কুন্ডু, বিপ্লব রায়, মহাদেব দাস, সঞ্জয় গোষ্মামী, পার্থ চক্রবতীর্ প্রমুখ।

 

আটোয়ারীতে যায়যায়দিনের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত

মনোজ রায় হিরু, আটোয়ারী : পঞ্চগড়ের আটোয়ারীতেকেক কেটে দৈনিক যায়যায়দিন পত্রিকার ১৬তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত হয়েছে। মঙ্গলবার সকালে সীমিত পরিসরে স্বাস্থ্যবিধি মেনে উপজেলা প্রতিনিধি মনোজ রায় হিরু’র সহোযগিতায় প্রেসক্লাব ভবনে কেক কাটা ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
প্রেসক্লাবের সভাপতি জিল্লুর হোসেন সরকারের সভাপতিত্বে এবং সম্পাদক এ রায়হান চৌধুরী রকি’র সঞ্চালনায় প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ তৌহিদুল ইসলাম, উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবু তাহের মোঃ সামসুজ্জামান, ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ শাহাজাহান ও রেনু একরাম, আটোয়ারী থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ ইজার উদ্দিন, উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ মোঃ আব্দুল্লাহ আল মামুন, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা ডাঃ মোঃ হুমায়ুন কবীর, উপজেলা প্রকৌশলী মোঃ জাকিউল আলম, রাধানগর ইউ,পি চেয়ারম্যান মোঃ আবু জাহেদ, ধামোর ইউ,পি চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম দুলাল, প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি মোঃ আনিসুর রহমান, উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি মোঃ ইউসুফ আলী ও সাধারন সম্পাদক মোঃ জাহেরুল ইসলাম প্রমুখ উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন।
এ সময় প্রেসক্লাবের সকল সদস্য সহ উপজেলায় কর্মরত সকল গণমাধ্যমকর্মীগণ উপস্থিত ছিলেন। আলোচনা সভা শেষে কেক কেটে কর্মসুচীর ইতি টানা হয়।

কোটি টাকা ভ্যাট ফাঁকি সন্দেহে কেএসআরএমের নথিপত্র জব্দ

চট্টগ্রাম ব্যুরো:শতকোটি টাকা ভ্যাট ফাঁকি সন্দেহে কবির স্টিল রি-রোলিং মিলস লিমিটেডের (কেএসআরএম) অফিস থেকে কম্পিউটারসহ বেশকিছু নথিপত্র জব্দ করেছে চট্টগ্রাম কাস্টমস, এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেটের প্রিভেন্টিভ শাখা। মঙ্গলবার (২৯ জুন) চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড কারখানা অফিস থেকে এসব নথি জব্দ করা হয়। অভিযান পরিচালনাকারী দলের এক সদস্য জানান, ভ্যাট ফাঁকির তথ্য পেয়েই কেএসআরএমের নথি জব্দ করা হয়েছে। ভ্যাট ফাঁকির পরিমাণ জানতে অন্তত ১৫-১৬ দিন সময় লাগবে।

অভিযোগ রয়েছে, সীতাকুণ্ডের কারখানায় রড উৎপাদন কম দেখিয়ে প্রতিষ্ঠানটি ভ্যাট অফিসে যে তথ্য দিয়েছে তার চেয়ে অনেক বেশি বিক্রির তথ্য পেয়েছে চট্টগ্রাম কাস্টমস, এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেটের প্রিভেন্টিভ শাখা। সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের ধারণা, বড় অঙ্কের ভ্যাট ফাঁকি দিয়েছে কেএসআরএম। এর আগেও  কেএসআরএম বিভিন্ন সময় ভ্যাট ফাঁকি দিয়েছে। পরে তদন্তে প্রমাণিত হওয়ায় তা পরিশোধে বাধ্য হয় প্রতিষ্ঠানটি। ফলে ভ্যাট কর্মকর্তাদের সন্দেহের তালিকায় থাকে প্রতিষ্ঠানটি।

চট্টগ্রাম কাস্টমস, এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেট কমিশনার মোহাম্মদ আকবর হোসেন গণমাধ্যমকে বলেন, শতকোটি টাকা ভ্যাট ফাঁকি দেয়ার সন্দেহে কেএসআরএমের নথিপত্র জব্দ করা হয়েছে। প্রতিষ্ঠানটি ঠিক কত টাকা ভ্যাট ফাঁকি দিয়েছে তা জানতে জব্দ করা নথিপত্রগুলোর পর্যালোচনা চলছে।

চাঁদাবাজি করে কোটিপতি চাক্তাই শিল্প ও ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি ও কেরানি

চট্টগ্রাম ব্যুরো: বাণিজ্যিক রাজধানী চট্টগ্রামের প্রাণকেন্দ্র চাক্তাই চট্টগ্রাম নগরীর চাক্তাই শিল্প ও ব্যবসায়ী সমিতির নামে চাঁদাবাজি করার অভিযোগ উঠেছে।

চট্টগ্রাম নগরীর চাক্তাই শিল্প ও ব্যবসায়ী সমিতির কথিত সভাপতির বিরুদ্ধে অবৈধভাবে চাঁদাবাজি ও সমিতির টাকা আত্মসাৎসহ বিভিন্ন অনিয়ম- দুর্নীতিতে জড়িয়ে শতকোটি টাকা অবৈধ উপার্জনে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

জানা যায় চট্টগ্রাম নগরীর চাক্তাই শিল্প ও ব্যবসায়ী সমিতির ৮ হাজার টাকা বেতনের কেরানি মোহাম্মদ ইউনুছ এক সময়ের পুলিশের সোর্স হিসেবে কাজ করতেন। চাক্তাই ব্যবসায়ী সমিতিতে চাকুরী নিয়ে দায়িত্ব নেয় সমিতির চাঁদা তোলার। সদস্যদের টাকা সমিতির ফান্ডে জমা না দিয়ে তিনি ভূয়া খরচ দেখিয়ে প্রতি মাসে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে বনে যান কোটিপতি। শুরু হয় বিলাস বহুল জীবন যাপন গড়ে তোলেন কোটি টাকার অবৈধ সম্পদ। সমিতির কেরাণী ইউনুছ বাকলিয়া থানা ও কোতোয়ালী থানা পুলিশ ও প্রশাসনের নাম ভাঙ্গিয়ে চাঁদা তুলে নিজেই আত্মসাত করে আসছে প্রায় তিন যুগ ধরে। ইউনুছের অনিয়ম দুর্নীতি নিয়ে কেউ প্রতিবাদ করলে কৌশলে তাকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়ে জেল জুলুম ও নির্যাতন করার অভিযোগও রয়েছে।

১৯৯২-৯৩ সালে চাক্তাই ব্যবসায়ী সমিতির যাত্রা শুরু হওয়ার পর কয়েকটি ব্যবসায়ী সংগঠন ভেঙ্গে ২০০৫ সালে চাক্তাই শিল্প ও ব্যবসায়ী সমিতি নামে নামকরণ করা হয়। ২০১০-১১ সালে হায়দার চৌধুরীর কাছ থেকে জোরপূর্বক ক্ষমতা কেড়ে নেয় বর্তমান সভাপতি হারুনুর রশিদ। অবৈধভাবে সমিতির সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। বর্তমান সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্বে রয়েছেন ফরিদ উদ্দীন আহমেদ। সমিতির নামে নিয়মিত চাঁদা তোলেন সমিতির কেরানি (সচিব) মো. ইউনুছ। কেরানি ইউনুছ ও সভাপতি হারুনুর রশীদকে নিয়ে পুরো সমিতি নিয়ন্ত্রনে নেয়। সমিতির কোন সদস্য কেরানির বিরুদ্ধে কিছু বলার চেষ্টা করলে কৌশলে উক্ত সদস্যকে সমিতি থেকে বের হয়ে যাওয়ার মত পরিবেশ সৃষ্টি করেন এবং বিভিন্ন মামলায় ফাঁসিয়ে দেয় ইউনুছ। সমিতির সদস্যদের মাসিক চাঁদা ও ট্রাক প্রতি দৈনিক চাঁদার টাকা প্রশাসন ও পুলিশসহ বিভিন্ন কর্তা ব্যক্তিদের নামে খরচ দেখিয়ে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে ইউনুছ।

হারুন সভাপতি হওয়ার পর তার ছেলেদের দিয়ে চাক্তাই সিন্ডিকেট করে নিষিদ্ধ পলিথিন ব্যাগ, ছালাসহ চোরাই ব্যবসার সাথে জড়িত থাকার জড়িত থাকার অভিযোগও রয়েছে। সভাপতি হারুনুর রশীদ ও তার পরিবার গত ১০ বছরে প্রায় শত কোটি টাকার অবৈধ সম্পদের মালিক হয়েছে বলে ব্যবসায়ীদের অভিযোগ যাহা তদন্ত করলে সত্যটা বেরিয়ে আসবে।

সমিতির কেরানি ইউনুছ সমিতিরপ্রায় কয়েক কোটি টাকা আত্মসাত করে অবৈধ সম্পদ গড়ে তোলার পাশাপাশি পটিয়া আশিয়া মল্লা পাড়ায় বিলাসবহুল বাড়ি নির্মাণ, চাক্তাই এলাকায় আলীশান বাসায় সৌখিন জীবন যাপন করতে গিয়ে চাক্তাই বাসায় বিদেশী কুকুর পালন, কুকুরকে দেখাশুনা করতে ৫ হাজার টাকা বেতনে কাজের মানুষ, ছেলেদের বিদেশে লেখা পড়ার করার মত তথ্য পাওয়া গেছে। সমিতিরি বর্তমান সভাপতি ও কেরানি ইউনুছের অনিয়ম দুর্নীতির প্রতিবাদ জানিয়ে আসছে সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক কাউন্সিলর জামাল উদ্দীন, সাবেক সাধারণ সম্পাদক ফয়েজ উল্লাহ চৌধুরী বাহাদুর, রাইচ মিল মালিক সমিতির সভাপতি ফরিদ উদ্দীন, ছালা পলিথিন ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি ও ব্যবসায়ী সমিতির যুগ্ম সম্পাদক আব্বাস উদ্দীন, ট্রাক সমিতির প্রধান উপদেষ্টা নিজাম উদ্দীন কাজল, ব্যবসায়ী সমিতির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক জসিম উদ্দীন মিন্টুসহ অনেকে। সমিতির অনিয়ম দুর্নীতির প্রতিবাদ করতে গিয়ে একাধিক মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়ে দেয়ার অভিযোগ করেন ট্রাক সমিতির প্রধান উপদেষ্টা নিজাম উদ্দীন কাজল। এবিষয়ে চাক্তাই ব্যবসায়ী সমিতির নেতা ও ট্রাক সমিতির উপদেষ্টা নিজাম উদ্দীন কাজল বলেন, সমিতির আয় ব্যয় হিসাব এবং সমিতির নামে গণহারে চাঁদাবাজির ঘটনায় প্রতিবাদ করতে গিয়ে তারা আমার বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময় মামলা দিয়ে হয়রানি করেছে বলে জানান। এ বিষয়ে চাক্তাই ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক ফরিদ উদ্দীন বলেন, সমিতির কেরানি ইউনুছের বিরুদ্ধে সমিতির ফান্ডের টাকা আত্মসাতের বিষয়টি প্রমানিত হতে ব্যবস্থা নেয়া হবে, তবে বিয়ষটি জানার পর তিনি তদন্ত করে দেখবেন বলে জানান।
এ বিষয়ে চাক্তাই ব্যবসায়ী সমিতির কেরানি মোহাম্মদ ইউনুছের সাথে যোগাযোগ করা হলে তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র চলছে বলে দাবি করেন এবং পটিয়া গ্রামের বাড়িতে বিল্ডিং করার বিষয়টি স্বীকার করেন। বিভিন্ন বিষয়ে মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়ে দেয়ার অভিযোগটি সঠিক না জানান। চাঁদাবাজি করে থাকলে পুলিশ কেন মামলা করছে তারা থানায় কেন যাচ্ছে না তিনি পাল্টা প্রশ্ন করেন।